সম্পূর্ণ নিউজ সময়
বাংলার সময়
১৫ টা ২৩ মিঃ, ৬ মে, ২০২১

করোনাকালে মালচিং চাষাবাদে সফল দুই বন্ধু

রাজীবুল হাসান

গাজীপুরে মালচিং পদ্ধতিতে চাষাবাদ হচ্ছে বেবি তরমুজ ও নানা জাতের সবজি। বিষমুক্ত সবজি ও ফলের কথা মাথায় রেখে দুই তরুণ বায়োগ্রিন অ্যাগ্রো ফার্মে এসব চাষাবাদ করছেন। কৃষি গবেষকরা মনে করেন, মাঠ পর্যায়ে আধুনিক এ প্রযুক্তি প্রয়োগ করা গেলে উপকৃত হবেন কৃষকরা।  

মাচায় ঝুলে আছে সারি সারি তরমুজ। বেবি জাতের হলুদ ও কালো এসব ফল খেতেও বেশ মিষ্টি। আধুনিক মালচিং প্রযুক্তিতে চাষাবাদ করায় নির্দিষ্ট সময়ে এসেছে ফলন। ফলে খামার থেকে উৎপাদিত ফসল তুলতে এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন খামারিরা।

শহরের ছোট দেওরায় নিজের সাড়ে চার বিঘা পতিত জমিতে কৃষিবিদ শাহাদত হোসেন তার বন্ধু ইশতিয়াক মুনীমকে নিয়ে খামারটি করেন। তরমুজ ছাড়াও তাদের এখানে বেগুন, লাউ ও চিচিঙ্গাসহ ১৬ প্রকারের সবজি রয়েছে। অনেকটা সখের বশে করা এ কৃষিকাজ আজ পরিণত হয়েছে লাভজনক খামারে।

শাহাদত হোসেন জানান, করোনাকালে ঘরেবন্দি না থেকে কিছু একটা করার পরিকল্পনা থেকেই এমন খামার করার পরিকল্পনা করেন তিনি। যাতে করে নিজে ও আশাপাশের প্রতিবেশীরাও লাভবান হতে পারেন। সেই উদ্দেশ্য নিয়েই আধুনিক প্রযুক্তির এই খামার গড়েছেন তিনি।

ইশতিয়াক মুনীম বলেন, নগর ভোক্তাদের কথা মাথায় রেখে এই খামারটি করা হয়েছে। যাতে একজন ভোক্তা নিজে হাতে খামার থেকে সবজি কিনে নিয়ে যেতে পারে সে উদ্দেশ্যেই এই খামারটি গড়ে তোলা হয়েছে।

পোকামাকড় দমন ও নির্দিষ্ট তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে এ প্রযুক্তিতে চাষাবাদ করলে কৃষকরা উপকৃত হবেন বলে মনে করেন গবেষকরা।

বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের, গাজীপুরের বীজ প্রযুক্তি বিভাগের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. সাদিকুর রহমান বলেন, মালচিং পদ্ধতিতে চাষাবাদ করলে কৃষকের শ্রমিকের খরচ অনেক কমে যাবে। পাশাপাশি ফলনও বেশি হবে। এ পদ্ধতিতে চাষাবাদ সম্প্রসারণ করতে পারলে কৃষকরা আরও আগ্রহী হবেন। 

রোপণের ৬০ দিনের মধ্যে পরিপক্ব এসব তরমুজের ওজন হয় ২ থেকে ৩ কেজি পর্যন্ত।

© ২০২১ সময় টিভি মিডিয়া নেটওয়ার্ক
সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত
DMCA.com Protection Status
সময় মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন
Somoy Tv App PlayStore Somoy Tv App AppleStore
ফলো সামাজিক সময়