SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon খেলার সময়

আপডেট- ০১-১২-২০২০ ০২:৩১:২৩

‘স্ট্রাইকাররা সুযোগ নষ্ট করলে হবে না’

foot

কাতারের ক্লাবগুলোর বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচের ফলাফল মূখ্য নয়। বরং দল হিসেবে এখান থেকে বাংলাদেশ কতটা গুছিয়ে নিতে পেরেছে নিজেদেরকে, সেটি গুরুত্বপূর্ন। এমনটাই মত সাবেক ফুটবলারদের। কাতারের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাই ম্যাচে কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে গোলরক্ষক এবং ডিফেন্ডারদেরকে। তাই কাউন্টার অ্যাটাক থেকে পাওয়া সুযোগ স্ট্রাইকারদের কোনভাবেই নষ্ট করা যাবে না বলেও মত তাদের।

নেপালের বিপক্ষে সিরিজ জিতলেও, একটা অগোছালো দল নিয়ে কাতার যায় বাংলাদেশ। বিশ্বকাপ বাছাই ম্যাচের আগে দুই সপ্তাহের অনুশীলন সঙ্গে দুটো প্রস্তুতি ম্যাচকে সামনে রেখে পরিকল্পনা সাজায় টিম ম্যানেজমেন্ট। হাতে এখনও সময় আছে খানিকটা। তার আগেই নিজেদের গুছিয়ে নেয়ার চ্যালেঞ্জ।

কাতার এবং বাংলাদেশ, দু'দলের মধ্যে ব্যবধানটা বিস্তর। তার ওপর লিগ খেলে পুরোপুরি প্রস্তুত এশিয়ান চ্যাম্পিয়নদের বিপক্ষে খেলতে গেছে প্রায় দশ মাস ধরে খেলার বাইরে থাকা লাল-সবুজরা। তাই স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠে, এমন অবস্থায় প্রতিপক্ষের চ্যালেঞ্জ কতটা নিতে পারবে জেমি ডে বাহিনী?

সাবেক ফুটবলার আলফাজ আহমেদ বলেন, প্রস্তুতি ম্যাচগুলোতে মোটামুটি ভালোই ফাইট করেছে টিম। ২টা ম্যাচ খেলার কারণে টিমের কম্বিনেশান বাড়বে। আবহাওয়ার সঙ্গে মানিয়ে নেয়ার ব্যাপার আছে। সবমিলিয়ে প্রস্তুতিটা খারাপ হয়নি।

সাবেক ফুটবলার নিজাম মজুমদার বলেন, তারা যেহেতু বড় টিম তাই আক্রমন করতে আমাদের এন্ডে ওদেরকে আসতে হবে। ফলে আমাদের কাজ হবে ওদের চান্সগুলোকে ডেস্ট্রয় করা। 

লড়াইয়ের মঞ্চে উপরের সারির দলগুলোর বিপক্ষে বাংলাদেশের কৌশল থাকে কাউন্টার অ্যাটাক। তবে তা মাঝে মধ্যেই ব্যর্থ হয় ফরোয়ার্ডদের সুযোগ নষ্টের মধ্য দিয়ে। যা এবার ভয়ঙ্কর ফল নিয়ে আসতে পারে বলে মত সাবেকদের।

আলফাজ আহমেদ বলেন, প্রতি খেলায় আমরা চান্স পাই, মিস হয়। এটা অভিজ্ঞতার ব্যাপার, কনফিডেন্সের ব্যাপার। যাই হোক, এখন অভিজ্ঞতা এসেছে। সুতরাং স্ট্রাইকাররা ভালো খেলবে বলে মনে করি। 

নিজাম মজুমদার বলেন, আগে আমরা একটা মার্জিনের কথা ভাবতাম। কিন্তু এখন আমাদেরকে জয়ের কথা ভাবতে হবে। সে হিসেবে প্রস্তুতি নিতে হবে।

আগামী চার ডিসেম্বর কাতারের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের অ্যাওয়ে ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ।