SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon মহানগর সময়

আপডেট- ০৩-০৪-২০১৮ ০৫:১৯:২৬

মৃত্যুফাঁদে পরিণত হচ্ছে রাজধানীর আবাসিক ভবনগুলো

bhaban

গ্যাস ও বিদ্যুতের অনিরাপদ ব্যবহারে মহানগরীতে বাড়ছে দুর্ঘটনা। পানির রিজার্ভার নিয়মিত পরিস্কার না করা এবং লিফটসহ বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি রক্ষণাবেক্ষণে সচেতন নন অনেকেই।

 

অন্যদিকে ভবন নির্মাণে খরচ কমানোর প্রবণতা থেকে মানহীন পণ্য ব্যবহার করা হয়। সব মিলিয়ে আবাসস্থল নিরাপদ না হয়ে, পরিণত হচ্ছে মৃত্যুফাঁদে। ফায়ার সার্ভিস বলছে, প্রতিটি ভবনকে নিয়মিত নিরীক্ষার আওতায় আনতে পারলে কমবে দুর্ঘটনার ঝুঁকি।

কর্তৃপক্ষের নোটিশ থেকে জানা যায়, বিচ্ছিন্নভাবে টেনে নেয়া বৈদ্যুতিক ও অন্যান্য সেবা সংস্থার তার রাজধানীর পুরানা পল্টনের একটি ভবনে দুর্ঘটনার বেশ ঝুঁকি সৃষ্টি করেছে। রাজধানীর অনেক আবাসিক ভবনেই দেখা যায় এমন অবস্থা।

পাইপ লাইন কিংবা সিলিন্ডার থেকে বের হওয়া গ্যাস বিদ্যুৎ কিংবা অন্য কোনভাবে আগুনের সংস্পর্শে এলে এবং শর্ট সার্কিটের কারণে প্রায়ই ঘটে ছোটবড় দুর্ঘটনা।

ফায়ার সার্ভিসের তথ্য অনুযায়ী, বিগত ছয় বছরে সারাদেশে ৮৮ হাজার ছোট-বড় অগ্নি দুর্ঘটনায় ১ হাজার ৪০০ জন নিহত হন। আহত হন কমপক্ষে ৫ হাজার মানুষ।

শুধু আগুনই নয়, পানির রিজার্ভ ট্যাংকে জমে থাকা গ্যাসেও হতাহতের ঘটনা ঘটে প্রায়ই।

এ ছাড়া আরেক আতঙ্কের নাম লিফট দুর্ঘটনা। সব মিলিয়ে আবাসিক ভবনগুলো হয়ে উঠছে অনিরাপদ।

নগরবাসী এক নারী বলেন, 'বিদ্যুতের চেয়ে গ্যাসটা বেশি ঝুঁকিপূর্ণ থাকে। একেকটা বাসায় পাঁচ সাত বছর হয়ে যায় অথচ গ্যাস-বিদ্যুতের লাইন চেক করা হয় না।'

ইলেক্ট্রনিক সেফটি এন্ড সিকিউরিটি এসোসিয়েশনের সভাপতি মো. মোতাহের হোসেন খান বলেন, 'একটা বিল্ডিং পঁচিশ বছর আগে হয়েছে কিন্তু তার ওয়ারিংয়ের লাইফটাইম তো পঁচিশ বছর নাই। বিল্ডিং বেড়েছে কয়েকগুণ, দুর্ঘটনার সম্ভাবনাও কিন্তু বেড়েছে। এখনই সময়, মনিটরিং করা।'

ফায়ার সার্ভিসের পর্যবেক্ষণ, রাজধানীতে মূলত পুরনো পাইপ লাইন দিয়েই গ্যাস সরবরাহ করা হয়। কয়েক বছরে সিলিন্ডারের ব্যবহারও বেড়েছে। কিন্তু পাইপ লাইন সংস্কার কিংবা সিলিন্ডার ব্যবহারের নিয়ম মানছে না অনেকেই।

ফায়ারসার্ভিসের মহাপরিচালক ব্রি. জে. আলী আহম্মেদ খান বলেন, 'সুরক্ষা বিভাগ এবং তিতাস গ্যাসকে নিয়ে আমরা বসবো যে, কিভাবে এটাকে ঝুঁকিমুক্ত করা যেতে পারে।'

সংশ্লিষ্ট সেবা সংস্থার নিয়মিত তদারকি না থাকায় দুর্ঘটনার আগে টনক নড়ে না কারোরই। তাই গ্যাস-পানি-বিদ্যুৎ ব্যবহার হয় এমন সব স্থানে নিয়মিত তদারকি প্রতিবেদন প্রণয়ন বাধ্যতামূলক করার সুপারিশ ফায়ার সার্ভিসের।