সম্পূর্ণ নিউজ সময়
শিক্ষা সময়
১৪ টা ২ মিঃ, ১৭ মে, ২০২১

নোবেলের বিচার চাইল ছয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিক সংগঠন

জি বাংলার সংগীত রিয়েলিটি শো থেকে পরিচিতি পাওয়া বিতর্কিত ও সমালোচিত গায়ক মাঈনুল আহসান নোবেল সময় টেলিভিশনের বিনোদন প্রতিবেদক আল কাছিরকে জেল ও অপহরণের হুমকি দেয়ার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে দেশের ছয়টি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিক সংগঠন।
শিক্ষা সময় ডেস্ক

সোমবার (১৭ মে) বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিক সংগঠনগুলো থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়।

ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি সাংবাদিক সমিতির (ডিআইইউসাস) সভাপতি জাফর আহমেদ শিমুল ও সাধারণ সম্পাদক ওয়াহিদ তাওসিফ মুছার এক যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়, পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সময় টেলিভিশনের সাংবাদিকের সঙ্গে বিতর্কিত গায়ক 'মাইনুল আহসান নোবেল' অশ্রাব্য ভাষায় গালি-গালাজ সহ যে নোংরা মানসিকতার পরিচয় দিয়েছেন, তা একজন সঙ্গীত শিল্পীর কাছে কাম্য নয়। নোবেলের এহেন অপহরণের হুমকির প্রতিবাদ জানিয়ে যথাযোগ্য শাস্তি দাবি করেছেন ‘ডিআইইউসাস’ নেতারা।

সাভারের গণবিশ্ববদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির (গবিসাস) সভাপতি মো. রোকনুজ্জামান মনি ও সাধারণ সম্পাদক অনিক আহমেদ প্রেরিত এক যৌথ বিবৃতিতে গবিসাস নেতারা বলেন, পেশাগত দায়িত্ব পালনকারী একজন সাংবাদিকের সঙ্গে একজন শিল্পীর এ ধরনের আচরণে আমরা হতবাক।
তিনি অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজসহ যে নোংরা মানসিকতার পরিচয় দিয়েছেন, তা একজন সংগীতশিল্পীর কাছে কাম্য নয়। এমন অপহরণের হুমকি ও জেলের ভয় দেখানোর ঘটনায় তদন্ত সাপেক্ষে নোবেলের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির (নোবিপ্রবিসাস) সভাপতি আব্দুর রহিম ও সাধারণ সম্পাদক মাইনুদ্দিন পাঠানের প্রেরিত এক যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এটি অত্যন্ত নিন্দনীয় এবং পেশাদারি দায়িত্বপালনের ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা বলে আমরা মনে করি। সময় টেলিভিশনের সাংবাদিকের সঙ্গে বিতর্কিত গায়ক 'মাইনুল আহসান নোবেল' যে নোংরা মানসিকতার পরিচয় দিয়েছেন তা একজন সঙ্গীত শিল্পীর কাছে কাম্য নয়। হুমকিদাতাকে অবিলম্বে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান নোবিপ্রবিসাসের নেতারা।

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসক্লাবের সভাপতি মাহফুজ কিশোর ও সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার নোবেল আলাদা আলাদা বিবৃতি দিয়েছেন। শাহরিয়ার নোবেল বলেন, একজন শিল্পীকে অনেক মানুষ অনুসরণ করে। অনেকেই তার কাছে শিখতে চায়। তবে জি বাংলা খ্যাত শিল্পী নোবেলের সাম্প্রতিক কিছু ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্য শিল্পীর আচরণের পরিপন্থী ও অগ্রহণযোগ্য। বিনোদনজগৎ ও গণমাধ্যম পরস্পর পরিপূরক। একজন শিল্পীর কাছে থেকে সংবাদকর্মীকে হুমকি দেওয়ার মতো কাজ মেনে নেওয়া যায় না। আমরা নোবেলের আচরণের তীব্র নিন্দা জানাই।

মাহফুজ কিশোর বলেন, শিল্প-শিল্পী এই শব্দগুলোর সাথে বিনয়, নিরহংকার এই গুণগুলো ওতপ্রোতভাবে জড়িত। একজন শিল্পী হবেন সমাজের সবার আদর্শ, অনুকরণীয়। কিন্তু ভারতীয় রিয়েলিটি শো সারেগামাপা থেকে উঠে আসা নোবেলের ক্ষেত্রে এগুলা সবসময়ই অনুপস্থিত। তার এই ঔদ্ধত্যতা সুস্থ সমাজে মেনে নেওয়া যায় না। সাংবাদিক আল কাছিরের সঙ্গে তার কুরুচিপূর্ণ ব্যবহারে আমরা প্রেস ক্লাব ভীষণভাবে মর্মাহত হয়েছি। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বশেমুরবিপ্রবি) প্রেসক্লাবের সভাপতি তারিক লিটু ও সাধারণ সম্পাদক ইয়ামিনুল হাসান আলিফের এক যৌথ বিবৃতিতে বশেমুরবিপ্রবি প্রেসক্লাব নেতারা বলেন, পেশাগত দায়িত্ব পালনকারী একজন সাংবাদিকের সঙ্গে একজন শিল্পীর এ ধরনের আচরণে আমরা হতবাক। তিনি অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজসহ যে নোংরা মানসিকতার পরিচয় দিয়েছেন, তা একজন সংগীতশিল্পীর কাছে কাম্য নয়। এমন অপহরণের হুমকি ও জেলের ভয় দেখানোর ঘটনায় তদন্ত সাপেক্ষে নোবেলের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় (জাককানইবি) প্রেসক্লাবের সভাপতি হাবিবুল্লাহ বেলালি ও সাধারণ সম্পাদক বায়েজিদ হাসান স্বাক্ষরিত এ যৌথ বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দরা বলেন, পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সময় টেলিভিশনের সাংবাদিকের সঙ্গে বিতর্কিত গায়ক মাইনুল আহসান নোবেল অশ্রাব্য ভাষায় গালি-গালাজসহ যে নোংরা মানসিকতার পরিচয় দিয়েছেন তা একজন সঙ্গীত শিল্পীর কাছে কাম্য নয়। নোবেলের এহেন অপহরণের হুমকির প্রতিবাদ জানিয়ে যথাযোগ্য শাস্তির দাবি করছে জাককানইবি প্রেসক্লাব।

রোববার (১৬ মে) দিবাগত রাত ১২টা ৪৮ মিনিটে মোবাইল ফোনে মাঈনুল আহসান নোবেল সাংবাদিক আল কাছিরকে অপহরণের হুমকি দেন। গত কয়েক দিনের ফেসবুক স্ট্যাটাস প্রসঙ্গে জানতে চেয়ে ব্যক্তিগত মোবাইল ফোন নম্বরে কল করলে শুরুতেই নিরবচ্ছিন্নভাবে অকথ্য ভাষায় সাংবাদিককে গালাগাল করেন নোবেল। তারপর নিজেই ফোন করে সাংবাদিক কাছিরকে হুমকি দেন। কথোপকথনের একপর্যায়ে আরও দশ সাংবাদিককে জেলে নেওয়ার কথা বলে হুমকিও দেন তিনি।

এর আগে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে কটাক্ষ করে পোস্ট, দেশের জাতীয় সংগীত নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য, লিজেন্ড শিল্পীদের নিয়ে কুরুচিপূর্ণ স্ট্যাটাসও দিয়েছিলেন নোবেল। সবশেষ সড়ক দুর্ঘটনায় বৃদ্ধকে বাঁচানোর মিথ্যা গল্প শুনিয়েছিলেন। পরে সত্য প্রকাশ হয় সময় সংবাদে। এতেই সময় নিউজের ওপর চটেছিলেন নোবেল। 

উল্লেখ্য, মাঈনুল আহসানের গণমাধ্যমকর্মী ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠিত শিল্পীদের সঙ্গে এমন ব্যবহার এবারই প্রথম নয়।

শিমুল/রাকিবুল/মাইনুদ্দিন/রিদওয়ানুল/মাহমুদ/সিফাত

© ২০২১ সময় টিভি মিডিয়া নেটওয়ার্ক
সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত
DMCA.com Protection Status
সময় মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন
Somoy Tv App PlayStore Somoy Tv App AppleStore
ফলো সামাজিক সময়