সম্পূর্ণ নিউজ সময়
মহানগর সময়
১৯ টা ৪৪ মিঃ, ৯ মে, ২০২১

করোনা ঝুঁকি নিয়েই মানুষ ছুটছে বাড়ির পথে

করোনার ঝুঁকি নিয়েই বাড়ির পানে ছুটছে হাজার হাজার মানুষ। ব্যাপক নজরদারির মধ্যেও ফেরিতে উঠতে মরিয়া যাত্রীরা। 
বেলায়েত হোসাইন

রাত বাড়তেই ঘাটে ঘরমুখো মানুষের চাপ বাড়ে কয়েকগুণ। যে কোন উপায়ে ফেরিতে ওঠার চেষ্টা তাদের। বিজিবিও ঠেকাতে পারছে না জনস্রোত।

করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি কিংবা দুর্ঘটনার শঙ্কা: কোনো কিছুই থামাতে পারছে না তাদের। ফেরিতে ওঠার এই প্রাণপণ চেষ্টা কেবল বাড়ি ফেরার তাড়নায়।

সন্ধ্যা গড়াতেই গাড়ির দীর্ঘ সারিতে ভোগান্তি বেড়েছে কয়েক গুণ। ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকা পড়ে থাকে জরুরি পরিবহন। রাতের আঁধারেও মানুষের ঢলে তিল ধারণের ঠাঁই নেই মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ফেরিঘাটে।

এক যাত্রী বলেন, লকডাউনে সবকিছু বন্ধ করে দেন আমরা বাড়িতে যাব না। কারো মা অসুস্থ, কারো বাবা অসুস্থ। আরও কত সমস্যা আছে।

পারাপারের অপেক্ষায় ঘাটে এই জনস্রোত ভোর থেকেই। জরুরি সেবার পরিবহন ভেড়ার আগেই ফেরিতে ওঠার প্রতিযোগিতায় পাল্টে যায় দৃশ্যপট। জরুরী সেবার ফেরি চলে যায় যাত্রীদের দখলে।

আরেক যাত্রী বলেন, যারা মরদেহ নিয়ে যাচ্ছেন, যারা অসুস্থ, ফেরিতে তাদের অগ্রাধিকার দেওয়া উচিত।

লকডাউন, কঠোর বিধিনিষেধসহ নানা পদক্ষেপে করোনা সংক্রমণের লাগাম টানার চেষ্টা করছে সরকার। 

শেষমেষ রোববার (৭ মে) থেকে পুলিশের পাশাপাশি মোতায়েন করা হয় বিজিবি। কিন্তু কোন কিছুই গতিরোধ করতে পারছে না ঘরমুখো মানুষের।

মুন্সিগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আসাদুজ্জামান বলেন, লাশ কিংবা রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্স আসলে তাদের জন্য বিশেষ বিবেচনায় এক থেকে দুটি ফেরি চলাচল করছে।

আর মুন্সিগঞ্জের বিআইডব্লিউটিসির সহকারী মহাব্যবস্থাপক সফিকুল ইসলাম বলেন, সব বাধা অতিক্রম করে ছোট ছোট বাচ্চাদের সঙ্গে নিয়ে তারা বাড়িতে ফিরছেন।

শিশু ও বয়স্কদের নিয়ে যে যেভাবে পারেন উঠেছেন ফেরিতে। যাত্রী কিংবা পরিজন নিয়ে মোটরসাইকেলেও পারাপারের চেষ্টা করেন কেউ কেউ।

কোনো ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী।

© ২০২১ সময় টিভি মিডিয়া নেটওয়ার্ক
সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত
DMCA.com Protection Status
সময় মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন
Somoy Tv App PlayStore Somoy Tv App AppleStore
ফলো সামাজিক সময়