সম্পূর্ণ নিউজ সময়
শিক্ষা সময়
১৪ টা ৮ মিঃ, ১০ মে, ২০২১

চাকরির প্রলোভনে রাবি শিক্ষকের ‘কুপ্রস্তাব’র অডিও ফাঁস

চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে এক নারীর সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কের প্রস্তাব দেয়ার অভিযোগ উঠেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে। নিয়োগের প্রলোভন সম্পর্কিত একটি অডিও কথপোকথন ছড়িয়ে পড়লে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শুরু হয় সমালোচনার ঝড়।
শিক্ষা সময় ডেস্ক

কথপোকথনে এক নারীর সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগ সম্পর্কিত আলাপ করতে শোনা যায়। এতে ওই নারীর সঙ্গে অন্তরঙ্গ আলাপ ও অনৈতিক প্রস্তাব দিতেও শোনা গেছে।

পুরুষের কণ্ঠটি বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের এক সহযোগী অধ্যাপক এবং পরিবহন দপ্তরের সাবেক প্রশাসকের বলে দাবি করেছেন তার সহকর্মীরা। কিন্তু এই কথপোকথনে পুরুষ কণ্ঠটি আসলেই ওই শিক্ষকের কিনা তার সত্যতা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এজন্য তার নাম প্রকাশ করা হচ্ছে না। তার সঙ্গে আলাপচারিতায় থাকা ওই নারীর পরিচয়ও জানা যায়নি। তবে ওই শিক্ষক এ বিষয়টি অস্বীকার করেছেন এবং মিথ্যা বলে দাবি করেছেন।

অডিও রেকর্ডে ওই নারীর সঙ্গে তার অন্তরঙ্গ আলাপ করতে শোনা যায়। কথপোকথনের এক পর্যায়ে ওই নারীকে বলতে শোনা যায়, চাকরিটা আমার খুব দরকার, আমার পরিবার ও আত্মীয়-স্বজনের সবার আর্থিক অবস্থা ভালো। শুধুই আমার আর্থিক অবস্থা খারাপ।

সালাম দেয়ার মাধ্যমে কথোপকথনের শুরু হয়।

কথোপকথনের অডিও সময়ের পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো-

পুরুষ : খেলা দেখছি।
নারী : খেলা দেখছেন?
পুরুষ: হুমম। তোমার মোবাইলে কি শব্দ বেশি নাকি?
নারী : না।
পুরুষ : সাইলেন্ট করে রাখা লাগবে।
নারী : আমার পাশে বাচ্চা ঘুমাচ্ছে।
পুরুষ : মোবাইল সাইলেন্ট করে রাখা লাগবে। ভাইব্রেশন দিয়ে রাখা লাগবে। মেয়েটা কোথায়?
নারী : ঘুমাচ্ছে আমার পাশে আছে।
পুরুষ : কি অবস্থা বল। শুনতে পাচ্ছে আমাদের কেউ?
নারী : সবাই ঘুমাচ্ছে। নীরব।
পুরুষ : কি অবস্থা বল।
নারী : একবার আমি ভাবলাম আপনার ওখানে যাবো। পরে..(অস্পষ্ট)..আর গেলাম না।

(এরপর থেকে তাদের মধ্যে অশ্লীল ও প্রকাশ অযোগ্য কথোপকথন শুরু হয়। এক পর্যায়ে তিনি ওই নারীকে অনৈতিক সম্পর্কের কুপ্রস্তাব দেন। এ নিয়ে তাদের মধে আলাপ চলতে থাকে। কথপোকথনের একপর্যায়ে চাকরিতে নিয়োগের বিষয়ে তাদের মধ্যে আলাপ হয়।)

পুরুষ : তোমার বাবার বাড়ি কোথায়?
নারী : আমার বাবার বাড়ি হেতেম খা। একেবারে বাজারের সামনে। কাস্টমস অফিসের সামনে। আমার ফ্যামিলি খুবই ভালো। আমার ফ্যামিলি অনেক বড় লোক। কিন্তু আমারই কপাল খারাপ। আমার বড় বোনের স্বামী পানি উন্নয়ন বোর্ডে, মেজটার স্বামী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার। আমারই খালি কপাল খারাপ। ফ্যামিলি তো খেতে দেবে না। সারা জীবন চলতে হলে ফ্যামিলি তো দেবে না।

এক পর্যায়ে ওই নারী বলেন, এই কারণেই বলছি আমার চাকরিটা খুব জরুরি। এর জবাবে তিনি বলেন, হ্যাঁ দিয়ে দেব, দিয়ে দেব। এরপর থেকে তাদের মধ্যে ফের অশ্লীল আলাপ চলতে থাকে।

একপর্যায়ে তিনি (পুরুষ) বলেন, কাল তুমি আমার ডিপার্টমেন্টে আস। তোমাকে দেখব।

নারী : অফিসের ভেতরে না। সবাই হুট করে চলে আসে। হুট করে ঢুকে পড়ে।
পুরুষ : তাহলে রোববার দিন, ঠিক আছে?
নারী : রোববার দিন।
পুরুষ : তুমি আবার কাউকে বলিও না।
নারী : না না। মানসম্মানের বিষয়... আমি মানসম্মান অনেক ভয় পাই।
পুরুষ : আচ্ছা। কেটে দাও।
নারী : আচ্ছা ঘুমান। সকালে আবার উঠতে হবে।

অডিও'র বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত শিক্ষক বলেন, ‘আমার সঙ্গে কখনও কোনো মেয়ের প্রেমালাপ হয়নি। এমনকি আমি কোনো নিয়োগ বাণিজ্যের সঙ্গেও জড়িত নই। বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু শিক্ষক উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে আমার মান সম্মান ক্ষুণ্ন করতে এই প্রচারণা করেছে। এ ঘটনার আমি তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।’

তিনি বলেন, ‘উপাচার্য অধ্যাপক সোবহান যাওয়ার দিন যে ১৪১ জনের নিয়োগ দিয়েছে, আমার কেউ চাকরি পায়নি। অনেকে বলে আমি চাকরি দিয়ে কোটি কোটি টাকা অর্জন করেছি। আসলে এসব ভুয়া। উপাচার্যের সঙ্গে আমার সম্পর্ক ভালো ছিল, তাই কেউ ষড়যন্ত্র করে এগুলো করেছে।’

তবে ওই শিক্ষকের সহকর্মীরা বলছেন অডিও রেকর্ডটি তার। নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষক জানান, তারা ওই শিক্ষকের কণ্ঠ চেনেন। রেকর্ডটি শুনে তারা ধারণা করছেন এটি তার কণ্ঠ।  

শিক্ষকরা বলছেন, প্রতিটি মানুষের কথায় আঞ্চলিকতার টান থাকে, ভয়েসের ফ্রিকোয়েন্সি থাকে যা আরেকজন চাইলেই সহজে নকল করতে পারে না। আমাদের কাছে সেটা তার কণ্ঠ বলেই মনে হয়েছে। শিক্ষকদের দাবি- এ বিষয়ে তদন্ত করা হোক। দোষী যেই হোক তাকে আইনের আওতায় আনা হোক।

ওয়াসিফ/

© ২০২১ সময় টিভি মিডিয়া নেটওয়ার্ক
সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত
DMCA.com Protection Status
সময় মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন
Somoy Tv App PlayStore Somoy Tv App AppleStore
ফলো সামাজিক সময়