SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon আন্তর্জাতিক সময়

আপডেট- ২৫-০৪-২০১৯ ১৬:৫২:০৯

‘জীবন রক্ষার্থে বাড়িঘর-সম্পত্তি সব ফেলে যেতে হচ্ছে’

afghanistan1

যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তানে গেলো এক বছরে অন্তত সাড়ে ১১ হাজার বেসামরিক নাগরিক হতাহত হয়েছে। গেলো তিন মাসে নিহত হয়েছে ৫৮১ জন। যাদের অধিকাংশই সরকারি বাহিনী এবং মার্কিন হামলার শিকার। বুধবার এক প্রতিবেদন জাতিসংঘ এ তথ্য জানায়।

বেসামরিক প্রাণহানি কমাতে যুদ্ধবিরতির পরামর্শ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। এর মধ্যেই, পশ্চিমাঞ্চলে তালেবান-আইএসের মধ্যে তীব্র লড়াই শুরু হয়েছে। প্রাণ বাঁচাতে এলাকা ছেড়েছেন কয়েক হাজার মানুষ। এদিকে, আফগান সরকারের সঙ্গে তালেবানের আলোচনা নিশ্চিতে বৈঠকে বসছে রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র এবং চীন।

গেলো সেপ্টেম্বরে তালেবান নিয়ন্ত্রিত মোল্লাহ হাফিজ গ্রামে সরকারি বাহিনী ও মার্কিন হামলায় পরিবারের ১২ সদস্যকে হারান আফগান নাগরিক মাশি রাহমান। বিমান হামলার সময় ইরানে থাকায় প্রাণে রক্ষা পান তিনি। তার বাড়ি থেকে ৪শ মিটার দূরেই ছিলো তালেবান নিয়ন্ত্রণাধীন বন্দিশিবির। হামলার জন্য তালেবান এবং আফগান সরকার উভয়কেই দায়ী করেন তিনি।

আফগান নাগরিক মাশি রাহমান বলেন, 'আমার বন্ধু আমাকে ফোনে জানালো মোল্লাহ হাফিজ গ্রামে পুরানো একটি বাড়িতে বোমা হামলা হয়েছে। যখন সে ঠিকানা বললো, আমি জানালাম এটা আমার বাড়ি। সে বললো সেখানে হতাহতের ঘটনা ঘটেছে, আমাকে বাড়ি ফিরতে হবে।'

নৃশংস হামলার বিচার চেয়ে জাতিসংঘে আবেদন জানান তিনি। অভিযোগ পাঠানো হয় আফগান স্বাধীন মানবাধিকার কমিশনে। মঙ্গলবার সে বিষয়ে প্রতিবেদন দেয় সংশ্লিষ্টরা। একদিন পর চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত সময়ে হতাহতের সংখ্যা নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করে জাতিসংঘ।

আফগানিস্তান জাতিসংঘ সহকারী মিশনের পরিচালক রিচার্ড বেননেট বলেন, 'এখনো তীব্র সংঘাত চলছে। গেলো তিনমাসে ৫শ' ৮১ জন নিহত হয়েছে। এদের মধ্যে এক তৃতীয়াংশই শিশু। আহত হয়েছে ১ হাজার ১শ' ৯২ জন। সরকারপন্থীদের হামলায় নিহত হয়েছে ৩শ' ৫ জন। যা গেলো ১০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। এছাড়া গেলো এক বছরে সাড়ে ১১ হাজার সাধারণ মানুষ নিহত হয়েছে। যা বিস্ময়কর এবং উদ্বেগজনক।'

জাতিসংঘের প্রতিবেদনের বিষয়ে মন্তব্য করেনি আফগান সরকার। তবে মার্কিন বাহিনীর মুখপাত্র ডেভ বাটলার জানান, আত্মরক্ষা এবং আফগান বাহিনীর সুরক্ষা নিশ্চিতের অধিকার তাদের রয়েছে। এছাড়া, প্রাণহানি কমাতে যুদ্ধবিরতিকে উত্তম সমাধান বলে অভিহিত করেন তিনি।

এরমধ্যেই, আফগানিস্তানের পশ্চিমাঞ্চলে তালেবান-আইএসের মধ্যে তুমুল লড়াই শুরু হয়েছে। গেলো সোমবার তালেবান নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলে অতর্কিত হামলা চালায় জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস। এরপর থেকেই দুই পক্ষের মধ্যে সংঘাত চলছে। চলমান সংঘর্ষ বিগত কয়েক বছরের মধ্যে ভয়াবহ বলে জানায় স্থানীয়রা। ইতোমধ্যে প্রাণ বাঁচতে বাড়িঘর ছেড়েছে কয়েক হাজার মানুষ।

একজন বলেন, 'এখানে যুদ্ধ চলছে। সবাই এলাকা ছেড়ে পালাচ্ছে। কেউ পায়ে হেঁটে, কেউ গাড়িতে করে। এখানে পর্যাপ্ত যানবাহনও নেই। খুব খারাপ পরিস্থিতির মধ্যে আছি আমরা। শুধু জীবন রক্ষা করতে বাড়িঘর-সম্পত্তি সব ফেলে যেতে হচ্ছে।'

এদিকে, আফগান শান্তি আলোচনায় সহযোগিতার জন্য ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে বুধবার বৈঠক করেছেন আফগানিস্তান বিষয়ক মার্কিন বিশেষ দূত জালমে খালিলজাদ। এছাড়া, আফগান সরকারের সঙ্গে আলোচনায় তালেবানকে রাজি করানোর কৌশল নির্ধারণে বৃহস্পতিবার মস্কোতে বৈঠকে বসছে রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র ও চীন।