SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon মহানগর সময়

আপডেট- ২৬-০১-২০২০ ২০:৪৫:৩৩

পুলিশ হয়রানি করলেও ৯৯৯-এ জানাতে বললেন আইজিপি

pic-2

কোনো পুলিশ সদস্য অযথা কাউকে হয়রানি করলে ৯৯৯-এ ফোন দিয়ে অভিযোগ দিতে বলেছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী।

আইজিপি বলেন, আমি এটি মনিটরিং করি। কোনো পুলিশ সদস্যও যদি কাউকে হয়রানি করে তাহলে অভিযোগ দেবেন। আমি ব্যবস্থা নেব।

রোববার (২৬ জানুয়ারি) বিকেল ৫টায় সিলেট মহানগর ও জেলা পুলিশের বার্ষিক পুলিশ সমাবেশ ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, গত এক বছরে পুলিশের জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বরে দুই কোটি কল করেছেন সেবাপ্রত্যাশীরা। এর মধ্যে ৫০ লাখ কলের সেবা দেয়া হয়েছে। এ সেবা আরও প্রসারের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। 

আইজিপি আরও বলেন, মুজিববর্ষে দেশের ৭০০টি থানায় চারটি করে হেল্প ডেস্ক স্থাপন করা হবে। দেশের সব থানায় নতুন গাড়ি দেয়া হবে। পুলিশের জীবনমান উন্নয়নে ব্যাপক উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ব্যারাকের উন্নয়ন করা হচ্ছে।

আইজিপি আরও বলেন, আমরা জনতার পুলিশ হতে চাই। হতে চাই মানবিক। তাই সকল পুলিশ সদস্যকে জনবান্ধব হয়ে কাজ করতে হবে। যাতে উন্নত দেশের পুলিশের চেয়ে আমরা আরও এগিয়ে যেতে পারি। উন্নত দেশের মানুষ বলতে পারে ‘উন্নত বাংলাদেশের-উন্নত পুলিশ’।

এ সময় সাংবাদিকদের কাছে সিলেটের সকল থানা পরিবর্তন হয়েছে কী না জানতে চান আইজিপি জাবেদ পাটোয়ারি। তিনি বলেন, শুধু পুলিশের আচরণগত দিক বদলালে হবে না। সকল থানার পরিবেশ বদলাতে হবে। প্রত্যেকটি থানাকে সেবামূলক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে হবে। মানুষ থানায় গেলে রিসিভ করে নিতে হবে। পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে কোনো ধরনের অভিযোগ সহ্য করা হবে না।

জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, পুলিশের নিয়োগ প্রক্রিয়ায় শতভাগ স্বচ্ছতা এসেছে। বিগত সময়ে ১০ হাজার পুলিশ সদস্য নিয়োগ করে আমরা প্রমাণ করেছি পুলিশ শতভাগ স্বচ্ছ। গার্মেন্টকর্মী ও দিনমজুরের সন্তানরা এখন অমাদের পরিবারের সদস্য। বিগত সময়ের তুলনায় বর্তমানে অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে। এখন জনসেবায় মনযোগী হতে হবে। মনে রাখতে হবে সেবাই আমাদের ধর্ম।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি কামরুল আহসান, সিলেট মহানগর পুলিশ কমিশনার গোলাম কিবরিয়া, সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম, জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন। 

এর আগে বিকেল তিনটায় সিলেট জেলা পুলিশ লাইনস মাঠে ক্রীড়া সালাম গ্রহণ করে বেলুন উড়িয়ে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন আইজিপি। পরে বিভিন্ন ইভেন্টে প্রতিযোগিতা উপভোগ করেন তিনি। শেষে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন পুলিশের এই সর্ব্বোচ্চ কর্মকর্তা।