SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon মহানগর সময়

আপডেট- ১০-১১-২০১৯ ১৯:৪৬:৪৪

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগ: রাত পোহালেই সম্মেলন

volanteer-league-conferrence

রাত পোহালেই স্বেচ্ছাসেবক লীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সম্মেলন। সম্মেলনকে ঘিরে স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা বিরাজ করছে। ঢাকা শহরের গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন স্থানে সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক প্রার্থীরা ব্যানার ফেস্টুন এবং পোস্টার টানিয়েছেন। দিন রাত যে যার মতো লবিং তদবীর করে যাচ্ছে। প্রতিদিনই ভিড় জমাচ্ছেন ধানমন্ডি আওয়ামী লীগের পার্টি অফিসে।

সম্মেলন উপলক্ষে আওয়ামী লীগের গুলিস্থান পার্টি অফিস এবং ধানমন্ডি পার্টি অফিসে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। তবে নানা কারণে যারা দুর্নাম কুড়িয়েছে, এমন নেতারা এবার বাদ পড়বেন বলেও মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

ছাত্র নেতাদের পুনর্বাসন কেন্দ্র হিসেবে বিবেচিত এ সংগঠনের সবশেষ সম্মেলন হয়েছিল ২০১২ সালের ১১ জুলাই। ১৯৯৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়া স্বেচ্ছাসেবক লীগে তৃতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১৬ নভেম্বর। কেন্দ্রীয় সম্মেলন এর আগেই ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে স্বেচ্ছাসেবক লীগে ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সম্মেলন । 

এই বিষয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ হাওলাদার সময় নিউজকে  বলেন,ঢাকা মহানগর দক্ষিন আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সম্মেলন আগামী ১১ নভেম্বর ইঞ্জিনিয়ার ইনস্টিটিউটে অনুষ্ঠিত হবে। ইতিমধ্যে সম্মেলনের সব প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। আমরা আশা করি অত্যন্ত সুষ্ঠুৃ, সুন্দর ও বর্ণিলভাবে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে ।

তিনি আরো বলেন আগামীকালের সম্মেলনের মাধ্যমে  ঢাকা মহানগ দক্ষিণের ৭৩টি ওয়ার্ড এবং ২৪ টি থানার স্বেচ্ছাসেবক লীগের  নেতাকর্মীদের প্রত্যাশা সংগঠনের  মধ্য থেকে আমরা  যারা সাবেক ছাত্রলীগের রয়েছি । এবং দীর্ঘদিন সংগঠনের মধ্যে থেকে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার জন্য কাজ করেছি । তাদের মধ্যে থেকেই ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হবে। তাহলে স্বেচ্ছাসেবক লীগ আরো বেশি শক্তিশালী হবে।  

এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সম্পাদক এবং দক্ষিণের সভাপতি প্রার্থী তারিক সাঈদ বলেন, বিএনপি জামাতের দুঃসাশনের সময়ে যারা ভুমিকা রেখেছেন এবং যাদের বিরুদ্ধে কোনো অনিয়মের অভিযোগ নেই, আশা করি এই সম্মেলনে যারা ক্লিন ইমেজের ত্যাগী এবং রাজপথে যাদের ভূমিকা রয়েছে এমন নেতৃত্ব আসবে।

তিনি আরো বলেন, যারা দলের দুঃসময়ে মাঠে ছিলেন, যারা ত্যাগী, যাদের গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে এমন নেতাদের মধ্য থেকে সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হলে একটি শক্তিশালী সংগঠন গড়া সম্ভব হবে । 

সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান ইরান সময় নিউজকে বলেন, এবারের সম্মেলনে দলের স্বচ্ছ ইমেজ, যাদের গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে এবং দীর্ঘ রাজনৈতিক ইতিহাস রয়েছে এমন ত্যাগী নেতাদের মধ্য থেকেই সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা। 

এছাড়াও সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য লড়বেন আরও প্রায় ডজন খানেক নেতা।