SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon মহানগর সময়

আপডেট- ১৮-১১-২০১৯ ১৮:২৬:৪৫

‘দুদক মুদ্রাপাচার বিষয়ে বেশ কিছু ঘটনার তদন্তে যুক্ত হয়েছে’

untitled-6

পশ্চিমা একটি দেশ থেকে বিভিন্ন সময়ে বাংলাদেশে জঙ্গি অর্থায়ন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। রাজধানীর একটি হোটেলে মুদ্রাপাচার ও জঙ্গী অর্থায়ন প্রতিরোধে আয়োজিত এক সেমিনারে প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, এ ধরনের সমস্যা মোকাবিলায় সব দেশকে একসাথে কাজ করতে হবে। একই অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, দেশের অর্থনীতি ও স্থিতিশীলতার জন্য হুমকি মুদ্রাপাচার, দুর্নীতি ও জঙ্গীবাদ প্রতিরোধে প্রধানমন্ত্রীর জিরো টলারেন্স নীতি বাস্তবায়নে কাজ করছে সরকারের বিভিন্ন সংস্থা।

বাংলাদেশের মত উন্নয়নশীল দেশের অর্থনীতির জন্য মুদ্রাপাচার বড় মাথাব্যথার কারণ। এর সাথে নতুন করে যোগ হয়েছে সন্ত্রাসে অর্থায়ন। এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আন্তর্জাতিক কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের সাথে কাজ করে যাচ্ছে সরকারের বিভিন্ন সংস্থা। এরই অংশ হিসেবে মুদ্রাপাচার ও জঙ্গী অর্থায়ন প্রতিরোধে ২০১৯-২১ মেয়াদের জন্য জাতীয় কৌশলপত্র প্রণয়ন করা হয়েছে। হুন্ডি, আন্তর্জাতিক বাণিজ্যসহ বিভিন্ন পন্থায় মুদ্রাপাচাররোধ, পাচারের ঘটনার তদন্তের মান উন্নয়ন, প্রাতিষ্ঠানিক সুশাসনসহ ১১টি বিষয় সুনির্দিষ্ট করে তৈরি কৌশলপত্র থেকে কাঙ্খিত সুফল পাওয়া যাবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেন, দুদক মুদ্রাপাচার বিষয়ে বেশ কিছু ঘটনার তদন্তে যুক্ত হয়েছে। গত ৩ বছরে বিভিন্ন অভিযোগে ১৬৫ ব্যাংক হিসাবের লেনদেন স্থগিত করা হয়েছে। জব্দ করা হয়েছে স্থাবর সম্পদ, বিলাসবহুল ৫টি গাড়ি।

এনবিআর চেয়রাম্যান মোশাররফ হোসেন বলেন, নতুন নতুন পদ্ধতির মুদ্রাপাচার প্রতিরোধে বিভিন্ন সংস্থার সক্ষমতা আরো বাড়াতে হবে। রাজস্ব বোর্ডের গোয়েন্দা সংস্থা, পুলিশ, বিএফআইইউ, এসিসি একসাথে কাজ করছে।

সেমিনারে বাংলাদেশে জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়ক এবং যুক্তরাষ্ট্রের চার্জ দা অ্যাফেয়ার্স মুদ্রাপাচার ও জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের ভূমিকার প্রশংসা করেন।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, পশ্চিমা বিশ্বের একটি রাষ্ট্রের সাথে অব্যাহতভাবে বেশ কয়েক বছর ধরে ধর্মীয় মূল্যবোধের অপব্যবহার করে সে দেশ থেকে, প্রবাসীদের কাছে থেকে টাকা আদায় করে বাংলাদেশে জঙ্গিদের উস্কে দেয়ার জন্য সেই টাকাগুলো ব্যবহার করা হয়েছে। কিন্তু শত চেষ্টার পরেও আমরা সেই দেশকে অনেক সময় বোঝাতে ব্যর্থ হয়েছি।

সেমিনারে বলা হয় বাংলাদেশ থেকে বিদেশে পাচার হওয়া অর্থের ৮০ শতাংশ যায় আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের আড়ালে।