SomoyNews.TV

ধর্ম

আপডেট- ০২-০৯-২০১৮ ১৮:০৫:৪৬

আরাধনা, পূজা আর আনন্দ র‌্যালির মাধ্যমে পালিত হচ্ছে জন্মাষ্টমী

jonmastomi-up

ভক্তদের আরাধনা, পূজা আর আনন্দ র‌্যালির মধ্য দিয়ে পালন করা হচ্ছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব জন্মাষ্টমী। শ্রীকৃষ্ণের জন্মদিনে দেশ, জাতি ও বিশ্বজুড়ে শান্তি, সমৃদ্ধি আর সাম্প্রদায়িক সংহতি কামনা করা হয়। জন্মাষ্টমীর আয়োজনে অংশ নিয়ে সাম্প্রদায়িক অপশক্তির বিরুদ্ধে ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে ঐক্যের আহ্বান ছিল রাজনীতিবিদদের কণ্ঠেও। 

 

দুরাচার দুষ্টের দমন আর শিষ্টের লালন-- এই মূলমন্ত্রকে ধারণ করে দ্বাপর যুগের সন্ধিক্ষণে স্বর্গ থেকে পৃথিবীতে আবির্ভূত হন সনাতন ধর্মের প্রাণপুরুষ, মহাবতার পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণ। শ্রীকৃষ্ণের জন্মদিন পালনে রোববার (০২ সেপ্টেম্বর) সকাল থেকেই রাজধানীর ঢাকেশ্বরী মন্দিরে ছিল গীতাযজ্ঞ, মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্বলন, ভক্তদের আরাধনাসহ নানা আয়োজন। 

পুরাণ মতে, পৃথিবীতে হিংসা, অনাচার আর অন্যায়- অবিচার বেড়ে গেলে সত্য, সুন্দর ও পবিত্রতার ত্রাতা হিসেবে পৃথিবীতে আগমন ঘটে ভগবান শ্রীকৃষ্ণের। পাশবিক শক্তি, অসুন্দর আর অসত্যের বিনাশ ঘটিয়ে পৃথিবীতে প্রতিষ্ঠা করেন পরম ধর্ম আর শুভ শক্তির। 

শংকর মঠ ও মিশনের অধ্যক্ষ স্বামী তপনানন্দ গিরি মহারাজ বলেন, ‘ধরাধামে যখন আসুরিক শক্তির উদ্ভব হয়েছিল, তখনই তিনি এসে এই আসুরিক শক্তিকে পরাভূত করে পৃথিবীতে শান্তি স্থাপন করেছিলেন।’ 

জন্মাষ্টমী উপলক্ষে ধর্মীয় আরাধনায় অংশ নিয়ে ভক্তদের কণ্ঠে ছিল সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির জয়গান। প্রত্যাশা দেশ জাতির মঙ্গল, আর বিশ্বশান্তির। 

দুপুরে রাজধানীর পলাশী মোড় থেকে শুরু হয় জন্মাষ্টমীর মহাশোভাযাত্রা। এতে অংশ নিয়ে সাম্প্রদায়িক অপশক্তির বিরুদ্ধে ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান ছিল রাজনীতিবিদদের কণ্ঠে। 

দক্ষিণ ঢাকা সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষ আজ ঐক্যবদ্ধ। ধর্ম কিংবা বর্ণের বিভেদ একে বিচ্ছিন্ন করতে পারবে না।’ 

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সাম্প্রদায়িক শক্তিকে পরাজিত করে বিজয় অর্জনের শপথ নিতে হবে।’

পলাশীর মোড় থেকে শুরু হয়ে শোভাযাত্রাটি বাহাদুর শাহ পার্কে গিয়ে শেষ হয়।