SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon বিনোদনের সময়

আপডেট- ২৯-১১-২০২০ ১৬:৫৬:২৬

বিয়ে বিচ্ছেদের কারণ জানালেন ফারিয়া

faria

২০১৫ সালে ফেসবুকে ফারিয়া-অপুর পরিচয়। সেখান থেকে বন্ধুত্ব ও প্রেম। তিন বছর পর ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে তারা আংটিবদল করেন। গত বছরের ১ ফেব্রুয়ারি ধুমধাম করে বিয়ে হয় অভিনেত্রী শবনম ফারিয়া ও হারুন অর রশীদ অপুর। সেই হিসাবে তাদের সম্পর্কের বয়স পাঁচ বছর। বিভিন্ন টানাপোড়েনের পর অবশেষে গত ২৭ নভেম্বর বিবাহবিচ্ছেদ হয় তাদের। 

এ নিয়ে ফেসবুকে সরব শবনম ফারিয়া। বিচ্ছেদের কথা খোলাসা করেই জানিয়েছেন ফেসবুকে। এরপর মানুষের কমেন্ট নিয়ে ক্ষুব্ধ প্রকাশ করেছেন তিনি। জানিয়েছেন বিবাহ বিচ্ছেদের কারণ। 

বিবাহ বিচ্ছেদের কারণ জানতে চাইলে রোববার একটি গণমাধ্যমকে ফারিয়া বলেন, ‘সমস্যা যতটা না আমাদের দুজনের, তার চেয়ে বেশি আমাদের দুই পরিবারের।’

তিনি বলেন, ‘আমার বাবা নেই, মাকে নিয়ে আমার পরিবার। তার ওপর আমি বিনোদন অঙ্গনে কাজ করি। আর দশজন মেয়ের বিবাহবিচ্ছেদ আর আমার বিবাহবিচ্ছেদ একেবারে ভিন্ন। আমি একটা মেয়ে, আমাদের সমাজ মেয়েদের দোষটাই আগে দেখবে জানি। সে কারণে অনেকভাবে চেষ্টা করেছি, যাতে সংসারটা টেকে। কিন্তু কোনোভাবেই সেটা সম্ভব হয়নি।’

এছাড়া শনিবার আরেকটি গণমাধ্যমে ফারিয়া বলেন, ‘আমার মা সব সময় একটা কথা বলে, ‘আল্লাহর হুকুম ছাড়া একটা গাছের পাতাও নড়ে না, আমরা শুধু চেষ্টা করতে পারি!’ ঠিক সেভাবেই আমি আর অপু অনেকদিন ধরেই চেষ্টা করেছি একসাথে থাকতে! কিন্তু বিষয়টা একটা পর্যায়ে খুব কঠিন হয়ে যায়। আমরা এ বছরের শুরু থেকেই সিদ্ধান্তে আসি আর একসাথে থেকে কষ্টে থাকতে চাই না। তাই বৈবাহিক জীবনের অবসান ঘটিয়ে আবারও ৫ বছরের পুরনো বন্ধুত্বে ফিরে গিয়েছি।’

এদিকে আজ রোববার(২৯ নভেম্বর) সকালে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে বিরক্তি প্রকাশ করে আরও একটি পোস্ট দেন ফারিয়া। 

তিনি লেখেন, ‘তার মানে কি দাঁড়াল, মানুষ ব্লেইম গেইম, গালিগালাজ, মানুষকে ছোট করা পছন্দ করে! বিচ্ছেদ কেন সুন্দর হবে!!! কেন বলবে আমরা বিচ্ছেদের পরও বন্ধু থাকবে!!!

যেই মানুষটা গত ৫ বছর ধরে আমার জীবনের সঙ্গে প্রত্যক্ষ/পরোক্ষভাবে জড়িয়ে ছিল, এত এত স্মৃতি যা চাইলেই মোছা যাবে না তাকে কীভাবে ছোট করি?

অবশ্যই মানুষটার সঙ্গে আমার যথেষ্ট কারণ না থাকলে বিচ্ছেদের মতো সিদ্ধান্তে আসতাম না, কাউকে অসম্মান করে যেমন কেউ বড় হতে পারে না, তেমনি আমাদের কাছের সবাই ও পরিবার জানে কেন এই সিদ্ধান্তে আসা! তার বাইরে কাউকে কোনও ধরনের এক্সপেনেশন দেওয়ার কোনও দরকারই নেই!

Infact আমরা চাইও নাই কাউকে জানাতে, কিন্তু ভুয়া “একি করলেন শবনম ফারিয়া” নিউজ না দেখার জন্য আমারা জানাতে বাধ্য হই!

সুতরাং প্লিজ মাথায় নেন, শেষটাও সুন্দর হতে পারে, শেষটাও সম্মান দিয়ে, ভালোবাসার সঙ্গে শেষ হতে পারে! আমার কষ্ট/আমার অভিমান সব আমার কাছেই থাক!

এবং মনে রাখবেন, কাউকে ছোট করা আল্লাহ কখনোই পছন্দ করেন না!’

প্রসঙ্গত, গত বছর ১ ফেব্রুয়ারি জমকালো আয়োজনের মাধ্যমে বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হন অভিনেত্রী শবনম ফারিয়া ও বেসরকারি চাকরিজীবী হারুন অর রশীদ অপু। এদিন নৌকায় ভেসে ভেসে পরীর বেশে বিয়ের আসরে হাজির হন নববধূ শবনম ফারিয়া! অন্যদিকে একই সময়ে লেকের পাড় ধরে ঘোড়ার গাড়িতে চেপে আসেন বর হারুন অর রশীদ অপু। এমন নান্দনিক বিয়ের আয়োজন এর আগে কোনও শিল্পীকে ঘিরে হয়নি। মিরপুর ক্যান্টনমেন্ট এলাকার গভীরে, নয়নাভিরাম ‘জল-জোছনা’য় উন্মুক্ত আকাশের নিচে আয়োজিত হয়েছিল এই অনুষ্ঠান।