SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon মুক্তকথা

আপডেট- ১৩-০১-২০২১ ২২:৪২:১৪

টিকা বিক্রি নিষিদ্ধ হোক!

-116361182-f1288837-4be1-43

বাংলাদেশ সরকার ৬ হাজার ৭৮৬ কোটি ৫৯ লাখ টাকা দিয়ে ভ্যাকসিন কিনে জনগণকে বিনামূল্যে দিচ্ছে যার মধ্যে প্রায় সাড়ে ৬ হাজার কোটি টাকা দিচ্ছে বিশ্ব ব্যাংক এবং এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক (এআইআইবি)। আমাদের মত গরীব রাষ্ট্রের জন্য এটি নিঃসন্দেহে ভাল উদ্যোগ।

সরকার সরাসরি সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে এই ভ্যাকসিন না কিনে তা কিনছে দেশের এক ঔষধ কোম্পানির কাছ থেকে। 

আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমের খবর অনুযায়ী ওই ভ্যাকসিনের মূল্য স্থানীয় বাজার অনুযায়ী ৪৭ শতাংশ বেশি। টিকা সরবরাহে অ্যাস্ট্রাজেনেকা যেখানে ঘোষণা দিয়েছে, অলাভজনক সেবা হিসেবে, সেখানে এমন ব্যবসায়িক মনোভাব কেন তৈরি হলো?

বিশ্বের যে কয়েকটি দেশ ভ্যাকসিন কিনছে জনগণের কাছে পৌঁছে দিচ্ছে, তারা সরাসরি ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারক কোম্পানির কাছ থেকে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। এমন কি ভারত নিজেও সরাসরি প্রস্তুতকারক কোম্পানির কাছ থেকে অ্যাস্ট্রাজেনিকার ভ্যাকসিন কিনছে।

তবে বাংলাদেশ কেন পিছিয়ে? জনগণের করের টাকায় কেন বেশি দামে ভ্যাকসিন কিনছে? অন্য কোন রাষ্ট্রের প্রয়োজন না হলেও আমাদেরই কেন মধ্যস্থকারী কোম্পানির প্রয়োজনই হলো? রাষ্ট্রের দূর্বলতা কোথায় ছিল? তিন হাজার কোটি টাকা কেন বেশি খরচ করতে হচ্ছে?

এই তিন হাজার কোটি টাকা দিয়ে, সেরাম ইনস্টিটিউটের মত প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশও করতে পারতো। দেশের বাহিরে থাকা শত শত গবেষক অন্যদেশে মেধা বিক্রি না করে, নিজ দেশের জন্য লাগাতে পারতো। 

বিষয়গুলো বুঝতে মহাজ্ঞানী হওয়ার প্রয়োজন নেই। বিষয়গুলো সরকার পরিষ্কার না করায় আমি ব্যতিত বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষ তা বুঝে ফেলছে।

আমি সেই বিষয়ে আলোচনা করছি না। রয়টার্স-এর খবর অনুযায়ী আগামী মাস থেকেই দেশের বাজারে বেসরকারিভাবেও করোনাভাইরাসের টিকা বিক্রি শুরু হবে, যা দেখার পর আমি খুবই আতংকিত। 

জনগণকে ফ্রি ভ্যাকসিন সরবরাহ করার ঘোষণা দেয়ার পরও কোভিডের ভ্যাকসিন বাজারে বিক্রি করার সাহস কী করে হয়? কারা এই ভ্যাকসিন কিনবে? ভ্যাকসিন যদি কেনা বেচাই করা হয়, তাহলে এই পৌনে সাত হাজার কোটি টাকা ভ্যাকসিন কেনার প্রয়োজন কেন?

সরকার যদি ভ্যাকসির বিনামূল্যে দেয়ার জন্যে আপনার জন্য বরাদ্ধ রাখে, আপনার কাছ থেকে ‘কর’ আদায় করে, তাহলে আপনি কেন বাজার থেকে ভ্যাকসিন কিনতে যাবেন?

ভ্যাকসিন বাজারে এলে হয়তো সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচি বিঘ্নিত হতে পারে। কোভিড-১৯ ঠেকানোর যে পরিকল্পনা ও লক্ষ্য নিয়ে সরকার এগিয়ে যাচ্ছে, তা দুমড়ে মুচড়ে যেতে পারে। একদল টিকা কেনার জন্য বাজারে দৌড়াবে, আর একদল টিকার জন্য হাহাকার করবে।

সরকারের উচিত হবে, টিকা বিক্রি নিষিদ্ধ করা। সংকটাপন্ন মানব জীবন নিয়ে সকল ধরনের ব্যবসা বন্ধ হোক। সবার জন্য টিকা নিশ্চিত করা। সরকারের এই ফাঁক ফোঁকর বন্ধ না হলে, যেকোনো ভাল উদ্যেগ ভেস্তে যেতে বাধ্য!

লেখক: ড. নাদিম মাহমুদ

জাপানের ওসাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রিসার্চ এসোসিয়েট