SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon বাংলার সময়

আপডেট- ১২-১২-২০১৭ ০৯:৪১:৩০

টানা বৃষ্টিতে ফের বিপর্যয়, বিপাকে ফেনীর আমন চাষিরা

feni-amon-loss

গত কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে ফেনীর প্রায় ৩০ হাজার হেক্টর জমির আমন ফসলসহ ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েছে হাজার হাজার হেক্টর জমির রবি ও শীতকালীন সবজি চাষিরা। পুরো জেলায় চলছে ধান কাটার মৌসুম। এমন সময় হঠাৎ অনাকাঙ্ক্ষিত বৃষ্টিতে কৃষকদের ধান নিয়ে পড়তে হয়েছে বিপাকে। বেশিরভাগ জমির পাকা আমন ধান বৃষ্টির পানিতে ডুবে যাওয়া এবং নুইয়ে পড়া ধানের পাশাপাশি রবি ও শীতকালীন সবজি সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত বলে জানিয়েছে কৃষি বিভাগ। 

এ বছর কয়েক-দফায় বন্যা, অতিবৃষ্টি, জলোচ্ছ্বাস আর পাহাড়ি ঢলের ধকল কাটিয়ে যখন আমন ফসল ঘরে ওঠানোর জন্য ফেনীর কৃষকেরা স্বপ্ন দেখছিলো, তখনই পাকা ধানে মই দিতেই যেন হাজির হয় বৃষ্টি। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপের প্রভাবে শুক্রবার থেকে সোমবার পর্যন্ত টানা বৃষ্টিতে বেশিরভাগ ক্ষতিগ্রস্ত হয় ফেনীর মাঠের পর মাঠ আমন ধান যা কৃষকেরা কেটে নেয়ার চূড়ান্ত পর্যায়ে ছিলো। 

কৃষি বিভাগের হিসেবমতে, চলতি বছরে ২১৫ হাজার হেক্টর জমিতে রোপা আমন, শীতকালীন ও রবিশস্য ৩২৫০ হেক্টর এবং ডালজাতীয় ফসল চাষ করা হয়েছে প্রায় চারশো হেক্টর। এসবের মধ্যে শুধু আমন ধানের অর্ধেকটা কৃষকেরা ঘরে তুলতে পারলেও বাকিসব ফসল নিয়ে তারা পড়েছেন চরম বিপাকে। 

‘এখন ধরেন আমন ঘরে তোলার সময়। এই সময়টাতে বৃষ্টির কারণে পানির নীচে চলে গেছে পাকা ধান,’বলেন ভুক্তভোগীদের একজন।

আরেক কৃষক বলেন, ‘এই বৃষ্টিপাতের কারণে আমাদের সবজিরও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। আমরা মনে হয় সামনে সবজির বাজার আরও চড়া হবে।’

‘সর্বনাশ হয়ে গেছে। আমরা এই বৃষ্টির কারণে নির্বাক। আমাদের করার আর কিছু নাই। আমরা সর্বহারা হয়ে গেছি,’ আক্ষেপ ঝড়ে পড়লো আরেক কৃষকের কথায়।

কৃষি বিভাগ বলছে, বারবার প্রাকৃতিক দুর্বিপাকের মধ্যে পড়া কৃষকদের এবারের ক্ষতি কাটিয়ে ওঠা দুঃসাধ্য হবে।

ফেনীর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক মো. খালেদ কামাল বলেন, ‘ফসল চাষ করতে কৃষকেরা পিছিয়ে যাচ্ছিলো। তার উপরে এবারের বৃষ্টি আমাদের কৃষকদের ফসল আবাদকে আরও পিছিয়ে দেবে।’

জেলার আবহাওয়া অফিসের দেয়া তথ্যমতে গত শনি থেকে সোমবার পর্যন্ত জেলার বৃষ্টিপাতের পরিমাণ রেকর্ড করা হয়েছে ৯১ মিলিমিটার। এরমধ্যে ফেনীর শস্যভাণ্ডার খ্যাত সোনাগাজী উপজেলায় সোমবার বৃষ্টি হয়েছে ১১২ মিলিমিটার। 

এসএন