SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon মহানগর সময়

আপডেট- ২৬-০১-২০২০ ১৪:৫৩:৪৭

নির্বাচন থেকে দূরে রাখতে ষড়যন্ত্র চলছে, অভিযোগ ইশরাকের

bnp-candid-election

প্রচারণার শেষ দিনগুলো পুরোপুরি কাজে লাগাতে ব্যস্ত সময় পার করছেন ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনের প্রার্থীরা। নির্বাচন থেকে দূরে রাখতে ষড়যন্ত্র চলছে বলে অভিযোগ বিএনপি প্রার্থীদের। 

তবে প্রচারণায় প্রভাব বিস্তারের অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিয়েছেন দক্ষিণে আওয়ামী লীগের প্রার্থী শেখ ফজলে নূর তাপস।

ঢাকার দুই সিটিতে নির্বাচনের বাকি আর মাত্র ৫ দিন। রোববার তাই সকাল থেকেই বিভিন্ন এলাকায় প্রচারণা, পথসভা ও জনসংযোগে ব্যস্ত সময় পার করেন প্রধান দুই দলের মেয়রপ্রার্থীরা।

রাজধানীর সবুজবাগ এলাকা থেকে প্রচারণা শুরু করেন ঢাকা দক্ষিণের আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী শেখ ফজলে নূর তাপস। এ সময় তিনি উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নগরবাসীকে নৌকায় ভোট দেয়ার আহ্বান জানান।

শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, তিনি যে সুযোগ সুবিধা পাচ্ছে প্রতিদ্বন্ধী প্রার্থী হিসেবে, আমিও তেমনি ভাবে কাজ করে চলেছি।

দক্ষিণে বিএনপির মেয়রপ্রার্থী ইশরাক হোসেন মতিঝিল এলাকায় পথসভার মধ্য দিয়ে তার নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন। নির্বাচন থেকে তার দলকে দূরে সরানোর ষড়যন্ত্র চলছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

বিএনপির মেয়রপ্রার্থী ইশরাক হোসেন বলেন, আমরা বলতে চাই, আগামী ১ ফেব্রুয়ারি জনগণ অবশ্যই ভোট কেন্দ্রে যাবেন। এবং ভোটের মাধ্যমেই জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠায় করব।

এদিন রাজধানীর একটি হোটেলে নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেন ঢাকা উত্তর সিটিতে আওয়ামী লীগের মেয়রপ্রার্থী আতিকুল ইসলাম। সবাই মিলে, সবার ঢাকা- স্লোগানে ঘোষিত ইশতেহারে নগরীর ডেঙ্গু মোকাবিলাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয়া হয়।

মেয়রপ্রার্থী আতিকুল ইসলাম বলেন, সংশ্লিষ্ট সব সংস্থাকে নিয়ে বছরব্যাপী মশা নিধনের কার্যক্রম বাস্তবায়ন করব। সবার জন্য নানা সুযোগ সুবিধা সম্পূর্ণ এলাকা ভিত্তিক দৃষ্টিনন্দন আধুনিক পার্ক ও খেলার মাঠ নির্মাণ করবো। পরিকল্পিত ভাবে বর্জ্য অপসারণের ব্যবস্থা করব। একই সঙ্গে আনিসুল ভাইয়ের কাজগুলোকে প্রাধান্য দিয়ে ঢাকার কাজগুলো সমাপ্ত করতে হবে।  

মহাখালীর ওয়ারলেস গেট এলাকা থেকে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন উত্তরে বিএনপির প্রার্থী তাবিথ আউয়াল। সোমবার ইশতেহার ঘোষণা করবেন বলে জানান তিনি।

বিএনপির প্রার্থী তাবিথ আউয়াল বলেন, আপনারা নিজেদের ভোট নিজেরা দেবেন। সামনে ভয়-ভীতি আসতে পারে, তাই চিন্তা করবেন না। আমি যদি চুপ থাকি, তাহলে ভয়-ভীতি বাড়বে, তাই সময় এসেছে রুখে দাঁড়ানোর। এ রুখে দাঁড়ানো পূর্ণতা পাবে, আগামী নির্বাচনে ভোট দিয়ে আমাদের সঙ্গে যুক্ত থাকা। 

আগামী ১ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন।

পাশাপাশি যানজট নিরসন, পরিকল্পিত বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, বায়ু দূষণ রোধ, ঢাকা উত্তর সিটির প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে মাতৃদুগ্ধ কেন্দ্র নির্মাণ, সবার ঢাকাআপ চালু ও সম্মিলিত ওয়ার্ড কমপ্লেক্স নির্মাণের ঘোষণা এসেছে ইশতেহারে।