সম্পূর্ণ নিউজ সময়
বাংলার সময়
৫ টা ৫৯ মিঃ, ১৪ মে, ২০২১

ঈদ নেই ভোলার জেলেদের!

টানা দু’মাসের নিষেধাজ্ঞা, চলমান লকডাউন ও মাছের খরায় ত্রিমুখী সংকটে ঈদ আনন্দবঞ্চিত ভোলার মেঘনা-তেঁতুলিয়া পাড়ের ইলিশ শিকারিরা। দীর্ঘ সময় কর্মহীন থাকায় সংসারে অচলাবস্থা। জেলে পল্লীর শিশুদের গায়ে ওঠেনি নতুন জামা, সেমাই ফিরনির আয়োজন ছাড়াই বছরের অন্যদিনের মতো ডাল-ভাতে কাটছে মলিন ঈদ। আর পরিবারের খাবার জোগানোর তাড়ায় অন্যদিনের মতোই জাল নৌকা নিয়ে নদীতে ছুটেছেন অনেকেই।
নাসির উদ্দিন লিটন

ধনিয়ার মেঘনা পাড়ের জেবল হক ও রানু দম্পতির ১২ সদস্যের সংসার চলে মেঘনায় মাছ ধরে। কিন্তু গত ২ মাসের নিষেধাজ্ঞার পর এখন মাছের আকাল। তাই এবারের ঈদ তাদের জন্য আনন্দের পরিবর্তে এসেছে হতাশা নিয়ে। ধার করা টাকায় ঈদের সকালে কিছু সেমাই চিনির আয়োজন করলেও পরিবারের কারো ভাগ্যে জোটেনি নতুন পোশাক। আর প্রতিবেশী নুরজাহান বেগম নদীতে মাছ ধরতে যাওয়া নাতি সাইফুল ফেরার অপেক্ষায়। মাছ বিক্রির টাকায় সেমাই চিনি নিয়ে ফিরলেই চুলায় রান্না উঠবে ঈদের।

একই চিত্র ছিল মেঘনা পাড়ের জেলে পল্লীর অধিকাংশের। গাঙে মাছ নেই, ডাঙ্গায় কাজ নেই। করোনা দুর্যোগের দীর্ঘ কর্মহীন সময়ে পারিবারিক টানাপড়েন ক্লান্ত জেলেরা। আবার মাছের দেখা না মিলায় ঘাটে বসেই অলস সময় কাটাচ্ছেন অনেকেই।

ষাটোর্ধ্ব এক জেলে জানান, ছোট ছেলে বলে তাকে জুতা কিনে দাও, আর মেজো ছেলে বলে আমাকে শার্ট কিনে দাও।

এ অবস্থায় মৎস্যজীবীদের বিকল্প কর্মসংস্থানের মাধ্যমে স্থায়ী সমাধানের তাগিদ ভোলা সদরের বাংলাদেশ ক্ষুদ্র মৎস্যজীবী জেলে সমিতির সভাপতি মো. এরশাদ ফরাজির।

তিনি বলেন, অভিযানের সময়ে জেলেদের বিকল্প কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা খুবই জরুরি। তা হলে জেলেরা ভালোভাবে ঈদ করতে পারবে।  

মেঘনা তেতুলিয়া মাছের অভাবে থাকা জেলার প্রায় দেড় লাখ ইলিশ শিকারির অধিকাংশরই মলিন ঈদ কেটেছে।

© ২০২১ সময় টিভি মিডিয়া নেটওয়ার্ক
সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত
DMCA.com Protection Status
সময় মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন
Somoy Tv App PlayStore Somoy Tv App AppleStore
ফলো সামাজিক সময়