SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon আন্তর্জাতিক সময়

আপডেট- ১৮-১১-২০১৯ ২১:০২:৩৩

প্লাস্টিকের বোতল দিলে বাস ও ট্রেনের টিকেট ফ্রি!

প-ল-স-ট-ক-র-ব-তল-দ-ল-ব-স-ও-ট-র-ন-র-ট-ক-ট-ফ-র-

পরিচ্ছন্ন নগরী গড়তে ইতালিতে নেয়া হয়েছে ভিন্নধর্মী উদ্যোগ। প্লাস্টিকের বোতলের বিনিময়ে দেয়া হচ্ছে বাস ও ট্রেনের টিকেট। পাচ্ছেন রোম ঘোরার সুযোগ।

প্লাস্টিকের বোতলের বিনিময়ে বাস বা ট্রেনের টিকিট পাচ্ছেন যাত্রীরা। শুনতে অবাক লাগলেও এমনই একটি ভিন্নধর্মী উদ্যোগ নিয়েছে বর্জ্য সমস্যায় জর্জরিত ইতালি। অব্যবহৃত প্লাস্টিক বোতলের বিনিময়ে সুযোগ করে দিয়েছে পুরো রোম শহর ঘোরার।

একের পর এক রিসাইক্লিং মেশিনে দেয়া হচ্ছে প্লাস্টিকের খালি বোতল। ইতালির ইন সান জিয়োভান্নি রেলস্টেশনে প্লাস্টিকের বোতল ভর্তি ব্যাগ নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন যাত্রীরা। ‌'প্লাস্টিক ফেরত দিন, বিনামূল্যে বাস-ট্রেনে ভ্রমণ করুন'- দেশটির সরকারের ভিন্নধর্মী প্রকল্পের এই সুবিধা নিতেই এসেছেন তারা।

একটি বোতলের মূল্য ৫ সেন্ট, যা জমা হয় যাত্রীদের মেট্রো কার্ডে। একজন যাত্রী ৩০টি বোতল দিয়েই পেয়ে যাচ্ছেন একটি টিকিট। যেটা ব্যবহার করে তারা মেট্রোতে একবার অথবা বাসে ১ ঘণ্টা ৪০ মিনিট ভ্রমণ করতে পারবেন।

যাত্রীরা বলছেন, আমার মনে হয় যে কাউকে কোনো কিছু রিসাইক্লিংয়ের জন্য বাধ্য করার চেয়ে এভাবে সুকৌশলে কাজ করিয়ে নেয়া অনেক ভালো।

তারা বলছেন, অবশেষে রোমে প্লাস্টিকের বোতল রিসাইক্লিং করা হচ্ছে। যেখানে-সেখানে না ফেলে একটি নির্দিষ্ট জায়গায় জমা করা হচ্ছে। এতে করে এখানকার বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নিয়ে যে সমস্যা আছে, তার কিছুটা হলেও সমাধান হবে।

স্থানীয়রা বলছেন, এ ধরনের উদ্যোগের মধ্য দিয়ে নাগরিকদের অর্থ সাশ্রয় হলেও এটা কোনো দীর্ঘস্থায়ী সমাধান নয় বলে মনে করেন পরিবেশবিদরা।

রোমে বর্জ্য ব্যবস্থাপনার বিষয়ে কঠোর কোনো পদক্ষেপ না নেয়া হলে, ভবিষ্যতে আরও বড় বিপর্যয়ের সম্মুখীন হতে হবে বলেও মন্তব্য করেন পরিবেশবিদ স্টেফেনো সেয়াফেনি।

লেগামবিয়েন্তের সভাপতি স্টেফানো সেয়াফেনি বলেন, রোমের বর্তমান অবস্থা ভয়াবহ। বর্জ্য সংগ্রহে এখানে তেমন কোনো কার্যকরী ব্যবস্থা নেই। এই শহরে ৩০ লাখ লোকের বাস হলেও বর্জ্যকে পুনর্ব্যবহারের উপযোগী করে তোলার জন্য নির্মাণ করা হয়নি কোনো প্লান্ট।

ইতালির মতো চীন, ইন্দোনেশিয়াসহ অনেক দেশ, বর্জ্য বোতলের বিনিময়ে শুধু পরিবহন সেবাই নয় সিনেমা দেখারও সুযোগ করে দিচ্ছে। একইভাবে বর্জ্য সমস্যায় জড়িত সব দেশের এমন উদ্যোগ নেয়ার এখনই সময় বলে মত সংশ্লিষ্টদের।