SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon খেলার সময়

আপডেট- ২৭-০৩-২০২০ ০১:০১:৩২

একটি ফুটবল ম্যাচ থেকেই ইতালি-স্পেনে ছড়িয়ে পড়ে করোনা!

italy

ইতালি ও স্পেন দ্রুত করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার জন্য দায়ী চ্যাম্পিয়ন্স লিগের আতালান্টা-ভ্যালেন্সিয়া ম্যাচ। কারণ ওই ম্যাচটি দেখতে একসঙ্গে ৪০ হাজার দর্শক মিলান ভ্রমণ করেছিলেন। যার ফলে গোটা দেশে ছড়িয়ে পড়েছে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসটি। এমনটাই দাবি করেছেন ইতালির চিকিৎসক লুকা লরিনি। এদিকে করোনাভাইরাসে কারণে ক্লাব থেকে কোন বেতন না নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন, জার্মানির সর্বোচ্চ বিভাগের ফুটবল দল ইউনিয়ন বার্লিনের খেলোয়াড়রা। আক্রান্তদের সাহায্যে এগিয়ে এসেছেন এনবিএ তারকা দানিলো ও রিকি।

করোনা প্রবল বিস্তারের কেন্দ্রবিন্দু যেন ইউরোপ। বিশেষ করে ইতালি আর স্পেনে দিনে দিনে যেন বাড়ছে এর প্রকোপ। করোনার এমন বিস্তারের জন্য উয়েফাকে এবার একহাত নিলেন ইতালির জিওভান্নি হাসপাতালের আইসিউ বিভাগের প্রধান লুকা লরিনি। তার মতে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের আতালান্টা-ভ্যালেন্সিয়া ম্যাচের জন্যই এই দুই দেশে এতোটা ছড়িয়েছে করোনাভাইরাস।

ম্যাচের দ্বিতীয় লেগটা হয়োছিলো ক্লোজ ডোর। কিন্তু ততক্ষণে সর্বনাশ যা হওয়ার তা হয়ে গিয়েছিলো বলে মনে করেন লুকা। আতালান্টার দর্শকরা ছাড়াও ওই ম্যাচটি দেখতে ২৫শ স্প্যানিশ ফ্যান মিলান ভ্রমণ করেছিলো।

জিওভান্নি হাসপাতালের আইসিউ-এর বিভাগীয় প্রধান লুকা লরিনি বলেন, দেখুন সেই ম্যাচটি দেখতে মাঠে ৪০ হাজার দর্শক ছিলো। আতালান্টা ৪টা গোল করেছে। প্রতিটা গোলেই দর্শকরা একসঙ্গে আনন্দ উপভোগ করেছে। একে অপরকে জড়িয়ে ধরেছে, চুমু খেয়েছে। ও ম্যাচের দুই দুইদিন পরেই ইতালিতে কমিউনিটি পর্যায়ে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। আমি বুঝি না ওই সময়ের এমন পরিস্থিতে উয়েফা কি করে এমন কাজ করতে পারলো।

করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে হু-হু করে। প্রাণঘাতী এই বিপর্যয়ের বিরুদ্ধে নিজেদের সর্বোচ্চটা দিয়ে লড়ছে মানুষ। গাইছে মানবতার গান।

এবার সেই তালিকায় বড় দৃষ্টান্ত স্থাপন করলো জার্মানির বুন্দেস লিগার দল ইউনিয়ন বার্লিন। বর্তমান পরিস্থিত উত্তরণ না হওয়া পর্যন্ত ক্লাব থেকে কোন বেতন না নেয়ার ঘোষণা দেন ইউনিয়নের ফুটবলাররা। যে অর্থ ব্যয় করা হবে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিদের সাহায্যার্থের তহবিলে। ফুটবলারদের এমন উদ্যোগের কথা নিশ্চিত করেছে বার্লিন ক্লাব কর্তৃপক্ষ।

বসে নেই এনবিএ'র খেলোয়াড়রাও। টাকার অংক প্রকাশ না করলেও বড় রকমের আর্থিক সাহায্য করেছেন ইতালির এনবিএ লিজেন্ড দানিলো গালিনারি ও রিকি রুবিও।