SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon মহানগর সময়

আপডেট- ০৪-০১-২০১৮ ১৮:৪৫:৪৯

অসুস্থতা নিয়েই আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন নন-এমপিও শিক্ষকরা

teachers-5pm

টানা পঞ্চম দিনের মতো রাজধানীতে আমরণ অনশন চালিয়ে যাচ্ছেন স্বীকৃতিপ্রাপ্ত নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা। সরকারের পক্ষ থেকে সুস্পষ্ট ঘোষণা ছাড়া তারা প্রেসক্লাবের সামনে থেকে সরে না যাওয়ার ঘোষণায় অনড় রয়েছেন। এদিকে অনশনে থাকায় প্রতিদিনই বাড়ছে অসুস্থ শিক্ষকদের সংখ্যা।

অবস্থান কর্মসূচির দশম দিন আর অনশনের পঞ্চম দিন। তাই ক্ষুধা তৃষ্ণায় দিন দিন ক্লান্ত হয়ে পড়ছেন স্বীকৃতিপ্রাপ্ত নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এসব শিক্ষক-কর্মচারীরা।

এমপিও করার এ আন্দোলনে প্রতিদিনই নতুন করে যোগ দিচ্ছেন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা জাতি গড়ার কারিগররা। সরকারের পক্ষ থেকে কোন সাড়া না পেয়ে আন্দোলনের ১০ দিনেও তাদের অবস্থানে অনড় তারা। সুনির্দিষ্ট ঘোষণা না আসা পর্যন্ত এ অনশন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা তাদের।

শিক্ষকরা বলেন, আমাদের দাবি আদায় হওয়ার আগে পর্যন্ত আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাব। দাবি আদায়ের জন্য প্রয়োজনে আমরা জীবন দিব। প্রধানমন্ত্রী আমাদের দাবি মেনে নিলে আমরা তার কাছে চির কৃতজ্ঞ থাকব।

দিন যাবার সাথে সাথে বাড়ছে অসুস্থ শিক্ষকদের সংখ্যা। গতকাল ৪র্থ দিনে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পরেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক। তাদের নিয়ে যাওয়া হয় বিভিন্ন হাসপাতালে।

শিক্ষাবিদ অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেন, এই যে এমপিওভুক্তি করা হয়নি সেটা কেন হয়নি তার ব্যাখ্যা সরকারের কাছে নেই। সরকার মাঝে মাঝে বলে টাকা-পয়সা নেই। এটা মিথ্যাচার।

তাদের সাথে সংহতি জানাচ্ছেন বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠনও।

তীব্র শীত উপেক্ষা করে রাতেও আমরণ অনশন কর্মসূচি পালন করেছেন তারা। সবশেষ, ২০১০ সালে ১ হাজার ৬২৪টি নন-এমপিও উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজকে এমপিওভুক্ত করে সরকার। বাকি ৫ হাজার ২৪২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্তি অধরাই থেকে যায়। এসব প্রতিষ্ঠানে বিনা বেতনে পাঠদান করছেন দেশের ৮০ হাজার শিক্ষক।