SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon আন্তর্জাতিক সময়

আপডেট- ২০-১১-২০১৯ ২১:৫৫:৪৬

লাইভে বাকবিতণ্ডতায় জড়ালেন বরিস-করবিন

বর-স-করব-ন

যুক্তরাজ্যের নির্বাচন সামনে রেখে প্রথমবারের মতো টেলিভিশন বিতর্কে অংশ নিয়ে ব্রেক্সিট ইস্যুতে তুমুল বাকবিতণ্ডায় জড়ালেন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ও বিরোধী দলীয় নেতা জেরেমি করবিন। 

চলমান জাতীয় সংকটের জন্য বিরোধী লেবার পার্টিকে দায়ী করেন জনসন। অন্যদিকে, ব্রেক্সিটের পাশাপাশি ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস ইস্যুতে জনসনের তীব্র সমালোচনা করেন করবিন।

১২ ডিসেম্বর সাধারণ নির্বাচন সামনে রেখে নির্বাচনী টেলিভিশন বিতর্কে অংশ নেয়ার আগে ম্যানচেস্টারে একটি বক্সিং জিমে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে এভাবেই ওয়ার্ম আপ করতে দেখা যায়।

বিরোধী দলীয় লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিনকে কোনো ওয়ার্ম আপে অংশ নিতে দেখা না গেলেও প্রথমবারের মতো টেলিভিশন বিতর্কে অংশ নিয়ে বরিস জনসনকে এক হাত নেন তিনি। ব্রেক্সিট বাস্তবায়নে ব্যর্থতার পাশাপাশি বরিসের বিরুদ্ধে ব্রিটেনের জাতীয় স্বাস্থ্য সেবা এন.এইচ.এস-কে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে বিক্রি করে দেয়ার অভিযোগ তুলেন করবিন।

বিরোধী লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন বলেন, আমাদের অবস্থান খুবই পরিষ্কার। ব্রেক্সিট বাস্তবায়নের জন্য তিন মাসের সমঝোতা, গণভোটের জন্য ছয় মাস। আর এভাবেই ব্রেক্সিট প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা সম্ভব।

করবিনের অভিযোগ অস্বীকার করে ব্রিটেনের অচলাবস্থার জন্য লেবার পার্টিকে পালটা দায়ী করেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। বলেন, বিরোধী লেবার পার্টি শুধু বিভাজনই তৈরি করেছে। ব্রেক্সিট নিয়ে ব্রিটেনে চলমান অস্থিরতা নিরসনের অঙ্গীকার করেন বরিস জনসন।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নের বন্ধুদেশগুলোর সঙ্গে মুক্তবাণিজ্য চুক্তির জন্য যথেষ্ট সময় আছে। শুল্ক ও কোটার জন্য আমরা ইতোমধ্যে একটি ঐকমত্যে পৌঁছেছি। তবে সব কিছুর আগে আমাদের প্রতিশ্রুত ব্রেক্সিট কার্যকর করতে আমরা অঙ্গীকারাবদ্ধ।

আইটিভিতে প্রচারিত তুমুল এই বাকবিতণ্ডায় কে জয়ী হয়েছেন তা পরিষ্কার নয় বলছেন বিশ্লেষকরা। তবে জয় পরাজয় ছাপিয়ে তাদের বক্তৃতার সময় মানুষ হাসার অপেক্ষা করছিল বলে জানান বিবিসির রাজনীতি বিষয়ক সম্পাদক লরা কুইন্সবার্গ।

জনসন-করবিনের বিতর্কে এসএনপি নেতা নিকোলা স্টারজন মুগ্ধ না হলেও জেরেমি করবিনকে বরিসের চেয়ে ভাল বক্তা আখ্যা দিয়েছেন ব্রেক্সিট পার্টির নেতা নাইজেল ফারাজ। তবে ভবিষ্যতে গণভোটের বিষয়ে করবিনের অবস্থান পরিষ্কার না করায় সমালোচনা করেন তিনি।