SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon খেলার সময়

আপডেট- ২৬-০৮-২০১৯ ০১:৪৮:০৭

আফগান ‘বধ’ করতে ফিটনেস ঠিক করছে ফুটবলাররা

bank

অভিজ্ঞতার সঙ্গে এক ঝাঁক তারুণ্যের মিশেল, এটাই এখন বাংলাদেশ ফুটবলের মূল মন্ত্র, জানালেন সহকারী কোচ স্টুয়ার্ট ওয়াটকিস। জামাল ভুঁইয়া, ইয়াসিনদের অভিজ্ঞতার সঙ্গে, রবিউল-সুফিলদের তারুণ্যের গতি মিলে গেলে যে কাউকেই হারাতে পারবে লাল সবুজের প্রতিনিধিরা বিশ্বাস কোচিং প্যানেলের সবার।

এদিকে, আফগানিস্তানের বিপক্ষে খেলাটা টার্ফে হলেও এখানে অনুশীলন চলছে ঘাসের মাঠে। যদিও, তাতে খুব একটা অসুবিধা দেখছেন না ডিফেন্ডার ইয়াসিন খান। তাজিকিস্তানে সপ্তাহখানেক ক্যাম্প হলেই মিটে যাবে সব সমস্যা মনে করেন তিনি।

তারুণ্যের উচ্ছ্বলতার সঙ্গে অভিজ্ঞদের প্রজ্ঞা, এটাই এখন জেমি ডে'র বাংলাদেশ ফুটবল। তাই তো ২৬ জনের প্রাথমিক দলে গুটিকয়েক অভিজ্ঞদের সঙ্গে এক ঝাঁক তরুণ ফুটবলার। আর তরুণদের এই ক্ষীপ্রতা এবং নতুনত্বকে বরণ করে নেয়ার সাহস আশা দেখাচ্ছে বাংলাদেশের সহকারী কোচকেও।

আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচের আগে দেশের মাটিতে কন্ডিশনিং ক্যাম্পের দ্বিতীয় দিনেও ফিটনেসেই ছিলো মূল প্রাধান্য। সকালের কাঠফাঁটা রৌদ্র আর গরম উপেক্ষা করে রানিং আর স্ট্রেচিং চলেছে ঘন্টাখানেক। বেশিরভাগ ফুটবলারের ফিটনেস-ই সন্তোষজনক থাকায় শিষ্যদের খুব বেশি চাপ দিলেন না জেমি। নিজেদের মতো করেই কাজটা করলেন ফুটবলাররা।

এরপর শুরু হয় মূল অনুশীলন। প্রথম দিনে সেট পিস নিয়ে মাথা ঘামালেও, দ্বিতীয় দিনে জেমির পুরো ব্যস্ততাই ছিলো ফরোয়ার্ড এবং ডিফেন্ডারদের নিয়ে। মূলত গোল করা এবং আটকানোর দক্ষতা বাড়াতেই অনুশীলন করে দল। মাঠের দুই প্রান্ত থেকে ডি বক্সে উড়ে আসতে থাকে বলগুলো, আর ডিফেন্ডারদের কাটিয়ে তাতে কখনো মাঠা ঠেকিয়ে, আবার কখনো পায়ের কারিগরি দেখিয়ে বল জালে পাঠাচ্ছিলেন স্ট্রাইকাররা। তবে, মাঝেই মাঝেই দুর্দান্ত সব সেভ করে কোচের প্রশংসা পাচ্ছিলেন স্কোয়াডে থাকা গোলরক্ষকরা।

বেশ ক'বছর যাবত দেশি স্ট্রাইকাররা গোল ক্ষরায় ভুগলেও, তাদের এ বছরের লিগ পারফরম্যান্সে খুশি কোচিং ম্যানেজমেন্ট।

স্টুয়ার্ট ওয়াটকি বলেন, বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলফুটবল গোলের খেলা। গোল না হলে আপনি জিততে পারবেন না। আর গোল করা ফরোয়ার্ডদের মূল কাজ। গত কয়েক বছররে তুলনায় বাংলাদেশের ফরোয়ার্ডরা এবার বেশ ভালো ফর্মে আছে। এ মৌসুমে জীবন-মতিনরা অনেক গোল পেয়েছে। আশা করি জাতীয় দলেও এ পারফরম্যান্স অব্যাহত থাকবে। তবে, এ দলটা এখন শুধু ফরোয়ার্ডদের ওপর নির্ভরশীল নয়। আমাদের মিডফিল্ডার এবং ডিফেন্ডাররাও কিন্তু গোল করার সামর্থ্য রাখে।

কম যান নি ডিফেন্স লাইনের সেনানীরাও। স্ট্রাইকারদের সহজ কোন সুযোগ দেন নি তারা। একসমান পারফরম্যান্স করেছেন তরুণ এবং অভিজ্ঞরা। ফয়সাল-ইয়াসিনদের কাটিয়ে বল জালে পাঠাতে ভালোই বেগ পেতে হয়েছে সুফিল, মতিনদের। তরুণদের সঙ্গে এই প্রতিযোগিতা বেশ উপভোগই করেছেন ইয়াসিনরা।

বাংলাদেশ ডিফেন্ডার ইয়াসিন খান বলেন, আগে থেকে তুলনামূলক ডিফেন্স লাইন ভালো। এখন ফিফটি-ফিফটি চাঞ্জ। একম কিছু ল্যাকিংস নিয়ে কাজ হচ্ছে।

এতো আয়োজন সবকিছুই আফগান বধের নিমিত্তে। তবে, কোথায় যেন একটু খাপছাড়া। তাজিকিস্তানে খেলা হবে আস্ট্রো টার্ফে, আর লাল সবুজের অনুশীলন যে চলছে সবুজ ঘাসে। তবে, এটা না কি বড় কোন সমস্যা হবে না প্রস্তুতিতে।

ইয়াসিন খান বলেন, আমাদের বাংলাদেশ আর ওখানটা এক না।

স্টুয়ার্ট ওয়াটকিস বলেন, বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল আমরা আপাতত ফুটবলারদের ফিটনেসটা ঠিক করে নিচ্ছি। আমরা মূল অনুশীলন করবো তাজিকিস্তানে। ওখানকার পরিবেশের সঙ্গেও খাপ খাওয়ানোর একটা বিষয় আছে। টার্ফ কোন সমস্যা হবে না।

আফগান ম্যাচের জন্য মূল স্কোয়াড দেয়া হবে ৩১শে আগস্ট। পরদিনই তাজিকিস্তানের উদ্দেশ্যে দেশ ছাড়বে জাতীয় দল।