সম্পূর্ণ নিউজ সময়
আন্তর্জাতিক সময়
১২ টা ৪৪ মিঃ, ১৫ মে, ২০২১

ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের সামরিক শক্তি

পরমাণু অস্ত্রসমৃদ্ধ বিশ্বের সবচেয়ে আধুনিক সেনাবাহিনী রয়েছে ইসরায়েলের। সেই তুলনায় ফিলিস্তিনিদের নিজস্ব কোনো রাষ্ট্র কিংবা নিয়মিত সেনাবাহিনী নেই।
ওয়েব ডেস্ক

এমনকি দখলদারদের প্রতিরোধে নিজেদের আত্মরক্ষার মতো যথেষ্ট সামারিক সক্ষমতাও তাদের নেই বললে চলে। যদি ইসরায়েল-ফিলিস্তিনি পুরোদমে যুদ্ধ শুরু হয়ে যায়, তবে তা একপাক্ষিক হবে বলেই বিবেচনা করা হচ্ছে। সামরিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সক্ষমতায় ইসরায়েলের অনেক অনেক বেশি এগিয়ে।

ইসরায়েলের সেনাবাহিনী:
সক্রিয় সেনা সদস্য: এক লাখ ৭০ হাজার।
প্রশিক্ষিত জনসংখ্যা: ৩০ লাখ।
সেনাবাহিনীর বাজেট: ২০ বিলিয়ন ডলার।

ফিলিস্তিনের সামরিক বাহিনী:
নিয়মিত কোনো সেনাবাহিনী নেই। বিভিন্ন গ্রুপ মিলে ৩০ থেকে ৫০ হাজার সদস্য রয়েছে।
এর মধ্যে হামাসের ১০ থেকে ২০ হাজার। কাসেম ব্রিগেডের সাত থেকে ১০ হাজার সদস্য রয়েছে।

ইসলামি জিহাদের ৯ থেকে ১০ হাজার। পিএলও ৮৩ হাজার।

ইসরায়েলের অস্ত্র:
অস্ত্রের নিজস্ব কারখানা রয়েছে। বিদেশেও রপ্তানি করে। ৯০টি গোপন পরমাণু অস্ত্র রয়েছে। যুদ্ধবিমান ৬৮৪টি। বিমান বাহিনী ৩৪ হাজার, নৌবাহিনী ১০ হাজার, যুদ্ধ জাহার চারটি। ক্ষেপণাস্ত্রবাহী বোট ৮টি। সাবমেরিন ৫টি। প্যাট্রোল বোট ৪৫টি। সাপোর্ট শিপ ২টি।

অত্যাধুনিক ব্যালিস্টিক ও ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র রয়েছে। এসব ক্ষেপণাস্ত্র পার্শ্ববর্তী দেশ মিসর, সিরিয়া ও ইরানে হামলা করতে সক্ষম। এক হাজার থেকে সাড়ে তিন হাজার কিমি দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র রয়েছে। ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা আয়রোড ডোম। রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নে অস্ত্র রফতানি করে ইসরায়েল।

হামাসের অস্ত্র:
১০০ থেকে ১৬০ কিমি রেঞ্জের কয়েক ডজন রকেট রয়েছে। ৭০-৮০ কি.মি রেঞ্জের কিছু রকেট রয়েছে। নতুন উদ্ভাবিত একটি রকেটের পাল্লা আড়াইশ কিলোমিটার বলে জানিয়েছে হামাস।

ইসলামিক জিহাদ:
১০০ কিমি রেঞ্জের কয়েকটি রকেট রয়েছে। কিছু মাঝ ধরার নৌকা রয়েছে।

© ২০২১ সময় টিভি মিডিয়া নেটওয়ার্ক
সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত
DMCA.com Protection Status
সময় মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন
Somoy Tv App PlayStore Somoy Tv App AppleStore
ফলো সামাজিক সময়