SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon আন্তর্জাতিক সময়

আপডেট- ২১-০৮-২০১৯ ১৬:২৫:৫৪

আইরিশ সীমান্তে নতুন চুক্তি পুরোপুরি ‘অবাস্তব’: ইইউ

brexit-21aug-jpg-2

'ব্যাকস্টপ' বা আইরিশ সীমান্তে কড়াকড়ি আরোপ বাদ দিয়ে নতুন করে চুক্তি সইকে পুরোপুরি 'অবাস্তব' বলে মন্তব্য করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মার্কেল বলেছেন, ব্যাকস্টপ বহাল রেখেই আইরিশ সীমান্ত নিয়ে সৃষ্ট সংকট সমাধান সম্ভব।

তবে ব্যাকস্টপ নিয়ে ইইউ'র মনোভাব 'নেতিবাচক' হলেও ইইউ নেতাদের সঙ্গে আসন্ন ব্রেক্সিট আলোচনায় এ বিষয়ে সমাধান বের হয়ে আসবে বলে আশাবাদী ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

বুধবার (২১ আগস্ট) জার্মান চ্যান্সেলরের সঙ্গে আলোচনার মধ্য দিয়ে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর প্রথমবারের মতো ইউরোপ সফর শুরু করতে যাচ্ছেন তিনি।

ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ার পর প্রথমবারের মতো বুধবার ইউরোপ সফরের আগে মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) ব্রিটিশ গণমাধ্যমের মুখোমুখি হন বরিস জনসন। এসময় তিনি বলেন, ব্রেক্সিট চুক্তি থেকে 'ব্যাকস্টপ' বা আইরিশ সীমান্তে কড়াকড়ি আরোপ বাদ দিয়ে নতুন করে চুক্তি সইয়ের দাবি ইইউ নাকচ করে দিলেও, আলোচনার মাধ্যমে এখনও ব্রেক্সিট চুক্তির বিষয়ে আশাবাদী তিনি।

জনসন বলেন, এটা সত্যি, ব্যাকস্টপ বাতিলের বিষয়ে ইইউ'র মনোভাব এই মুহূর্তে পুরোপুরি নেতিবাচক। নতুন করে চুক্তি সইয়ের বিষয়েও ডোনাল্ড টাস্কের বক্তব্য ইতিবাচক নয়। আমার মনে হয় বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনার সময় এসেছে। যেকরেই হোক, এর একটি সমাধান আমাদেরকে খুঁজে বের করতে হবে। বর্তমান চুক্তিটি পার্লামেন্টে পাস করা সম্ভব নয়, আর এ কারণেই আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে আমাদেরকে একটি কার্যকর সমাধানে পৌঁছাতে হবে।

তবে, 'ব্যাকস্টপ' বা সীমান্তে কড়াকড়ি আরোপ বাদ দিয়ে নতুন করে চুক্তি সইয়ে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর দাবিকে পুরোপুরি অবাস্তব বলে মন্তব্য করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। মঙ্গলবার, ব্রাসেলসে এক সংবাদ সম্মেলনে কমিশনের উপ মুখপাত্র বলেন, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী সম্প্রতি ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্টকে চিঠি দিয়ে নতুন কোরে চুক্তি সইয়ের যে প্রস্তাব দিয়েছেন তাতে আইনগত কোনো ভিত্তি নেই।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর চিঠিতে কেবল ব্যাকস্টপ বাদ দিয়ে চুক্তির প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। কিন্তু এর বিকল্প কী হবে, সে বিষয়ে কোন সুনির্দিষ্ট দিক নির্দেশনা নেই। এমনকি বেক্সিট পরবর্তী সময়ে সীমান্ত বিষয়ক সংকটের সমাধানের বিষয়েও তারা কিছু বলেনি। তবে, আমরা বলতে চাই, ব্রেক্সিট নিয়ে আমরা সবসময়ই ব্রিটেনের সঙ্গে গঠনমূলক আলোচনার জন্য প্রস্তুত।

এদিকে, জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মার্কেল বলেছেন, বর্তমান ব্রেক্সিট চুক্তি বহাল রেখেই আইরিশ সীমান্ত নিয়ে সৃষ্ট সংকটের সমাধান সম্ভব। কেবল ব্যাকস্টপের জন্য নতুন করে চুক্তি সইয়ের বিপক্ষে মত দেন তিনি।

মার্কেল বলেন, সংকট সমাধানের পথ খুঁজে বের করতে ইইউ প্রস্তুত। তবে এজন্য নতুন করে চুক্তির কোন প্রয়োজন নেই। এটা নির্ভর করছে দু'পক্ষের মধ্যে ভবিষ্যত সম্পর্ক কেমন হবে তার ওপর। ব্রিটেনকেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে তারা কোন পথে যেতে চায়। আমরা আমাদের পক্ষ থেকে ব্যবসা-বাণিজ্য, অর্থনীতি, নিরাপত্তাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে তাদেরকে সহযোগিতার প্রস্তাব দিয়েছি, এখন দেখার বিষয় তারা কোনটি বেছে নেয়। এখানে একাধিক বিকল্পের কোন সুযোগ নেই। আমাদেরকে একটি অভিন্ন সমাধান খুঁজে বের করতে হবে।

বুধবার বার্লিনে জার্মান চ্যান্সেলরের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক বৈঠকের মধ্যে দিয়ে ব্রেক্সিট আলোচনা শুরু করবেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। আগামী ৩১শে অক্টোবরের মধ্যে ব্রিটেনের ইইউ ছাড়ার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।