SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon মহানগর সময়

আপডেট- ২০-০৪-২০১৫ ০৭:২৪:৩৬

রাবি ক্যাম্পাসে থানা বসানোর সিদ্ধান্ত, শিক্ষার্থীদের ক্ষোভ

ru-police-stn

সম্প্রতি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা বাড়াতে ক্যাম্পাসে মতিহার থানা স্থানান্তর করা হবে, এমন খবরে ক্ষুব্ধ শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।

তাদের মতে, যদি ক্যাম্পাসে থানা বসানো হয় তাহলে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় থাকবে না। পাশাপাশি সিন্ডিকেটে উত্থাপিত বিষয়টির ব্যাপারে আপত্তি জানিয়েছেন প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনের নেতারা। তবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বলছে, শিক্ষকরা না চাইলে কোন সিদ্ধান্ত নেয়া হবে না।

কখনো আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে নিজেদের শক্তির জানান দিতে, কখনো বা বিরোধী দলের ছাত্র সংগঠনগুলোর ওপর চড়াও হতে দেখা যায় ছাত্র সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীদের।

এ অবস্থায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে ক্যাম্পাসে মতিহার থানা বসানোর উদ্যোগ নিয়েছে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতরে থানা স্থাপন করা হলে ক্যাম্পাসে অপরাধ প্রবণতা বাড়ার পাশাপাশি নিজেদের স্বাধীনতা খর্ব হবে বলে মনে করনে শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীরা বলেন, 'এখানে পুলিশ থাকে এটাই মেনে নেয়াটা আমাদের জন্য অসম্ভব হয়ে যায়, সেখানে ক্যাম্পাসে থানা কেন থাকবে? এছাড়াও ক্যাম্পাসে থানা স্থাপিত হলে অপরাধ প্রবণতা বাড়তে পারে। বিশেষ করে সাধারণ ছাত্ররা কারণে অকারণে হয়রানির শিকার হতে পারে।'

আর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মতে, ক্যাম্পাস হলো মুক্ত বুদ্ধি চর্চার একটি স্থান। এখানে থানা স্থাপন করা হলে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় থাকবেনা। পাশাপাশি প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনরে নেতারা এর ঘোর বিরোধী।

রাবি গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ সহযোগী অধ্যাপক মুসতাক আহমেদ বলেন, 'বাইরে থেকে যখন অন্য আরেকটি সরকারি প্রশাসনের লোকজন আসা-যাওয়া করবে, তখন ক্যাম্পাসের ভেতরেই বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হবে।'

রাবি শাখা বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন সভাপতি ফারুক ইমন বলেন, 'বিশ্ববিদ্যালয় আসলে একটি জ্ঞানচর্চা কেন্দ্র, এটা কোনো অপরাধ কেন্দ্র না।  বিশ্ববিদ্যালয় একটি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান, ফলে এখানে যে পুলিশি পদচারণা- এটিই তো ঠিক না।'

অন্যদিকে, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বলছে, ছাত্র-শিক্ষক সবার নিরাপত্তার জন্য বিষয়টি সিন্ডিকেটে উত্থাপন করা হয়েছিলো। তারা না চাইলে ক্যাম্পাসে থানা স্থাপন করা হবে না।

রাবি উপ-উপাচার্য চৌধুরী সারওয়ার জাহান সজল বলেন, 'এখানে অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড দীর্ঘদিন ধরে ঘটে চলছে। এটাকে সামনে রেখেই বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট এমন একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলো, তবে আমাদের পরিবারের সদস্যদের যদি অমত থাকে তাহলে নিশ্চয়ই আমরা সেটাকে গুরুত্ব দেব।'

এ ব্যাপারে পুলিশ প্রশাসন বলছে, বিশ্ববিদ্যালয় একটি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান। তাই তারা না চাইলে ক্যাম্পাসে থানা স্থাপন সম্ভব নয়।