SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon মহানগর সময়

আপডেট- ১৯-০৯-২০১৯ ০৭:০৬:৩৯

‘স্যার থ্রি–পিসটা পর‌তে দেন, পে‌টের তা‌গি‌দে জুয়ার বোর্ডে চাক‌রি করি’

casino

রাজধানীর বনানীর আহম্মেদ টাওয়ারের গোল্ডেন ঢাকা বাংলাদেশ নামক ক্যাসিনো, ফকিরাপুলের ইয়ংমেন্স ক্লাব,  ঢাকা ওয়ান্ডারার্স ক্লাবসহ এ রকম আরো অনেক ক্যাসিনো বা ক্লাবগুলোতে বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যার পর অভিযান চালানো হয়। এ ছাড়া এসব ক্যাসিনো সিলগালা করা হয়। এ অভিযানে উঠে আসে নানা রকম তথ্য।

এদিকে ফকিরাপুলের ইয়ংমেন্স ক্লাবে দেখা মিলে ওয়েস্টার্ন পোশাকের দুই তরুণীর। যারা ওই ক্যাসিনোর কর্মী বলে জানা যায়।

দুই তরুণীর একজন নি‌জে‌কে অভ্যর্থনাকারী ও আরেকজন জুয়ার বো‌র্ডের কার্ড সরবরাহকা‌রী পরিচয় দেন। অভ্যর্থনাকারীর বেতন ২১ হাজার আর কার্ড বিতরণকা‌রীর ১০ হাজার। দৈ‌নিক ১২ ঘণ্টা চাক‌রি। গত দেড় মাস যাবত চাক‌রি কর‌ছেন ব‌লে জানান তারা।

দুই তরুণীর একজন বলেন, ‘স্যার, আমা‌দের থ্রি-পিসটা পর‌তে দেন। এখা‌নে পে‌টের তা‌গি‌দে চাক‌রি ক‌রি। ও‌য়েস্টার্ন ড্রেস না পর‌লে চাকরি থাক‌বে না। এখা‌নে সব জায়গায় সি‌সি ক্যা‌মেরা লাগা‌নো। খারাপ কা‌জের কোনো সু‌যোগ নেই। এখা‌নে জুয়ার বো‌র্ডে চাক‌রি করাটাই কি অপরাধ?’

রাত ৯টায় ফ‌কি‌রাপুলে ক্লা‌বের ভেত‌রে ব‌সে দুই তরুণী তা‌দের পাহারায় থাকা এক নারী র‌্যাব সদস্যকে লক্ষ্য ক‌রে এ কথাগু‌লো বল‌ছিলেন। জবা‌বে ওই র‌্যাব সদস্য বলেন, ‘স্যারদের অর্ডার নেই।’

তারা জানান, তারা মোট ৬ জন পর্যায়ক্রমে ডিউটি ‌করেন। তা‌দের স্বামী এখা‌নে চাক‌রির কথা জা‌নেন। তবে প‌রিবা‌রের অন্যরা জা‌নেন না। তারা বারবার‌ নি‌জে‌দের নিরপরাধ দা‌বি ক‌রেন।