SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon বাণিজ্য সময়

আপডেট- ১৭-০৮-২০১৯ ১১:০৩:২৮

চামড়া খাতে রফতানির লক্ষ্যমাত্রা কমছে ধারাবাহিকভাবে

leather

রফতানিতে শীর্ষে থাকা পোশাক খাতের প্রবৃদ্ধি যেখানে প্রতি বছর বাড়ছে তখন উল্টো চিত্র চামড়াখাতে। ধারাবাহিকভাবে কমছে রফতানি লক্ষ্যমাত্রাও। ট্যানারিগুলো কমপ্লায়েন্স না হওয়ায় ক্রেতা সংকট বলে মনে করেন ব্যবসায়ীরা। বিশ্লেষকরা বলছেন, পরিবেশ সম্মত চামড়া কারখানা স্থাপন করতে না পারাসহ অভ্যন্তরীণ নানা সমস্যায় পিছিয়ে পড়ছে চামড়া খাত।

রফতানিতে পোশাক খাতের অবদান ৮৪ শতাংশ আর চামড়া খাতের মাত্র আড়াই শতাংশ। লক্ষ্যমাত্রা প্রতি বছরই বাড়ানো হচ্ছে কিন্তু গেলো কয় বছরে পূরণ করা সম্ভব হয়নি। তাই চলতি অর্থবছরে কমানো হয়েছে গেলো বছরের চেয়ে লক্ষ্যমাত্রা। রফতানিতে প্রণোদনা, ২০১৭ তে প্রডাক্ট অব দি ইয়ার ঘোষণা। সবকিছু ছাপিয়ে নানা তাল বাহানার পর হাজারীবাগ থেকে ট্যানারি শিল্প স্থানান্তর।

এ সব উদ্যোগ নেয়া হয়েছে চামড়া শিল্পের সম্ভাবনা বিবেচনায়। কথা ছিলো ট্যানারি স্থানান্তরের পর পরিবেশ নষ্ট করে পণ্য তৈরির কারণে মুখ ফিরিয়ে নেয়া ক্রেতারা আস্থা রাখবেন বাংলাদেশের চামড়াখাতে। কিন্তু গলদ রয়ে গেছে চামড়া শিল্পের স্থানান্তর প্রক্রিয়ায়। সম্ভব হয়নি পরিবেশ সম্মত ট্যানারি গড়ে তোলার। তাই আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বাড়লেও শর্ত মেনে উন্নত বিশ্বের বাজারে সরাসরি যেতে পারে না বাংলাদেশের চামড়া।

বাংলাদেশ ফিনিশড লেদার, লেদারগুডস অ্যান্ড ফুটওয়্যার এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান মহি উদ্দিন আহমেদ মহি বলেন, প্রোডাক্ট বিক্রি করতে গেলে যে শর্ত দেওয়া হয়েছে, সেগুলো সম্পূর্ণভাবে করতে পারলে সরাসরি বিক্রেতার কাছে চামড়া বিক্রি করার আবেদন করতে পারবো।

২০১৭-১৮ অর্থবছরে রফতানি লক্ষ্যমাত্র ১৩৮ কোটি ডলারের বিপরীতে আয় ১০৮ কোটি ৫৫ লাখ ডলার। এরপর ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ১ কোটি ১২ লাখ ডলার লক্ষ্যমাত্রায় রফতানি ১শ ১ কোটি ৯ লাখ ডলার। আর চলতি অর্থবছরে লক্ষ্যমাত্রা কমিয়ে নির্ধারণ করা হয়েছে ১শ ৯ কোটি ৩ লাখ ডলার।