SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon আন্তর্জাতিক সময়

আপডেট- ২২-০২-২০২০ ১৭:১৫:৪৭

ইদলিবে ‘রক্তগঙ্গা’ বয়ে যাওয়ার আশঙ্কা জাতিসংঘের

syria-idlib

সিরিয়ার ইদলিবে রুশ সমর্থিত আসাদ বাহিনী এবং তুর্কি সেনাদের চলমান উত্তেজনা বন্ধ না হলে, ঐ অঞ্চলে ‘রক্তগঙ্গা’ বয়ে যাবে বলে সতর্ক করেছে জাতিসংঘ। উভয়পক্ষের পাল্টাপাল্টি হামলায় ১০ লাখ বেসামরিক নাগরিক আটকা পড়ায়, গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে সংস্থাটি। এ অবস্থায় চলমান অস্থিরতা নিরসনের পাশাপাশি ইদলিবে যুদ্ধবিরতি বাস্তবায়নে দুই দেশ আলোচনা জোরদার করতে সম্মত হয়েছে বলে জানিয়েছে ক্রেমলিন।

সিরিয়ার ইদলিবে রুশ সমর্থিত আসাদ বাহিনী ও তুর্কি সেনাদের মুখোমুখি অবস্থানে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। গেলো কয়েকদিন ধরে বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত প্রদেশ ইদলিবে দু'দেশের সেনাদের পাল্টাপাল্টি হামলায় উভয়পক্ষে বহু হতাহতের ঘটনা ঘটছে।

এমন সংঘাতের কারণে ১০ লাখ বেসামরিক নাগরিক ইদলিবে আটকা পড়েছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। চলমান উত্তেজনা নিরসনে দ্রুত স্থায়ী সমাধানে না আসলে সেখানে 'রক্তগঙ্গা' বয়ে যাবে বলে সতর্ক করেছেন সংস্থাটির মহাসচিব। আন্তোনিও গুতেরস বলেন, 'সিরিয়ার উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয় সৃষ্টি হয়েছে। সবেশেষ সংঘাতের কবলে পড়ে বহু মানুষ বিপদে পড়েছেন। এদের অধিকাংশ নারী ও শিশু। মনে রাখতে হবে অস্ত্রের মাধ্যমে সিরিয়ার সংকট সামাধান হবে না। রাজনৈতিক ভাবেই নিরসন করতে হবে। সাধারণ মানুষের কথা ভেবে দ্রুত সংঘাত বন্ধের আহ্বান জানাচ্ছি।' 

জাতিসংঘের এমন সতর্কবার্তার মধ্যেই শুক্রবার তুর্কি সীমান্ত সংলগ্ন ইদলিবে নতুন করে ভারী কামান, ট্যাঙ্কসহ নানা সামরিক সরঞ্জাম পাঠিয়েছে আঙ্কারা। সেখানে অবস্থানরত নিজ দেশের সেনাদের সুরক্ষা দিতেই এমন পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। তবে, সংঘাতের মধ্যেও সঙ্কট নিরসনে শুক্রবার তুর্কি ও রুশ প্রেসিডেন্টের ফোনালাপ হয়েছে। হামলার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ জানিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। পরে এক বিবৃতিতে ক্রেমলিন জানায়, সংঘাত নিরসন এবং ইদলিবে যুদ্ধবিরতি বাস্তবায়নে আলোচনা জোরদার করতে দুই দেশ সম্মত হয়েছে।