SomoyNews.TV

ভ্রমণ

আপডেট- ০৮-১১-২০১৯ ১৮:১৮:৪২

উত্তাল সাগর, ঝুঁকি নিয়েও সমুদ্রস্নানে পর্যটকরা

cox-tourist

ঘূর্ণিঝড় বুলবুল-এর প্রভাবে কক্সবাজারে উত্তাল সাগর। জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে ৩ থেকে ৫ ফুট উচ্চতায় প্রবাহিত হচ্ছে। তারপরও পর্যটকরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সমুদ্র স্নানে ব্যস্ত। তবে লাইফ গার্ড কর্মীরা সার্বক্ষণিক পর্যটকদের নিরাপত্তায় দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি এ অবস্থায় সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন।

এদিকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেতের কারণে সমুদ্র থেকে উপকূলে ফিরতে শুরু করেছে মাছ ধরার ট্রলারগুলো।

ঘূর্ণিঝড় বুলবুল ধেয়ে আসছে, এমন তথ্যে কক্সবাজারকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলেছে আবহাওয়া অফিস। এর প্রভাবে সাগরে জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে ৩ থেকে ৫ ফুট উচ্চতায় প্রবাহিত হচ্ছে। তাই কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের সবকটি পয়েন্টে টাঙানো হয়েছে লাল পতাকা।

তবে, লাল পতাকা এবং লাইফ গার্ড কর্মীদের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করেই উত্তাল সাগরে গোসল করছেন পর্যটকরা। কোনভাবেই মানছেন না ঘূর্ণিঝড় বুলবুল-এর সতর্কতা।

এক পর্যটক বলেন, আমরা যখন বন্ধ পাই, তখন ঘূর্ণিঝড় আমাদের কাছে মুখ্য বিষয় না, আমাদের আনন্দ পেতে হবে।

তবে নিয়ম নীতির মধ্যে থেকেই নিরাপত্তা বজায় রেখেই আনন্দ উপভোগ করা উচিৎ বলে মনে করেন আরেক পর্যটক।

এ অবস্থায় যে কোন দুর্ঘটনা এড়াতে পর্যটকদের সচেতন হওয়া প্রয়োজন বলে মনে করেন লাইফ গার্ড কর্মীরা।

সী-সেইভ লাইফ গার্ড-এর ইনচার্জ মোহাম্মদ চিরু বলেন, আমরা চেষ্টা করছি আমাদের সাধ্যের মধ্যে যারা আছেন তাদের নিরাপত্তা দেবার জন্য। আমাদের সাধ্যের বাইরে যারা চলে যাচ্ছেন তাদের সতর্ক করছি।

এদিকে, হুঁশিয়ারি সংকেতের কারণে সাগর থেকে কক্সবাজার উপকূলে ফিরছে মাছ ধরার ট্রলারগুলো। বিকেলের মধ্যেই সব ট্রলার ফিরে আসবে বলে আশা ট্রলার মালিকদের।

সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌ-রুটে বন্ধ রয়েছে পর্যটকবাহী ৩টি জাহাজ চলাচল। ফলে শুক্রবার সকালে সেন্টমার্টিনে যেতে পারেনি প্রায় দেড় হাজার পর্যটক।