কারাতে-কুস্তি


৮ মে, ২০২২

রাজা, মহারাজা এবং জমিদারদের নিজের আখড়ায় পালোয়ানদের পৃষ্ঠপোষকতা করার ঐতিহ্য দুইশত বছরেরও অনেক আগের। তিন চার পুরুষ ধরে পালোয়ানী চর্চা ছিল। অধিকাংশ পালোয়ান কিন্তু কখনো কুস্তিকে পেশা হিসেবে নেননি। ইংরেজ রাজত্বে বলবান পুরুষদের অনেক বেশি কদর ছিল। রাজা-মহারাজরা পালোয়ানদের পৃষ্ঠপোষকতা করে আনন্দ এবং গর্ববোধ করতেন। পালোয়ানরা মাটি খোড়া জমিনে একে অপরের বিপক্ষে নিয়মিতভাবে কুস্তি লড়তেন। সেই কুস্তির নিয়ম কানুনের সঙ্গে এখনকার কুস্তির নিয়ম কানুনের কোনো মিল নেই। বাঙালি পালোয়ানদের শক্তি, সামর্থ্য এবং দক্ষতার তখন সুনাম ও সুখ্যাতি ছিল। বাঙালি পালোয়ানরা অন্য প্রদেশের পালোয়ানদের সঙ্গে কুস্তি লড়ে হরহামেশা জয়ী হয়ে গলায় ‘মেডেল’ পরেছেন। রাজা, মহারাজা এবং জমিদারদের থেকে বাহবা কুড়িয়েছেন। এসব পালোয়ানদের শক্তি ও কীর্তি নিয়ে গল্প অনেক বইয়ে স্থান পেয়েছে। মজার বিষয় হলো, অনেক বাঙালি পালোয়ান আবার ভীষণভাবে কুসংস্কারে বিশ্বাসী ছিলেন। কেউ কেউ তো অন্য ধর্মাবলম্বী পালোয়ানের সঙ্গে লড়তে চাইতেন না জাত যাবার ভয়ে।