SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon আন্তর্জাতিক সময়

আপডেট- ২৭-০২-২০২০ ১৯:৪১:১৬

পাকিস্তানের পঙ্গপাল ঠেকাবে চীনের হাঁস

chin-duck-pakistan

পঙ্গপালের আক্রমণে জেরবার পাকিস্তানের কৃষকরা। একই অবস্থা ভারতের পাঞ্জাবেও। পরিস্থিতি এমনই ঠেকেছে যে শুধুমাত্র পঙ্গপাল ঠেকাতে ভারত পাকিস্তান একসঙ্গে কাজ করতে রাজী হয়েছে। এদিকে পাকিস্তানের এমন সঙ্গীন অবস্থা বিবেচনা করে এগিয়ে এসেছে দেশটির বন্ধু রাষ্ট্র চীন। 

পাকিস্তানে পঙ্গপালের আক্রমণ ঠেকাতে এক লাখ পাতিহাঁসের শক্তিশালী বাহিনী পাঠানোর পরিকল্পনা করেছে চীন। বিবিসি জানায়, কীটপতঙ্গ এবং পঙ্গপালভোজী এ সব পাতিহাঁস চীনের পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ জেইজিয়াং থেকে পাকিস্তানে পাঠানো হবে। 

পঙ্গপাল নিয়ন্ত্রণে পথ খুঁজে বের করার জন্য এর আগে চীনা বিশেষজ্ঞদের একটি দলকে পাকিস্তানে পাঠানো হয়েছিল। উত্তরপশ্চিমাঞ্চলীয় সিনজিয়াং অঞ্চলে ২০ বছর আগে পাকিস্তানের অনুরূপ পঙ্গপালের মুখে হাঁস বাহিনী ব্যবহার করে পরিস্থিতি সামাল দিয়েছিল চীন। এ জাতীয় হাঁসের খাদ্য তালিকায় কীটপতঙ্গসহ পঙ্গপাল রয়েছে।

ঝিজিয়াং একাডেমি অব এগ্রিকালচারাল সাইনের প্রধান বৈজ্ঞানিক লু লিঝি হাঁসকে প্রাকৃতিক সেনাবাহিনী হিসেবে অভিহিত করেছেন। তিনি জানান, হাঁস বাহিনী ব্যবহারে দুই ধরণের উপকার পাওয়া যাবে বলে জানা গেছে। এতে কীটনাশকের তুলনায় একদিকে খরচ কম পড়বে অন্য দিকে পরিবেশের কোনও ক্ষতি হবে না। এ ছাড়া, মুরগির তুলনায় হাঁসরা দল বেঁধে থাকতে পছন্দ করে বলে তাদের নিয়ন্ত্রণ করাও সহজ হবে।

মুরগির তুলনায় হাঁসের পঙ্গপাল খাওয়ার পরিমাণও অনেক বেশি। দিনে একটি মুরগি ৭০টির বেশি পঙ্গপাল খেতে পারে না। কিন্তু হাঁস সেখানে গোগ্রাসে ২০০টি পঙ্গপাল গলধারণ করতে পারে। অর্থাৎ মুরগির তুলনায় দিনে প্রায় তিনগুণ বেশি পঙ্গপাল খেতে পারে একটি হাঁস। 

গত বছর থেকে পঙ্গপালের হামলার শিকার হয়েছে পাকিস্তান। ফলে বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে পাকিস্তানের অন্যতম অর্থকরী ফসল তুলা । এ বারে পাকিস্তানে গমের জন্য হুমকি হয়ে দেখা দিয়েছে এই পঙ্গপালের ঝাঁক।