SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon মহানগর সময়

আপডেট- ১২-১১-২০১৯ ০৯:৪৫:২৮

রাঙ্গার বিচার চাইলো নূর হোসেনের পরিবার

noor-family-up1

স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে পুলিশের গুলিতে শহীদ নূর হোসেনকে নিয়ে কটূক্তি করায় জাতীয় পার্টির মহাসচিব রাঙ্গার বিচার চাইলো পরিবার। প্রতিবাদ জানিয়ে নূর হোসেনের পরিবারসহ সাধারণ মানুষ জানায়, রাঙ্গা ক্ষমা না চাওয়া পর্যন্ত অবস্থান কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়া হবে। একই দাবিতে রংপুরে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে মহানগর যুবলীগ।

জাতীয় পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, ‘নূর হোসেন একটা মাদকাসক্ত ছেলে। ইয়াবাখোর, ফেনসিডিলখোর ছেলে। তাকে নিয়ে গণতান্ত্রিক দুই দল নাচানাচি করে। নূর হোসেন দিবস পালন করে।’

রোববার বিকেলে বনানীতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে আলোচনা সভায় অংশ নিয়ে এভাবেই শহীদ নূর হোসেনকে নিয়ে কটূক্তি করেন তিনি। এ সময় এরশাদকে স্বৈরাচার বলার সমালোচনা করতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে স্বৈরাচার বলে আখ্যায়িত করেন আওয়ামী লীগ সরকারের গত মেয়াদে মন্ত্রিত্ব পাওয়া জাতীয় পার্টির এ মহাসচিব।

জাতীয় পার্টি মহাসচিবের আপত্তিকর মন্তব্যের প্রতিবাদে ফুঁসে ওঠে সাধারণ মানুষ। সোমবার বিকেলে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অবস্থান কর্মসূচিতে অংশ নেন শহীদ নূর হোসেনের পরিবারের সদস্যরা।

শহীদ নূর হোসেনের বড় ভাই আলী হোসেন বলেন, ‘রাঙ্গাকে বয়করট করা হোক। তার এ দেশে থাকার কোনো অধিকার নেই।’

নূর হোসেনের মা মরিয়ম বিবি বলেন, ‘যে ছেলেটা বুকে পিঠে লিখে দেশের জন্য রাজপথে নেমেছিল। প্রায় ৩০ বছর পরে কেন এত বড় কথা বললো?’

শহীদ নূর হোসেনের পরিবারের এ কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মশিউর রহমান রাঙ্গাকে জাতির কাছে ক্ষমা চাওয়ার দাবি জানায় মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

এছাড়া রংপুর প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেন যুবলীগের নেতাকর্মীরা। এ সময় মশিউর রহমান রাঙ্গা ক্ষমা না চাইলে কঠোর কর্মসূচির হুঁশিয়ারি দেন তারা।

১৯৮৭ সালের ১০ নভেম্বর এরশাদ বিরোধী আদোলনে বুকে পিঠে ‘স্বৈরাচার নিপাত যাক-গণতন্ত্র মুক্তিপাক’ লিখে রাজপথে নামেন নূর হোসেন। রাজপথেই পুলিশের গুলিতে নিহত হন তিনি।