SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon প্রবাসে সময়

আপডেট- ২৫-০৮-২০২০ ০৪:২১:২২

ইতালির নতুন রাষ্ট্রদূত হচ্ছেন মো. শামীম আহসান

italy

ইতালির নতুন রাষ্ট্রদূত হচ্ছেন পেশাদার কূটনীতিক মো. শামীম আহসান। নির্ভরযোগ্য সূত্র হতে জানাগেছে, মো. শামীম আহসানের ইতালির রোমে রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োগের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে অতি সম্প্রতি।

পেশাদার কূটনীতিক মো. শামীম আহসান এনডিসি। বর্তমানে নাইজেরিয়ার রাজধানী আবুজাতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। চলতি গ্রীষ্মের শেষে রোমে রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদারের স্থলাভিষিক্ত হচ্ছেন তিনি। মো. শামীম আহসান ২০০৪ থেকে ২০০৮ রোমের বাংলাদেশ দূতাবাসে কাউন্সিলর/মিনিস্টার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন অত্যন্ত দক্ষতার সাথে। 

২০০৮ থেকে ২০১১ ওয়াশিংটনে বাংলাদেশ দূতাবাসের মিনিস্টার ও ডেপুটি চিফ অব মিশন ছিলেন মো. শামীম আহসান। 
নাইজেরিয়াতে  যাবার আগে ২০১৪ থেকে ২০১৮ সালে  নিউইয়র্কে কনসাল জেনারেল হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন এই জনপ্রিয় দক্ষ  কূটনৈতিক ।  

ক্লিন ইমেজের ডিপ্লোমেট মো. শামীম আহসান তাঁর বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারে কুয়েত ও কাতারের বাংলাদেশ মিশনে নিয়োজিত থাকার পাশাপাশি ঢাকাস্থ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একাধিক পদে সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেন। প্রখর মেধাবী এই মানুষটি তাঁর শিক্ষাজীবনে কোনদিন ফার্স্ট ক্লাস সেকেন্ড হননি। যশোর শিক্ষাবোর্ড থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় ফার্স্ট স্ট্যান্ড করার পর,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পলিটিক্যাল সায়েন্সে অনার্স ও মাস্টার্স উভয় ক্ষেত্রেই ফার্স্ট ক্লাস ফার্স্ট হবার গৌরবের ধারাবাহিকতার জন্য মহামান্য রাষ্ট্রপতির চ্যান্সেলর অ্যাওয়ার্ড লাভ করেন তিনি।

বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে যেসব বিদেশি নাগরিক ও সংগঠনের অসামান্য অবদান ছিলো তাঁদের নিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ঐতিহাসিক প্রকাশনা ছাড়াও রাষ্ট্রীয় বহু গুরুত্বপূর্ণ পাবলিকেশনে বিশেষ ভূমিকা রাখেন মো. শামীম আহসান। তুখোড় এই কূটনীতিকের লেখা দু'টি বই 'কূটনীতিকোষ' এবং 'আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি : সমস্যা ও সম্ভাবনা' বইগুলো নতুন কূটনৈতিকদের নিকট জ্ঞানকোষ হিসাবে সমাদ্রিত।

হঠাৎ করে সরকারের এই সিদ্বান্তে জানা যায়যে,করোনা কালিন সময়ে ইতালি দূতাবাসের ঢিলেঢালাভাবে কর্ককান্ড এবং অবৈধদের বৈধ করণে পাসপোর্ট ও সার্টিফিকেট হস্তান্তরে বিভিন্ন সমস্যা সঙ্গে নানাবিধ জটিলতায় জড়িয়ে পরে বাংলাদেশ রোম দূতাবাস ।দূতাবাসের সামনে হাতাহাতি,পাসপোর্ট দালালদের হয়রানিমূলক কর্মকাণ্ড সকল বিবেকবান মানুষকে তাড়িত করেছে। সরকারেও দৃষ্টি এড়ায়নি বিষয়গুলো।সরকারের সূএ হতে জানা যায় রাষ্ট্রদূতের পদক্ষেপে খুশী নয় সরকার । অনৈতিক কাজের সঙ্গে জড়িত অনেক কর্মকর্তার ভাগ্যেও এবার আসতে পারে সরকারের কঠিন সিদ্বান্ত।