SomoyNews.TV

স্বাস্থ্য

আপডেট- ০২-০৪-২০১৯ ০৬:০৮:৩৮

অটিস্টিকদেরও কর্মক্ষম করা সম্ভব

autism-day

অটিস্টিকদের নিয়ে এখনো অস্বস্তি কাজ করছে পরিবার ও সমাজে। সচেতনতা নেই বলে অনেকেই জানেন না কোন শিক্ষায় তাদেরকে স্বাভাবিক জীবনে ফেরানো সম্ভব। প্রযুক্তি ও প্রায়োগিক শিক্ষার মাধ্যমে বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন জনশক্তিকে কর্মক্ষম করা সম্ভব বলে মনে করছে সরকার। তবে অটিজমের বৈশিষ্ট্যগুলো কমাতে পরিবেশগত প্রভাব থেকে আক্রান্তদের দূরে রাখার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের।

নাচ, গান আর অভিনয়ে সমানভাবে পারদর্শী অটিস্টিক সুস্মি। পড়াশোনায় অমনোযোগী হওয়ায় শিক্ষকরা তার ভেতরে লুকিয়ে থাকা গুণগুলোকে আলোর সামনে এনেছেন কৌশলে। তাইতো সে তার প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছে দেশের বাইরেও।

সে বলে, আমরা হংকংয়ে পারফর্ম করতে গিয়েছিলাম। সেখানে দুইটি পুরস্কার জিতেছি।

অটিস্টিকদের মন ও মননের দিকে তীক্ষ্ণভাবে নজর দিলে সমাজের মূল ধারায় ফিরিয়ে আনা যায়। এই লক্ষ্যকে সামনে রেখে অটিস্টিকদের কারিগরি শিক্ষায় প্রশিক্ষিত করতে কাজ করছে হাতে গোনা কয়েকটি কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

পিএফডিএ ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টারের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান সাজিদা রহমান ড্যানি বলেন, বেকারি, ফুড সার্ভিস থেকে শুরু করে প্রায় ৪১টা ট্রেডে ওদের প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। প্রশিক্ষণ নেয়া ২২৩ জনের মধ্যে ১৩২ জনই বেতনভুক্ত কর্মচারী হিসেবে বিভিন্ন জায়গাতে কাজ করছে।

তবে চিকিৎসকরা বলছেন, অটিজম জিনগত সমস্যা হলেও পরিবেশগত কারণে এর প্রকোপ বেড়ে যায় ব্যাপকভাবে।

বিএসএমএমইউ’র শিশু নিউরোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. গোপেন কুমার কুন্ডু বলেন, খাদ্য সংরক্ষণের জন্য ব্যবহৃত প্রিজারভেটিভ, সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য কৃত্রিমভাবে রঙিন করা খাবার এবং অতিরিক্ত ফাস্টফুড গ্রহণ শিশুদের অটিজমের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়।

তবে আধুনিক পৃথিবীর উপযোগী করে গড়তে সহায়ক প্রযুক্তির ব্যবহারই সর্বোত্তম সমাধান বলে মনে করছে সরকার।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইপনা’র পরিচালক অধ্যাপক ডা. শাহীন আখতার বলেন, তাদের জন্য প্রযুক্তি অনেক সহজতর করা দরকার যাতে তারা কম্পিউটার ব্যবহার করেই সবকিছু করতে পারে।

অটিজমের ৮০ থেকে ৯০ ভাগ বৈশিষ্ট্য প্রকাশ পায় ২ বছরের মধ্যে। আর ৩ বছর পূর্ণ হবার আগেই তা প্রকাশ পায় সম্পূর্ণভাবে। তবে চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা নিশ্চিত হয়েছেন, শিশুর মস্তিষ্ক বিকাশের প্রথম অবস্থায় অটিজম নির্ণয় করা গেলে চিকিৎসার মাধ্যমে অনেকাংশেই লক্ষণগুলো কমানো সম্ভব।