সম্পূর্ণ নিউজ সময়
বাণিজ্য সময়
৩ টা ১ মিঃ, ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৭

রপ্তানি খাতে যোগ হচ্ছে কৃষি প্রক্রিয়াজাত খাদ্যপণ্য

প্রতিনিয়ত রপ্তানি খাতে যোগ হচ্ছে কৃষি প্রক্রিয়াজাত খাদ্যপণ্য। চাহিদা মেটাতে দেশের শতাধিক প্রতিষ্ঠানে তৈরি হচ্ছে বিস্কুট, জ্যাম-জেলি, সরিষার তেল'সহ প্রায় ৮০০ ধরনের পণ্য। অভ্যন্তরীণ চাহিদা মিটিয়ে ১৪০টি দেশে রপ্তানি হচ্ছে প্রায় আড়াই হাজার কোটি টাকার খাদ্যপণ্য। অথচ এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক-এডিবি বলছে, শুধু প্রতিবেশি দেশগুলোতে ১২ হাজার কোটি টাকার কৃষি প্রক্রিয়াজাত পণ্য রপ্তানি করতে পারে বাংলাদেশ। রপ্তানি অবকাঠামো তৈরিতে পিছিয়ে থাকায় সম্ভাবনার সবটুকু কাজে লাগানো যাচ্ছে না বলে মনে করেন খাত সংশ্লিষ্টরা।
বাণিজ্য সময় ডেস্ক

সময়ের সাথে বদলে যাচ্ছে মানুষের খাদ্যভাস। এই পরিবর্তন ছুঁয়ে গেছে শহর থেকে প্রত্যন্ত অঞ্চল পর্যন্ত। যে পরিবর্তনে ভাত ও রুটির পাশাপাশি জায়গা করে নিয়েছে বিস্কুট-পাউরুটির মতো খাদ্যপণ্য।

শুধু বিস্কুট, পাউরুটি নয়। চাহিদা বাড়ছে জ্যাম, জেলি, সস'র। মসলা, জুস,সরিষার তেল, আচার ও সুগন্ধি চালের পাশাপাশি প্রক্রিয়াজাতকরণ খাদ্যশিল্পে যুক্ত হচ্ছে নতুন নতুন পণ্য। সম্প্রসারিত হচ্ছে প্রক্রিয়াজাত খাদ্যপণ্যের অভ্যন্তরীণ বাজারও। আর ভোক্তা চাহিদা মেটাতে দেশের শতাধিক প্রক্রিয়াজাত প্রতিষ্ঠানে সরাসরি পণ্য সরবরাহে কাজ করছেন প্রায় ২০ লাখ মানুষ।

প্রাণ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইলিয়াছ মৃধা বলেন, অভ্যন্তরীণ বাজারে টাকার অঙ্কে প্রায় ৫০ হাজার কোটির টাকার মার্কেট। উত্তর বঙ্গে যদি স্বল্প মূল্যে গ্যাস-জ্বালানি সরবরাহ করা যেত; তাহলে এই শিল্প আরো বেশি প্রসার লাভ করতো।

অভ্যন্তরীণ বাজারের পাশাপাশি ২০০০ সালের দিকে শুরু হয় প্রক্রিয়াজাত খাদ্যপণ্য রপ্তানি কার্যক্রম। একে একে রপ্তানি বাজারের তালিকায় যোগ হয়েছে ইইউ, যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের ১৪০টি দেশ।

বাংলাদেশ এগ্রো প্রসেসরস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এ এফ এম ফখরুল ইসলাম মুনশী বলেন,  প্রণোদনা পাই তার উপর আমাকেই ভ্যাট দিতে হয়। ব্যবসার জন্য ব্যাংক থেকে টাকা নিতে চাই; তার জন্য আমাকে ১০-১১ পার্সেট জন্য সুদ দিতে হয়।  

চলতি অর্থবছরে এখন পর্যন্ত কৃষি প্রক্রিয়াজাত পণ্যের রপ্তানি আয় দাঁড়িয়েছে প্রায় আড়াই হাজার কোটি টাকা। অথচ এডিবি বলছে, সম্ভাবনা রয়েছে ১৪ হাজার কোটি টাকার। সম্ভাবনা কাজে লাগাতে প্রয়োজনীয় সুযোগ সুবিধা দেয়া উচিত বলে মনে করেন অর্থনীতিবিদরা।

অধ্যাপক ড.মিজানুল হক কাজল বলেন, কোন দেশে কোন পুণ্যের চাহিদা বেশি সে খাত করে মেলার আয়োজন করে দেন। তাহলে ওই দেশের বিনিয়োগকারীরা এই দেশে আসবে।

/ফাএ

© ২০২১ সময় টিভি মিডিয়া নেটওয়ার্ক
সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত
DMCA.com Protection Status
সময় মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন
Somoy Tv App PlayStore Somoy Tv App AppleStore
ফলো সামাজিক সময়