সম্পূর্ণ নিউজ সময়
বাংলার সময়
৫ টা ৩১ মিঃ, ১৮ মে, ২০২১

মাদারীপুরে প্রণোদনার কোটি টাকা তছরুপের অভিযোগ

মাদারীপুরে করোনাকালে ক্ষতিগ্রস্ত খামারিদের জন্য সরকারের দেওয়া প্রণোদনার কয়েক কোটি টাকা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের তালিকার হদিস পাওয়া যাচ্ছে না। প্রান্তিক খামারিরা এই প্রণোদনার অর্থ না পাওয়ায় ক্ষোভ জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে কথা বলতে রাজি হননি জেলা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের কোনো কর্মকর্তা। তবে বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন জেলা প্রশাসক।
সঞ্জয় কর্মকার অভিজিৎ

মাদারীপুর সদর উপজেলার পেয়ারপুর ইউনিয়নের বলারকান্দি গ্রামের আক্তারুজ্জামান ও নাজমা বেগম দম্পতি। ২০ বছর ধরে বাড়িতে খামার করে গবাদিপশু পালন করেন তারা। ব্যাংকঋণ নিয়ে ১২টি গরু পালনে প্রচুর অর্থ খরচ করলে কমে গেছে আয়ের উৎস। ক্ষতিগ্রস্ত খামারিদের জন্য কোটি কোটি টাকা বরাদ্দ আসলেও করোনা দুর্যোগে পাননি সরকারি কোনো সহায়তা। এতে ক্ষুব্ধ তারা।

গরু খামারি আক্তারুজ্জামান বলেন, আমরা গবীর মানুষ। ঋণ নিয়ে গরু লালন-পালন করি। করোনার কারণে দুধ বিক্রি হয়নি। অধিকাংশ সময়ে কম দামে দুধ বিক্রি করেছি। সরকারের দেওয়া সাহায্য তো আমরা পায়নি।

শুধু আক্তারুজ্জামান ও নাজমা দম্পতি নন। তার মতো ওই এলাকার মোশাররফ বেপারী, রিপন হাওলাদার, মোস্তফা খানের একই অবস্থা। করোনাকালে জেলার সদর, শিবচর, কালকিনি ও রাজৈর উপজেলার ক্ষতিগ্রস্ত খামারিদের জন্য ৭ কোটি ৪২ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয় সরকার। প্রান্তিক খামারিদের অভিযোগ, প্রকৃত খামারিদের বাদ দিয়ে অসাধু কর্মকর্তাদের পছন্দের কয়েকজন খামারিকে কিছু টাকা দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি সুষ্ঠু তদন্ত করে আর্থিক সহযোগিতার দাবি জানান খামারিরা।

আরও পড়ুন: খিলক্ষেতে পুলিশের সঙ্গে গোলাগুলিতে নিহত ২

খামারিরা জানান, সরকার থেকে খামারিদের টাকা দেওয়া হয়েছে। কয়েকজন খামারিদের দিয়ে বাকি টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে। টাকা পেলে আমাদের জন্য ভালো হতো।

মাদারীপুরের জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুন বলেন, কোনো কোনো খামারি প্রণোদনার এই অর্থ পেয়েছেন জানতে চেয়ে তথ্য অধিকার আইনে আবেদন করেও সাড়া মেলেনি। অবশ্য, শিগগিরই খোঁজ নিয়ে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।

ডেইরি, পোল্টি ও ডাক এই তিন ক্যাটাগরিতে জেলার ৭ হাজার ১২৭ জন ক্ষতিগ্রস্ত খামারির প্রত্যেকের ৩ হাজার থেকে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত প্রণোদনা পাবার কথা।

এ ব্যাপারে জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. একেএম আনোয়ারুল হক কর্তৃপক্ষের দোহাই দিয়ে ক্যামেরার সামনে কথা বলতে রাজি হননি।

© ২০২১ সময় টিভি মিডিয়া নেটওয়ার্ক
সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত
DMCA.com Protection Status
সময় মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন
Somoy Tv App PlayStore Somoy Tv App AppleStore
ফলো সামাজিক সময়