সম্পূর্ণ নিউজ সময়
শিক্ষা সময়
১৪ টা ৪০ মিঃ, ৯ মে, ২০২১

মৃত্যু শয্যায় হাবিপ্রবির সহকারী পরিচালক, ভুল চিকিৎসার অভিযোগ

হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের সহকারী পরিচালক মোমিনুল ইসলাম (৩৮) ভুল চিকিৎসার শিকার হয়ে রাজধানীর কল্যাণপুরের বাংলাদেশ স্পেশালইজড হাসপাতালে (বিএসএইচ) মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন।
শিক্ষা সময় ডেস্ক

রোগীর স্বজনরা অভিযোগ করেছেন, অভিভাবকের লিখিত অনুমতি ছাড়াই ব্রেইন টিউমারে অস্ত্রোপচারের নামে ভুল চিকিৎসা করায় রোগীর শারীরিক অবস্থা দিন দিন খারাপ হলেও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কোনো দায় নিচ্ছে না।

এ ব্যাপারে রোগীর (মোমিনুল) স্ত্রী রেশমা আক্তার শিউলি বলেন, গত মাসের ১৫ এপ্রিল স্বামীর চোখের সমস্যাজনিত কারণে রংপুরে একটি বেসরকারি হাসপাতালে এমআরআই পরীক্ষা করানোর পর স্থানীয় চিকিৎসকেরা মস্তিষ্কে ক্যানসার সন্দেহ করেন।

তাদের পরামর্শে আমার স্বামীকে বাংলাদেশ স্পেশালাইজ হাসপাতালের নিউরোসার্জারি বিভাগের চিকিৎসক অধ্যাপক মো. রাজিউল হককে দেখাই। তিনি ব্রেইন টিউমারের কথা জানিয়ে প্রয়োজনীয় ওষুধ লিখে ১৫ দিন পর যোগাযোগ করতে বলেন।

এরপরে ২৫ এপ্রিল বিকেলে রাজিউল হককে দেখানোর পর তিনি দ্রুত অপারেশন করার পরামর্শ দেন। এরপর অপারেশনের বিস্তারিত বর্ণনা না করেই তড়িঘড়ি করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এবং ডাক্তাররা সার্জারির ব্যবস্থা করেন। 

গত ২৭ এপ্রিল বিকেলে অপারেশনের মাত্র এক ঘণ্টা পরেই ডা. রাজিউল হক অপারেশন থিয়েটার থেকে বের হয়ে বলেন, তিনি টিউমার অপসারণ করে তার কাজ শেষ করেছেন। অন্যান্য ডাক্তাররা অপারেশন শেষ করবেন। 

কিন্তু অপারেশনের পর তিন দিন পরেও রোগীর কোনো প্রকার অনুভূতি, জ্ঞান বা কথা বলার ক্ষমতা কোনো কিছুই ফিরে না আসায় আমাদের প্রশ্নের মুখে ডাক্তারের সহকর্মীরা বলেন, এই টিউমার সম্পূর্ণ অপসারণ সম্ভব নয়। আমরা ৬০-৭০% অপসারণ করেছি, বাকিটা ৩ সপ্তাহ পর রোগীর সিজিএফ (অনুভূতি জ্ঞান) বৃদ্ধি হলে, ক্ষত সারলে এবং ইমিউনিটি ঠিকঠাক থাকলে তবেই রেডিয়েশনের মাধ্যমে সম্পূর্ণ টিউমার অপসারণ করা হবে। অন্যথায় এই ধরনের গ্ল্যালন্ড-৪ (ক্যান্সার) আক্রান্ত রোগীর বেঁচে থাকার অনুপাত খুবই সামান্য।

মোমিনুলের স্ত্রী আরও বলেন, এ ধরনের মন্তব্যে আমরা হতবাক এবং মানসিকভাবে ভেঙে পড়ি। পরবর্তীতে আমরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বিশ্ববিদ্যালয়ের নিউরোসার্জারি বিভাগের একজন অধ্যাপককে রিপোর্ট দেখানোর পর তিনি জানান, এই ধরনের কেইসে অপারেশনের পর রেডিওথেরাপি কোনোভাবেই কাম্য নয়। 

প্রথমে রেডিওথেরাপি দিয়ে টিউমারকে সংকুচিত করে পরবর্তীতে অপারেশন করে প্রায় সম্পূর্ণ টিউমার অপসারণ করা সম্ভব হয়। এটাই উপযুক্ত চিকিৎসা।

এ ব্যাপারে কথা বলতে ডা. রাজিউল হকের ব্যক্তিগত মোবাইলে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি। পরে এ ব্যাপারে হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. মনোয়ার সাদিকের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অস্ত্রপচারের আগে রোগীর অভিভাবকের লিখিত অনুমতি না নেওয়ার অভিযোগ তদন্ত করে দেখবো।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাব শাখার কর্মকর্তা এবং মোমিনুল ইসলামের দীর্ঘদিনের সহকর্মী রাকিবুল ইসলাম লিমন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আমাদের সুস্থ মোমিনুল ভাইকে ভুল চিকিৎসা করে যারা মৃত্যু শয্যায় পাঠিয়েছে তাদের বিচার চাই।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রুটিন উপাচার্য অধ্যাপক ড. বিধান চন্দ্র হালদার বলেন, আমি মোমিনুলের দ্রুত সুস্থতা কামনা করছি। তার যদি কোনো সহযোগিতার প্রয়োজন হয়, তাহলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন অবশ্যই তার পাশে থাকবে।

মুবাশ্বির/

© ২০২১ সময় টিভি মিডিয়া নেটওয়ার্ক
সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত
DMCA.com Protection Status
সময় মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন
Somoy Tv App PlayStore Somoy Tv App AppleStore
ফলো সামাজিক সময়