SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon বাংলার সময়

আপডেট- ১৭-০৬-২০১৯ ১১:২৬:১০

দুর্ভোগ পিছু ছাড়ছে না হাওরের কৃষকের

sunam-farmer-somoy

সুনামগঞ্জের হাওরের কৃষকের দুর্ভোগ পিছু ছাড়ছে না। প্রাকৃতিক দুর্যোগে কয়েকবার ফসলহানির পর কাঙ্ক্ষিত ফসল ঘরে তুলতে পারলেও ধান বিক্রিতে ন্যায্য মূল্য না পাওয়ায় ক্ষতির মুখে পড়েছেন তারা। সরকারের খাদ্য বিভাগের ক্রয় কেন্দ্রগুলোতে নানা জটিলতা ও অনিয়মের কারণে ধান বিক্রি করতে পারছেন না বলে অভিযোগ কৃষকের। তবে জেলা প্রশাসক জেলার সব চালকল মালিককে কৃষকের কাছ থেকে ধান কেনার নির্দেশ দিয়েছেন।

প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে ২০১৬ ও ১৭ সালে সুনামগঞ্জবাসী বছরের একমাত্র ফসল বোরো ধান হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে যায়। গেলো বছর বাম্পার ফলন এবং ধানের ন্যায্য দাম পাওয়ায় আগের বছরগুলোর ক্ষতি কিছুটা পুষিয়ে ঘুরে দাঁড়ান হাওরবাসী।

তবে, চলতি মৌসুমের শেষে শনির হাওরের বাঁধ ভাঙ্গায় আতঙ্ক কাটিয়ে ফসল ঘরে তুলতে পারলেও ধানের উৎপাদন খরচের চেয়ে বিক্রয় মূল্য অনেক কম পাওয়ায় হতাশায় পড়েছেন কৃষকেরা।

ধারদেনা করে কৃষকেরা ধান উৎপাদন করে সরকারি গুদামে বিক্রি করতে গিয়ে বাঁধার সম্মুখীন হচ্ছে বলে তারা অভিযোগ করেন।

এই সুযোগে, কৃষকের কাছ থেকে মিল মালিকেরা কম দামে ধান কিনে নিচ্ছে। এদিকে,  সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. আবদুল আহাদ সুনামগঞ্জের তিনশ চারটি চাল-কলের মালিককে স্থানীয় কৃষকের কাছ থেকে ধান কেনার নির্দেশ দিয়েছেন।

এবার সুনামগঞ্জে প্রায় দুলাখ ২৫ হাজার হেক্টর জমিতে ১৩ লাখ টন ধান উৎপাদন হয়েছে।

সরকারি হিসেবে সুনামগঞ্জে এবার তিন হাজার একশ ২০ কোটি টাকার ধান উৎপাদন করেছেন কৃষকেরা। এই বিরাট অঙ্কের ধান উৎপাদনের পেছনে যে কৃষকের কাজ করেছেন তারা এখন ন্যায্যমূল্য পাচ্ছেন না। এমন অভিযোগ করেছেন এখানকার কৃষকেরা।