SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon খেলার সময়

আপডেট- ০১-১২-২০২০ ০১:২৩:৩৭

মাহমুদউল্লাহ'র কাছে হারলেন মুশফিক

dhaka

হারের বলয়ে ভাঙ্গতে পারলো না বেক্সিমকো ঢাকা। বাজে ফিল্ডিং আর ব্যাটিং ব্যর্থতায় টানা তিন ম্যাচ হারলো মুশফিকুর রহিমের দল। টস হেরে আগে ব্যাট করে, ৮ উইকেটে ১৪৬ রান করে জেমকন খুলনা। জবাবে ঢাকা অলআউট হয় ১০৯ রানে। মাহমুদউল্লাহর দল জয় পায় ৩৭ রানে।

দলীয় ৮ রানে প্রথম , ৩২ রানে আরও একবার। দুই বার জীবন পাওয়া খুলনা অধিনায়কের ইনিংসটাই ব্যবধান গড়ে দেয় দু'দলের। ইনিংসের শেষ ওভারে আউট হবার আগে মাহমুদউল্লাহ করেন ইনিংস সর্বোচ্চ ৪৫ রান।

এর আগে মিরপুরে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা খুলনার টপ অর্ডার হয় ব্যর্থ। বিজয়-সাকিবের ওপেনিং জুটি থেকে এসেছে ১৩ রান। ভালো শুরু করেও ইনিংস বড় করতে পারেন নি সাকিব। টানা চতুর্থ ম্যাচে ব্যর্থ হয়েছেন ব্যাট হাতে। ৯ বলে ১১ রান করে আউট হন সাকিব।

৩০ রানে ৩ উইকেট হারানো দলকে টেনে তোলার সংগ্রামে অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ সঙ্গী হিসেবে পান ইমরুল কায়েসকে। এ দু'জনের ৪র্থ উইকেটে আসে ৫৬ রান।

ইমরুলের ব্যাট থেকে আসে ২৯ রান। দলীয় ৮৬ রানে আউট হবার পর, তখনো লড়াইয়ের পুঁজি তোলা থেকে অনেক দূরে খুলনা। তবে পাওয়ার প্লে'তে পাওয়ার ক্রিকেট খেলতে ব্যর্থ হলেও, স্লগ ওভারে আরিফুল-শুভাগত'রা জ্বলে ওঠেন দলের হয়ে।

আরিফুলের ১৯ আর শুভাগত'র ৫ বলের ১৫ রানে, লড়াইয়ের স্কোর তোলে খুলনা।

ঢাকার ইনিংসের শুরুটা হয়েছে খুলনার মতই। টপ অর্ডার এদিনও ব্যর্থ। দলীয় ১৪ রানের মধ্যেই তানজিদ-নাঈম শেখ ও রবিউলকে ফিরিয়ে দেন শুভাগত-সাকিবরা।

অধিনায়ক মুশফিকের হাতে দলের ব্যাটন। কোচের অগাধ আস্থা পাওয়া মুশফিক চেষ্টা করেছেন দলকে টেনে তুলতে। ৪র্থ উইকেটে ইয়াসির রাব্বির সঙ্গে তার জুটিটা জমেই গিয়েছিলো।

তবে সময় মতো ব্রেক থ্রু এনে দেন হাসান মাহমুদ। রাব্বি ২১ রানে আউট হবার পর, আস্কিং রান রেটের সঙ্গে পাল্লা দিতে ব্যাট করতে গিয়ে উইকেট বিলিয়ে দেন মুশফিকও।

ঢাকার টেল এন্ডাররাও কিছু করতে পারেনি। ৩১ রানে তারা শেষ ৫ উইকেট হারিয়ে, অলআউট হয় ১০৯ রানে। খুলনার পয়েন্ট টেবিলে এগিয়ে যাওয়ার স্বস্তি আর ঢাকা মাঠে ছাড়ে টানা তিন ম্যাচ হারের গ্লানি নিয়ে।