SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon মহানগর সময়

আপডেট- ০৩-০২-২০১৮ ০৮:৩৮:৩৫

রাজশাহীর বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের গাড়ি চালকদের তেল চুরির হিড়িক (ভিডিও)

oil-sale

কৌশলে গাড়ি থেকে তেল বের করে কম দামে গ্যারেজে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে রাজশাহীতে বিভিন্ন সরকারি দফতরের চালকের বিরুদ্ধে। সময় সংবাদের অনুসন্ধানে উঠে এসেছে তেল চুরির ঘটনা। তবে অভিযোগের আঙ্গুল যাদের দিকে তারা এ ঘটনার সঙ্গে নিজেদের সম্পৃক্ততার কথা অস্বীকার করেছেন।

অবশ্য গ্যারেজের মালিক ও কর্মচারীরা স্বীকার করেছেন অভিযুক্তদের কাছ থেকে কম দামে তেল কেনার কথা। অভিযোগের সত্যতা পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন সংশ্লিষ্ট দফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

৩৭ আনসার ব্যাটেলিয়নের একটি পিকআপ গ্যারেজে ভিড়িয়ে গোপনে তেল বের করেন চালক নাজিম উদ্দিন। পরে বাজারের চেয়ে কিছুটা কম দামে ওই তেল বিক্রি করে পকেট ভারি করেন তিনি।

রাজশাহী মহানগরীর লক্ষ্মীপুর মোড় সংলগ্ন একটি গ্যারেজ এটি। অভিযোগ উঠেছে, সরকারি বিভিন্ন দফতরের গাড়ি চালকরা জড়িত আছেন এ কাজে। এমন অভিযোগের সত্যতা খুঁজতে দু’দিন ওই গ্যারেজে কৌশলে অবস্থায় নেয় সময় সংবাদ টিম। গোপন ক্যামেরায় ধরা পড়ে ওয়াসার চুক্তিভিত্তিক গাড়ি চালক সাইদুল ইসলামের তেল বিক্রির ঘটনা।

অবশ্য প্রথমে বিষয়টি অস্বীকার করলেও ধারণকৃত ভিডিও দেখানোর পর এর সত্যতা স্বীকার করেছেন গ্যারেজের মালিক ও কর্মচারীরা।

তবে অভিযুক্ত আনসারের গাড়ি চালক বিষয়টি অস্বীকার করলেও অন্যজন নিজেকে নিরপরাধ বলে দাবি করেছেন।

রাজশাহী ৩৭ আনসার ব্যাটেলিয়নের চালক নাজিম উদ্দিন বলেন, 'এখানে মেকারই পাইপ দিয়ে তেল বিক্রি করে সেটাকে বিক্রি করে।'

রাজশাহী ওয়াসার চুক্তিভিত্তিক চালক সাইদুল ইসলাম বলেন, 'আমরা তেল বিক্রি করি না। আমাদের যেটা প্রয়োজন আমরা ততটুকু নেই। এই তথ্য যে দিয়েছে সে ভুল দিয়েছে।

অভিযোগের সত্যতা পেলে ওয়াসার ঊর্ধ্বতনরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিলেও আনসারের দায়িত্বশীল কোন কর্মকর্তা ক্যামেরার সামনে কথা বলতে রাজি হননি।

রাজশাহী ওয়াসার পরিচালক সুলতান আব্দুল হামিদ বলেন, 'যদি কারও বিরুদ্ধে আমরা এই ধরনের পাই, তেল চুরি বা যেকোনো অনিয়মের তাহলে আমরা সেটা দেখি এবং আমাদের প্রশাসনিক যে ব্যবস্থাগুলো আছে সঙ্গে সঙ্গে সেটা গ্রহণ করি।'

সরকারি কর্মকর্তাদের নামে বরাদ্দকৃত গাড়ির তেল ব্যবহারের ক্ষেত্রে সুস্পষ্ট নির্দেশনা থাকলেও তা মানেন না বেশিরভাগই। আর নগরীর প্রায় শতাধিক গ্যারেজের মধ্যে চল্লিশের বেশি গ্যারেজে সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের গাড়ি চালকদের তেল বিক্রির অভিযোগ রয়েছে।