সম্পূর্ণ নিউজ সময়
বাণিজ্য সময়
৪ টা ৩৯ মিঃ, ৯ নভেম্বর, ২০১৭

ভেজাল পণ্যে সয়লাব কসবা সীমান্ত হাট!

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা সীমান্ত হাটে ভারতীয় ক্রেতা কম আসায় লোকসান গুণতে হচ্ছে দেশীয় ব্যবসায়ীদের। এতে সীমান্ত হাটে বাণিজ্য ঘাটতির পাশাপাশি বিপুল পরিমাণ রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার। বাজার তদারকির পাশাপাশি দু'দেশের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে আলোচনা চলছে বলে জানিয়েছে প্রশাসন।
বাণিজ্য সময় ডেস্ক

দুর্গম এলাকায় স্থানীয় জনগোষ্ঠীর উৎপাদিত পণ্য বাজারজাত করার মাধ্যমে উভয় দেশ উপকৃত হবে এমন চিন্তা থেকেই ২০১৫ সালের ১১ই জুন থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবার তারাপুর সীমান্তের শূন্য রেখায় চালু হয় সীমান্ত হাট। সেই থেকে প্রতি রোববার বসে এ সীমান্তের হাট।

শুরুতে হাটে উভয় দেশের ক্রেতাদের উপস্থিতি বেশি থাকলেও বর্তমানে তার ভারতীয় ক্রেতা কমে গেছে আশংকাজনভাবে। এতে লাভবান হতে পারছেন না বাংলাদেশী ব্যবসায়ীরা।

এদিকে হাটে ভারতীয় ব্যবসায়ীরা তাদের পণ্যের চাহিদা বেশি থাকার সুযোগে ভেজাল ও মেয়াদউত্তীর্ণ পণ্য বিক্রি করছেন বলে অভিযোগ করেছেন বাংলাদেশী ক্রেতারা। সীমান্ত হাটের এই বাণিজ্য বৈষম্যের কারণে বাংলাদেশ সরকার রাজস্ব হারাচ্ছে বলে মনে করেন বাজার বিশ্লেষক ও ব্যবসায়ী নেতারা। এদিকে দু'দেশের বাণিজ্য ব্যবধান কমাতে বাজার তদারকির পাশাপাশি স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে আলোচনা চলছে বলে জানালেন এ কর্মকর্তা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ড. মোহাম্মদ শাহানুর আলম বলেন, 'আমরা আমাদের কনসার্নটা ওনাদের জানিয়ে দিয়েছি। ওনাদের যে কসমেটিক্স আছে, সেগুলো ইম্পোর্ট ডিউটি ছাড়া এদিকে আসছে, এতে উভয়ই আমরা রাজস্ব হারাচ্ছি। এতে তারাও সমর্থন দিয়েছেন।'

হাট কমিটির তথ্য অনুযায়ী ১১২টি হাটে বাংলাদেশি ক্রেতারা প্রায় ১২ কোটি টাকার পণ্য ক্রয় করলেও ভারতীয় ক্রেতারা ক্রয় করেছেন মাত্র ১ কোটি ৯৭ লাখ টাকার পণ্য।

ফাএ/

© ২০২১ সময় টিভি মিডিয়া নেটওয়ার্ক
সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত
DMCA.com Protection Status
সময় মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন
Somoy Tv App PlayStore Somoy Tv App AppleStore
ফলো সামাজিক সময়