SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon মহানগর সময়

আপডেট- ০৮-০৪-২০২০ ০৯:৩৯:০৬

করোনায় ‘যোদ্ধা’ বাহিনীর অসচেতনতায় বিপর্যয়ের আশঙ্কা

police-mask-8am

করোনা আক্রান্ত মৃতদেহ দাফন, ক্ষুধার্ত মানুষের বাসায় খাবার পৌঁছে দেয়া, লকডাউন মেনে চলতে সচেতনতা বাড়ানোসহ সঙ্কট মোকাবিলায় বীরের দায়িত্বে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী। তবে এতসব দায়িত্ব যাদের কাঁধে তাদেরই নেই পর্যাপ্ত সুরক্ষা সামগ্রী। এমন অনিরাপদ অবস্থা চলতে থাকলে বড় ধরনের বিপর্যয়ের আশঙ্কা প্রকাশ করছেন বিশেষজ্ঞরা।

শুধু বাংলাদেশই নয়, পুরো বিশ্বের আতঙ্ক এখন করোনা। এ ভাইরাসের বিস্তার রোধে, সামাজিক দূরত্ব রক্ষা, মাস্ক ও গ্লাভস ব্যবহারে যখন জোর সচেতনতা ঠিক তখন উল্টো চিত্র চোখে পড়ে নিরাপত্তাবাহিনীর ক্ষেত্রে। কোনো প্রকার সুরক্ষা সামগ্রী ছাড়াই দায়িত্ব পালন করতে দেখা যাচ্ছে তাদের অনেককেই।

কেউ আবার উদাসীন মাস্ক ব্যবহারে। কেউ আবার টেলিভিশন ক্যামেরা দেখে পকেটের মাস্ক তুলে নেন মুখে। তবে সব থেকে আতঙ্কের বিষয় হচ্ছে, সাধারণ মানুষের অনেকটা কাছাকাছি থেকে দায়িত্ব পালন করা অধিকাংশ পুলিশ সদস্যের হাতই ছিল ফাঁকা। এক্ষেত্রে মাঠ পর্যায়ে কর্মরতদের অভিযোগ পর্যাপ্ত সুরক্ষা সামগ্রী না পাওয়ার।

তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে পুলিশের অসচেতনতাও প্রবল। সামাজিক সুরক্ষা মেনে অন্তত তিন ফুট দূরে দাঁড়ানোর কথা থাকলেও অনেকেই দাড়াচ্ছেন একেবোরে গা ঘেঁষে দায়িত্ব পান করতে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, চিকিৎসকদের মতোই নিরাপত্তা বাহিনীর সুরক্ষা নিশ্চিত জরুরি। নইলে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভেঙে পড়ার পাশাপাশি কঠিন হয়ে পড়বে জরুরি পরিস্থিতি মোকাবিলা।

মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক মো. রিদওয়ান রহমান বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা বেশি ঝুঁকিতে। কে যে কখন তাকে আক্রান্ত করবে সেটা তারা জানতেও পারবে না।

বর্তমান বিশ্ব পরিস্থিতি এবং প্রতিদিন দেশে লাফিয়ে লাফিয়ে করোনা রোগী বাড়ায়  এটা স্পষ্ট যে সহসা মুক্তি মিলছে না এ সঙ্কট থেকে। এক্ষেত্রে সাধারণ মানুষকে নিরাপদ রাখতে যোদ্ধার ভূমিকায় অবতীর্ণ এ পুলিশ সদস্যেদের মাঠে থেকে লড়তে হবে শেষ অবধি। তাই তাদের ব্যাপারে কর্তৃপক্ষ আরো সচেতন হবে এমনটাই প্রত্যাশা।

লকডাউন মেনে নিজ নিজ ঘরে অবস্থান করতে নাগরিকদের প্রতি আহ্বান পুলিশের।