SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon মহানগর সময়

আপডেট- ০৯-০৩-২০২০ ১৭:৪৭:২৮

‘খালেদা জিয়া কিছু খেলেই বমি করছেন, দাঁড়াতে পারছেন না’

khaleda-zia

কারাবন্দী বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসার জন্য সরকারের কাছে সাময়িক মুক্তির আবেদন করেছে তার পরিবার।

স্বাস্থ্যের চরম অবনতি হওয়ায় গত শনিবার (০৭ মার্চ) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পরিবারের পক্ষে ভাই শামিম ইস্কান্দার মুক্তির আবেদনটি করে। সরকারের সিদ্ধান্ত জানানোর পরই তার চিকিৎসা দেশে না বিদেশে তা জানানো হবে।

এ বিষয়ে খালেদা জিয়ার মেজ বোন বেগম সেলিমা ইসলামের সঙ্গে কথা হয় সময় সংবাদের প্রতিবেদক আহমেদ সালেহীনের। 

সময় সংবাদ: আপনারা কি গত শনিবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে বেগম জিয়ার মুক্তি চেয়ে আবেদন করেছেন?

বেগম সেলিমা ইসলাম: হ্যাঁ, বেগম জিয়ার উন্নত চিকিৎসার জন্যই তার সাময়িক মুক্তি চেয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে লিখিত আবেদন করা হয়েছে। আমার ছোটভাই শামীম ইস্কান্দার আবেদনটি করেছে গত পরশু, শনিবার।

সময় সংবাদ: দল থেকে বলা হচ্ছে, এ বিষয়ে তারা অবগত নয়!

বেগম সেলিমা ইসলাম: এটা তো দল থেকে আবেদন করা হয়নি, পারিবারিকভাবে করা হয়েছে। 

সময় সংবাদ: আদালতে বারবার জামিন খারিজ হয়েছে বলেই কি আপনারা পারিবারিকভাবে আবেদন করেছেন?

বেগম সেলিমা ইসলাম: হ্যাঁ, আদালতে বারবার ফেইল হচ্ছি। কিন্তু বেগম জিয়ার শারীরিক অবস্থা এতটাই খারাপ যে তাকে যদি এখনই উন্নত চিকিৎসা না দেয়া হয়, তাহলে তিনি কতদিন লাস্টিং (জীবিত থাকবেন) করবেন এটা ঠিক বলা যাচ্ছে না। তাঁর দুটি হাত বেঁকে গেছে, কিছু খেলেই বমি করছেন, দাঁড়াতে পারছেন না। এ অবস্থায় তিনি কিভাবে সারভাইভ করবেন বলা যাচ্ছে না। তাই আমরা আবেদন করেছি।

সময় সংবাদ: যদি তিনি মুক্তি পান তাহলে দেশের বিশেষায়িত কোনো হাসপাতালে চিকিৎসা দিবেন, নাকি বিদেশ নিয়ে যাবেন?

বেগম সেলিমা ইসলাম: এখনও কোন সিদ্ধান্ত হয়নি, মুক্তি পেলে সে বিষয়ে জানতে পারবেন। 

সময় সংবাদ: পারিবারিকভাবে সবার সম্মতি আছে কিনা?

বেগম সেলিমা ইসলাম: সবার সম্মতিতেই আবেদন করা হয়েছে। আমরা সম্মতি দিয়েছি।

সময় সংবাদ: মন্ত্রণালয় থেকে কোনো যোগাযোগ করা হয়েছে কিনা?

বেগম সেলিমা ইসলাম: এখনও কোনো ম্যাসেজ আমরা পাইনি, তাদের উত্তরের অপেক্ষায় আছি, তারপর আমরা যোগাযোগ করবো।

সময় সংবাদ: আবেদনের বিষয়ে দলের কোনো মতামত নেয়া হয়েছে কিনা? 

বেগম সেলিমা ইসলাম: এটা পারিবারের সিদ্ধান্ত, রাজনৈতিক নেতাদের তো হাসপাতালে ঢুকতেই দেয়া হয় না, তারা তো বেগম জিয়ার অবস্থা জানতেই পারছেন না, সেক্ষেত্রে আমরা দেখা করছি, যা অবস্থা দেখছি তা বলছি দলের কাছে, তারা সেভাবেই ব্যবস্থা নিচ্ছেন।