SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon খেলার সময়

আপডেট- ১৯-০২-২০২০ ০০:১০:৫৮

আইসিসির নতুন প্রস্তাবে যা থাকছে

icc-new-

রাজস্ব বাড়ানোর লক্ষ্যে ২০২৩ থেকে ২০৩১ সাল পর্যন্ত ওয়ানডে ও টি-২০'র নতুন ৪টি টুর্নামেন্ট করার প্রস্তাব দিয়েছে আইসিসি। চ্যাম্পিয়ন্স কাপ নামে ২০২৪ ও ২০২৮ সালে টি-২০ আসর আয়োজন করতে চায় বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা। একই নামে ওয়ানডে ফরম্যাটে ২০২৫ ও ২০২৯ সালে টুর্নামেন্ট আয়োজনের পরিকল্পনা আইসিসির। যদিও ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক ব্যস্ত সূচির কারণে অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড ও ভারত এরই মধ্যে আইসিসির এই প্রস্তাবে দ্বিমত পোষন করেছে।

ক্রিকেটের ব্যপ্তি বাড়ছে দিন দিন। গেলো ক'বছরে ক্রিকেটকে বিশ্বের প্রতিটি অঞ্চলে জনপ্রিয় করতে বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে আইসিসি। ২০২৮ অলিম্পিকে ক্রিকেটকে অন্তর্ভুক্ত করতে চায় এমসিসি। সে কারণে ২০১৭ সালে ৫৫টি দেশকে দেয়া হয় সহযোগী সদস্যপদ। ১২টি পূর্ণ সদস্যসহ বর্তমানে আইসিসি'র মোট সদস্য সংখ্যা ১০৪।

সদস্য বাড়ায়, আইসিসিও আয়ের নতুন উপায় খুঁজছে। আর সে কারণেই তারা ভাবছে ওয়ানডে-টি-২০ বিশ্বকাপের বাইরে নতুন কিছু টুর্নামেন্ট আয়োজনের। এখন থেকে প্রতি বছর একটি করে বৈশ্বিক ইভেন্ট আয়োজন করতে চায় আইসিসি। সে হিসেবে গেলো অক্টোবরে তারা প্রস্তাব করে ওয়ানডে ও টি-২০'র দুটি করে আসর, যার নাম চাম্পিয়ন্স কাপ।

এরই মধ্যে ২০২৩ - ২০৩১ সাল পর্যন্ত সম্প্রচার চক্রের একটা রুপরেখাও দিয়েছে আইসিসি। ২০২৫ থেকে ২০৩১ পর্যন্ত দু'বছর পর পর আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল ছাড়াও, র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ ১০ দল নিয়ে ২০২৪ সালে শুরু হবে চ্যাম্পিয়ন্স কাপ। যার দ্বিতীয় আসর অনুষ্ঠিত হবে ২০২৮ সালে। গত বছরের ওয়ানডে বিশ্বকাপের মতই ম্যাচ সংখ্যা হবে ৪৮টি। তবে ওয়ানডে টুর্নামেন্টে পরিধি হবে ছোট। ৬ দল নিয়ে ২০২৫ ও ২০২৯ সালে অনুষ্ঠিত হবে দুটি সংস্করণ, যেখানে প্রতি আসরে ম্যাচ থাকবে ১৬টি।

নারীদের নিয়েও আছে পরিকল্পনা। ২০২৩ সালে নতুন এই চক্র শুরুই হবে নারীদের ওয়ানডে চ্যাম্পিয়ন্স কাপ দিয়ে। ২০২৭ সালে হবে দ্বিতীয় আসর। আর ছেলেদের সাথে মিল রেখে ২০২৪ ও ২০২৮ সালে অনুষ্ঠিত হবে টি-২০ চ্যাম্পিয়ন্স কাপ।

তবে আছে ভিন্নমত। ব্যস্তসূচির কারণে ঘরোয়া টি-২০ ও দ্বিপাক্ষিক সিরিজের বাইরে খেলার জন্য নতুন সময় বের করাই কঠিন ভারত, অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডের মত দেশগুলোর জন্য। এবছর ইংল্যান্ডে শুরু হচ্ছে ১০০ বলের নতুন টুর্নামেন্ট। তাই কিভাবে আইসিসি'র নতুন এই টুর্নামেন্টগুলোর জন্য সময় বের করবে দলগুলো এ নিয়েও হচ্ছে আলোচনা।

তবে আইসিসিও একটা টোপ দিয়ে রেখেছে। আয়োজক হতে ইচ্ছুক দেশগুলোকে আগামী ১৫ মার্চের মধ্যে আবেদন করতে হবে। যেখানে একসঙ্গে দুটি করে বিশ্বকাপ ও দুটি চ্যাম্পিয়ন্স কাপ আয়োজনের সুযোগ পাবে একটি দেশ। যেখানে টিকিট-ক্যাটারিং ও অতিথিসেবা থেকে প্রাপ্ত অর্থের পুরোটাই থাকবে উক্ত বোর্ডের পকেটে।