SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon বাণিজ্য সময়

আপডেট- ০৯-০৪-২০২০ ১১:৫৪:০৩

করোনার প্রভাবে বাড়েনি ভোগ্যপণ্যের দাম, সরবরাহ স্বাভাবিক

bazar

করোনার প্রভাবে রোজা সামনে রেখে বাড়েনি ভোগ্যপণ্যের দাম। সব পণ্যের সরবরাহ স্বাভাবিক আছে। লক ডাউনের অনিশ্চয়তায় ক্রেতারা প্রয়োজনীয় পণ্য কিনছেন।

রোজার এখনো বাকি আছে প্রায় ১৫ দিন। অন্য বছরে এমন সময় জনমনে প্রস্তুতি শুরু হয়ে যায়। তার প্রভাব পড়ে বাজার পর্যন্ত। তবে এবারের অবস্থা ভিন্ন। চারদিকে করোনা আতঙ্ক। মানুষ তার প্রয়োজনে ভিড়ছেন বাজারে। নিত্যদিনের বাঁচার তাগিদে পণ্য কেনার মহড়া। তাই আলাদা করে অনেকে রোজার বাজার করছেন না। আবার অনেকে লক ডাউনের অনিশ্চয়তায় বেশ কিছুদিনের জন্য পণ্য কিনে নিরাপদে ঘরে থাকতে চান। আবার কেউ কেউ রোজা সামনে রেখে ছোলা, খেজুর, চিনিসহ কিছু প্রস্তুতি নিচ্ছেন। মিশ্র চিন্তার ক্রেতাদের স্বস্তি পণ্যের দাম স্বাভাবিক থাকায়।

একজন বলেন, রমজানের জন্য কিছু ক্রয়ের জন্য আসছি। তবে অবশ্যই সবার উদ্দেশ্য বলবো। আপনারা সবাই অবশ্যই ঘরে থাকবে।

আরেকজন বলেন, অনেকে আতঙ্কে আগেই পণ্যে কিনে ঘরে রেখেছে। তারা ভাবছে বাজারে পণ্যে পাওয়া যাবে। কিন্ত বাজারে অনেক পণ্যে রয়েছে, তাই অল্প অল্প করে কিনা ভালো।

চিনি-৬৫ থেকে ৭০,বোতলজাত সয়াবিন তেল- ১০৫ টাকা লিটার, ছোলা-৭৫ থেকে ৮০, মসুর ডাল প্রকারভেদে-১১০-১৩০ টাকা, পেঁয়াজ-৪০-৪৫ , খেজুর-১২০-১২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বিক্রেতারা বলছেন, দু একটি পণ্য ছাড়া সরবরাহ ঘাটতি নেই। অনেক ক্রেতা আগে করোনা আতঙ্কে অতিরিক্ত কিনলেও এখন ক্রেতাদের মধ্যে তেমন প্রবণতা কম।

এক বলেন, বেচা- বিক্রি নিয়ে কোন সমস্যা হচ্ছে না। তবে মানুষ প্রয়োজন মতোই ক্রয় করছে।

আরেকজন বলেন, তবে বাজারে কিছু মাল কম পাওয়া যায়। তাছাড়া নিত্যপ্রয়োজনীয় সব কিছুই আছে।

করোনার বিস্তার রোধে সন্ধ্যা ৭ টার মধ্যে সব স্বীকৃত বাজার ও দুপুর ২ টার মধ্যে মহল্লার দোকান বন্ধ করার নির্দেশনা রয়েছে।