SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon খেলার সময়

আপডেট- ২৩-১১-২০১৭ ২০:১৬:৩০

'খেলার অনুষ্ঠান উপস্থাপনায় মেয়েদের অহেতুক প্রাধান্য দেয়া ঠিক না'

zafor-ullah-sarafat

'ক্রিকেটে নতুন আওয়াজ' স্লোগান নিয়ে দেশে প্রথমবারের মতো ধারাভাষ্যকারের খোঁজে শুরু হয়েছে 'ফ্রেশ স্বাধীন কমেন্টেটর হান্ট-২০১৭' প্রতিযোগিতা। বাংলাদেশের সবগুলো বিভাগ থেকে প্রতিযোগীতারা এতে অংশ নিচ্ছেন। দেশের বাইরে থেকেও অনেকেই রেজিস্ট্রেশন করেছে বলে জানিয়েছেন আয়োজকরা। তবে অডিশন দিতে তাদেরও ঢাকায় আসতে হবে। ঢাকার ৭টি নির্দিষ্ট এলাকায় ২২ নভেম্বরে শুরু হওয়া অডিশন চলবে ২৮ নভেম্বর পর্যন্ত। প্রাথমিকভাবে বাছাইকৃতদের নিয়ে ২ থেকে ৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত ৩ দিন ব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মসূচি পরিচালিত হবে। প্রতিযোগিতার মুল বিচারক হিসেবে চৌধুরী জাফরউল্লাহ শারাফাতসহ দেশের স্বনামধন্য ক্রীড়া ধারাভাষ্যকাররা থাকবেন।

ভিন্নধর্মী এ প্রয়াস নিয়ে কথা বলতে সময় নিউজে এসেছিলেন চৌধুরী জাফরউল্লাহ শারাফাত। কথা হলো তাঁর সঙ্গে।

সময় নিউজ: এই প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের জন্য কি থাকছে?

চৌ. জাফরউল্লাহ শারাফাত: বিজয়ীর জন্য থাকছে লক্ষ টাকার পুরস্কার। আমরা দেশের প্রতিটি বিভাগ থেকে আলাদা অডিশনের মধ্যমে ৩৫ জনকে প্রাথমিকভাবে বাছাই করবো। তারপর অনেকগুলো রাউন্ড হবে। এরপর টপ টেন বাছাই করবো। এই দশ জন থেকে সেরা তিন জন- চ্যাম্পিয়ন, প্রথম রানার্স আপ এবং দ্বিতীয় রানার্স আপ হবে। এদের বাইরে আরও দু'জন থাকবে, ক্রিকেট কমেন্ট্রির পাশাপাশি ক্রিকেটের বিভিন্ন অনুষ্ঠান টেলিভিশনে উপস্থাপনা করবেন। বিজয়ীদের বাংলা এবং ইংরেজিতে কমেন্ট্রি করার সুযোগ থাকবে। রেডিও স্বাধীনে কমেন্ট্রি করার সুযোগ পাবে। বাংলাদেশ বেতারে করা সুযোগ করে দেয়া হবে, টেলিভিশনে কমেন্ট্রির সুযোগ পাবে। জাতীয় এবং আন্তর্জাতিকভাবে সব জায়গায় কমেন্ট্রি করার সুযোগ পাবে।

সময় নিউজ: বিভিন্ন দেশের খেলোয়াড়রা অবসর নেয়ার পর ধারাভাষ্য দিতে দেখা যায় কিন্তু বাংলাদেশে এই প্রাকটিসটা একেবারেই কম।...

চৌ. জাফরউল্লাহ শারাফাত: 'অনেকেই বলেন, এই কমেন্টেটর হান্টে সাবেক খেলোয়াড়দের প্রাধান্য দেয়ার কথা। আমরাও সেটা দিতে চাই কিন্তু তাদের তো আগ্রহ থাকতে হবে। তাদের যখন একটা টক শো'র জন্য ডাকা হয় তারা আসতে চান না, কথা বলতে চান না। তাহলে কি করে হবে! আর কমেন্ট্রি তো আরো কঠিন একটা জায়গা। সারাদিন কথা বলতে হবে। আমাদের খেলোয়াড়দের বেশিরভাগই ইংরেজি কিংবা বাংলা কোনটাই ঠিকভাবে বলতে পারে না। তাদের মধ্যে এক ধরনের জড়তা আছে।'

সময় নিউজ: মিডিয়াগুলোতে সম্প্রতি একটা ট্রেন্ড খুব দেখা যায়, খেলা বিষয়ক অনুষ্ঠানগুলোর সঞ্চালনায় মেয়েদের অতিমাত্রায় প্রাধান্য দেয়া হয়। এটার কারণ কি?

চৌ. জাফরউল্লাহ শারাফাত: আমি এটার পক্ষে না। টিভি কর্তৃপক্ষ বলে, 'মেয়েরা হলো গ্লামার।' তারা বলেন, 'কর্তৃপক্ষের, পৃষ্ঠপোষকদের এবং স্পন্সরশীপের ডিমান্ড এটা। তাদের দাবি, মেয়েদের দিয়ে এটা করানো হলে অনেক বেশি মানুষ দেখে। আমি তাদের বলেছি, ভাই, একটা সময় একটা সাদাকালো টেলিভিশন ছিলো, বিটিভি। সেই সময় থেকে আমি টেলিভিশনে উপস্থাপনা করি, এখনো পর্যন্ত করছি। আমার ডিমান্ড কিন্তু কমেনি। আমি যখন রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাই বা মাঠ থেকে কমেন্ট্রি করে বের হই তখন হাজার হাজার লোক সেলফি তোলার জন্য যে কি কাহিনী করে। তাহলে আমাকে কি দেখে না? আমার অনুষ্ঠান কি তারা উপভোগ করে না? আমি তো মেয়ে না। সারা পৃথিবীতে যারা কমেন্টেটর তাদের বেশিরভাগই কিন্তু পুরুষ। মেয়ের সংখ্যা হাতে গোনা। ছেলেরা কমেন্ট্রিতে বা উপস্থাপনায় আসবে তাদের যোগ্যতা দিয়ে। একই ভাবে নিজের যোগ্যতায় আসতে হবে মেয়েদের, গ্লামার হয়ে নয়।

সময় নিউজ: ক্যারিয়ারের চূড়ায় বসে সামনের দিনগুলো নিয়ে কি ভাবছেন?

চৌ. জাফরউল্লাহ শারাফাত:  পৃথিবীর এমন কোন দেশ নেই, এমন কোন মাঠ নেই...। কোনো কোনো মাঠে দশ বার করে ধারাভাষ্য দিয়ে এসেছি। যেমন সবশেষ নিউজিল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়ায় বিশ্বকাপে একটা মাঠে আমাকে বার বার যেতে হলো। আপনি যদি ভবিষ্যতের কথা বলেন, আমি আল্লাহর কাছে দশ টাকা চাইলাম, তিনি আমাকে বিলিয়ন বিলিয়ন দিয়ে দিলেন। এই জন্য আমি অনেক সুখী। আমার আর চাওয়া পাওয়া নেই। আমি এখন যতটুকু করি এটা দায়িত্ববোধ থেকে। তারই অংশ হিসেবে এই কমেন্টেটর হান্ট করছি। ভবিষ্যতে একটা খেলার চ্যানেল করার ইচ্ছা আছে।'

/এসএম