ফাইয়াজ আহমেদ
আপডেট
০৪-১২-২০২০, ২০:৫০

প্রতি শুক্রবার উইঘুর মুসলমানদের জোর করে শুয়োর খাওয়ায় চীন

প্রতি শুক্রবার উইঘুর মুসলমানদের জোর করে শুয়োর খাওয়ায় চীন
সংখ্যালঘু মুসলিম উইঘুর নারী সায়রাতুল সৌতবায়। চীনের পশ্চিমাঞ্চলীয় জিয়ানজিয়ান প্রদেশে তথাকথিত পুনর্শিক্ষণ শিবির থেকে দুই বছর আগে ছাড়া পেয়েছেন। আটককালে তার বিরুদ্ধে চালানো সহিংসতা, অপদস্ত-অপমানের দুঃস্বপ্ন এখনও তাড়া করে বেড়ায় দুই সন্তানের এ জননীকে।

সৌতবায় পেশায় একজন চিকিৎসক, শিক্ষবিদ। বর্তমানে সুইডেনে বসবাস করছেন তিনি। সম্প্রতি তার একটি বই প্রকাশ হয়েছে। যাতে তার অগ্নিপরীক্ষার বিস্তারিত উঠে এসেছে। তুলে ধরা হয়েছে, কাছ থেকে দেখা নির্যাতন, যৌন নিপীড়ন, জোরপূর্বক বন্ধ্যাকরণসহ নানাধরনের নৃশংসতার বর্ণনা।

সম্প্রতি আল জাজিরাকে দেওয়া সাক্ষাতকারে উইঘুর মুসলমানদের বিরুদ্ধে চালানো চীনা সরকারের নির্মমতা বিশেষভাবে উত্থাপন করেন তিনি। উঠে আসে ইসলামে কঠোরভাবে নিষিদ্ধ শুয়োরের মাংস খেতে বাধ্য করা হয় উইঘুর মুসলমানদের।

সৌতবায় বলেন, প্রতি শুক্রবার আমাদের জোরপূর্বক শুয়োরের মাংস খেতে বাধ্য করা হতো। তারা সচেতনভাবে মুসলমানদের কাছে অতি এ পবিত্র দিনটিকে বেছে নিয়েছে শুয়োরের মাংস খাওয়ানোর জন্য। যদি আপনি শুয়োরের মাংস প্রত্যাখ্যান করেন, আপনাকে কঠোর শাস্তি পেতে হবে।

‘এই কাজটি করা হতো আটক উইঘুররা যাতে মুসলমান হওয়ার কারণে অপমানবোধ করে, নিজেকে অপরাধী মনে করে। শুয়োরের মাংস খাওয়ার সময় আমাদের কতটা খারাপ লাগতো, তা ভাষায় প্রকাশ করা কঠিন।’ বলেন তিনি।

‘নিজেকে আমার কাছে অপরিচিত একজন মানুষ মনে হতো। চারপাশে ঘুটঘটে অন্ধকার থাকতো সবসময়। সত্যি বলছি, ভয়াবহ এ পরিস্থিতি আমি কখনো মেনে নিতে পারিনি।’



সৌতবায় এবং অন্য সাক্ষাতকার প্রদানকারীদের বর্ণনায় উঠে আসে জিনজিয়ানে ২০১৭ সাল থেকে আটক কেন্দ্র তৈরি, নজরদারিসহ নানারকম নির্মমতার মাধ্যমে সংখ্যালঘু মুসলমানদের ধর্মীয় বিশ্বাস এবং সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে কিভাবে চীনা সরকার মুছে ফেলছে। যদিও এ নৃশংসতাকে উগ্রবাদবিরোধী পদক্ষেপ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করছে চীন।

তবে আল জাজিজার কাছে যেসব তথ্য প্রমাণ এসেছে এবং জার্মানি অ্যানথ্রোপোলজিস্ট এবং উইঘুর স্কলার অ্যাড্রিয়ান জেন্সের বক্তব্য অনুযায়ী বেইজিংয়ের কৃষি উন্নয়ন পরিকল্পনাও উইঘুরদেরকে তাদের ধর্মবিশ্বাস থেকে দূরে সরানোর পদক্ষেপের অংশ।

জেন্সের বক্তব্য, নথিপত্র এবং চীনের রাষ্ট্রীয় অনুমোদিত নিবন্ধে উইঘুর মুসলমাদের অভিযোগের সত্যতার প্রমাণ মেলে। উইঘুরদের অভিযোগ, জিনজিয়ানে শুয়োরের খামার স্থাপন এবং বিস্তৃতকরণে সক্রিয়ভাবে কাজ করে যাচ্ছে বেইজিং।

২০১৯ সালের নভেম্বরে জিনজিয়ানের শীর্ষ প্রশাসনিক কর্মকর্তা সোহরাত জাকির বলেন, স্বায়ত্বশাসিত অঞ্চলটি শুয়োর উৎপাদনের বৃহত্তর কেন্দ্র হতে যাচ্ছে। উইঘুররা বলছেন, এটি তাদের জীবনযাপনের সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

মে মাসে প্রকাশিত একটি নিবন্ধনের বরাতে জেন্স জানান, দক্ষিণাঞ্চলীয় কাশগরে একটি নতুন খামার করার ঘোষণা দেওয়া হয়। যেখান থেকে প্রতিবছর ৪০ হাজার শুয়োর উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা তাদের।

চীনা ভাষার ওয়েবসাইট সিনা জানিয়েছে, কাশগরের কোনাক্সাহার কাউন্টি, বর্তমানে ওই কাউন্টির পরিবর্তিত নাম শুফু, সেখানে ওই প্রকল্পের জন্য ২৫ হাজার বর্গমিটার এলাকা গ্রহণ করা হচ্ছে।

২৩ এপিল রমজানের প্রথমদিন শুয়োর উৎপাদন কেন্দ্র স্থাপনের আনুষ্ঠানিক চুক্তি হয়। রমজান মুসলমানদের কাছে অত্যন্ত পবিত্র এবং গুরুত্বপূর্ণ মাস। সে সময় কর্তৃপক্ষ জোর দিয়ে জানায়, রফতানির জন্য শুয়োরের খামার তৈরি করা হচ্ছে না। কাশগরে শুয়োর সরবরাহ নিশ্চিত করতেই খামার স্থাপন করা হচ্ছে।

কাশগর এবং এর আশপাশের বাসিন্দাদের ৯০ শতাংশই মুসলমান।

আল জাজিরাকে জেন্স বলেন, জিনজিয়ানের মানুষের সংস্কৃতি এবং ধর্মীয় বিশ্বাস চিরতরে মুছে ফেলার অংশ হিসেবে এ পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করছে সরকার। উইঘুরদের ধর্মনিরপেক্ষ বানানো, তাদেরকে কমিউনিস্ট পার্টির শিক্ষা দেওয়া, তাদেরকে নাস্তিক বা অবিশ্বাসী বানাতে এ পরিকল্পানা। যোগ করেন জেন্স।

তিন কুফল

২০০৯ সালে আঞ্চলিক রাজধানী উরুমকিতে ছড়িয়ে পড়া ভয়াবহ দাঙ্গার পরই এ পদক্ষেপ গ্রহণ শুরু করে চীন। তাদের এ নীতি, তিনটি কুফল মোকাবিলার জন্য বলেও দাবি করে তারা। যে তিনটি কুফল মোকাবিলার জন্য এ নীতি, বেইজিংয়ের দাবি অনুযায়ী সেগুলো হলো উগ্রবাদ, বিচ্ছিন্নতাবাদ এবং সন্ত্রাসবাদ।

জিনজিয়ানে চীনের তৈরি আটক কেন্দ্র ১০ লাখের বেশি উইঘুরকে বন্দি করে রাখা হয়েছে বলে জানায় জাতিসংঘ। যদিও বিভিন্ন মানবাধিকার সংস্থার তথ্য মতে, এ সংখ্যা ৩০ লাখের বেশি। তবে এসব দাবি অস্বীকার করে আসছে বেইজিং। তারা বলছে, আটক কেন্দ্র নয়, এগুলো ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টার। যেখানে উইঘুরদের প্রাতিষ্ঠানিকভাবে হাতে কলমে দক্ষতা বাড়াতে নতুন নতুন প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়।

সৌতবায়ের মতো উইঘুরের ব্যবসায়ী নারী জুমরেত দাউয়ুতকেও বন্দিশালায় আটক থাকার সরাসরি অভিজ্ঞতা রয়েছে। ২০১৮ সালের মার্চে তার জন্মস্থান উরুমকি থেকে তাকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।

বন্দিশালায় তাকে দু’মাস আটকে রাখা হয়। এসময়ে তার স্বামীর জন্মভূমি পাকিস্তানের সঙ্গে তার সম্পর্কের বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চাওয়া হয়। জিজ্ঞাস করা হয়, তার সন্তান কতজন? তারা ধর্মীয় শিক্ষা গ্রহণ করেছে কিনা? কুরআন পড়তে জানে কিনা? তিনি বলেন, তাকে অব্যাহতভাবে অপদস্ত করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে একবার মনপুত উত্তর না পেয়ে জিজ্ঞাসাবাদকারীরা তাকে কাগজের মোটা রোল দিয়ে পিটিয়েছিল।

আরেক বার, আটক কেন্দ্রের পুরুষ কর্মকর্তাদের কাছে তিনি অনুয়ন-বিনয় করে বলেন, যেন তাকে বিশ্রাম কেন্দ্রে যেতে দেওয়া হয়। এসময় শুধু হাতকড়া খুলে দেওয়া হয়। যতক্ষণ টয়লেটে ছিলেন, সে দৃশ্য পুরো সময় ধরে কর্মকর্তা দেখেছে বলেও জানান তিনি।

তাকে প্রতিদিন শুয়োরের মাংস খেতে দেওয়া হতো বলেও জানান তিনি।

‘বন্দিশালায় কি খাবেন, আর কি খাবেন না, তা আপনি নির্ধারণ করতে পারবেন না। বেঁচে থাকার জন্য শুয়োর মাংস খেতে আমরা বাধ্য হয়েছি।’ দোভাষীর মাধ্যমে আল জাজিরাকে দেওয়া সাক্ষাতকারে তিনি এ কথা বলেন।

এ বর্বর অভিজ্ঞতা পরবর্তীতে তার সাথে ঘটে যাওয়া ঘটনাকে হার মানিয়েছে বলে জানান তিনি। বলেন, একটু আগে যা ঘটেছে সে অভিজ্ঞতা দিয়ে পরে যা ঘটবে তা থেকে নিজেকে রক্ষা করা আপনার জন্য অসম্ভব।

তিনিসহ আরও অনেক নারীকে সন্তান জন্মদানক্ষমতা নষ্ট করে দেওয়ার জন্য বন্ধ্যা করা হয়েছে। বিতর্কিত এ ঘটনা নিয়ে চলতি বছরের শুরুতে মার্কিন বার্তা সংস্থা অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস (এপি) একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। পরে তীব্র নিন্দার ঝড় ওঠে সর্বত্র।



শিশুকাল থেকে হারাম খাবারে অভ্যস্ত করা হয় মুসলিম শিশুদের

সৌতিবায় ইলির বাসিন্দা। আটকের পর তিনি সেখানে ছিলেন। পরে যখন কর্তৃপক্ষ জানতে পারে তার স্বামী দুই সন্তানসহ ২০১৬ সালে প্রতিবেশী কাজাখাস্তান চলে যায়, তখন তাকে অন্য বন্দিশালায় নিয়ে যাওয়া হয়।

স্বামী, সন্তানদের সঙ্গে কাজাখাস্তানে যাওয়া পরিকল্পনা ছিল তারও। কিন্তু তার মধ্যেই কর্তৃপক্ষ পাসপোর্ট বাজেয়াপ্ত করে দেয়। এরকম আরও সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ক্ষেত্রেও হয়েছে।

সৌতিবায়ের যেহেতু মেডিকেলের ব্যাকগ্রাউন্ড ছিল এবং প্রিস্কুলে পড়ানোর অভিজ্ঞতা ছিল। তাই তাকে অন্য বন্দিদের চীনা ভাষা শেখানোর দায়িত্ব দেওয়া হয়। পাশাপাশি তাকে উইঘুরদের সঙ্গে কি হচ্ছে তা পর্যবেক্ষণের সুযোগ দেওয়া হয়।

উত্তর জিনজিয়ানের একটি শহর আটলে। সেখানকার বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদেরও শুয়োরের মাংস খেতে বাধ্য করা হচ্ছিল। তখন শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করে। পরে সরকার বিষয়টিতে হস্তক্ষেপের জন্য সেখানে সেনাবাহিনীর সদস্যদের পাঠায়। বলেন সৌতিবায়।

কিন্ডারগার্টেনের মুসলিম শিশু শিক্ষার্থীদের জন্য বিনামূলে খাবার দেওয়ার একটি পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করছে। তাদের অজান্তেই খাবারে শুয়োরের মাংস দেওয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

মুসলিম শিশুরা ছোটবেলা থেকে যাতে হারাম খাবারে অভ্যস্ত হয়ে উঠে সেজন্য এসব করা হচ্ছে। উইঘুরসহ অন্যান্য মুসলিম জনগোষ্ঠীকে শুয়োরের মাংস খেতে বাধ্য করতে চীন নানা ধরনের পদ্ধতি, পরিকল্পনা, নীতি ব্যবহার করেছ, বলেন সৌতিবায়।

গেল বছর ইতালি ভিত্তিক এশিয়ানিউজের একটি প্রতিবেদনে বলা ছয়, সবশেষ চীনা লুনার বছরকে ‘শুয়োরের বছর’ আখ্যা দেয়া হওয়। ইলির কর্মকর্তারা মুসলমানদের ঘরে সরাসরি শুয়োরের মাংস পাঠায়। উৎসবের সময়ে ঘরবাড়ি সাজানোর জন্য মুসলমানদের বাধ্য করে।

‘হারাম বস্তুকে কৌশলে স্বাভাবিক করা হচ্ছে’

তুরস্কভিত্তিক উইঘুর মানবাধিকারকর্মী ও উইঘুর পুনরুদ্ধার সমিতির মহাসচিব আরসলান হিদায়াত আল জাজিরাকে বলেন, চীনা সরকার চায় মুসলমানরা শুয়োর উৎপাদন করবে, শুয়োরের মাংস খাবে, মদ খাবে। তাদের মূল লক্ষ্যই হলো মুসলমানদের নিষিদ্ধ কাজে স্বাভাবিক করে গড়ে তোলা। জিনজিয়ানে তারা সেই কাজটাই করছে।

২০১৮ সালে রাষ্ট্রীয় নীতির অংশ হিসেবে জিনজিয়ানের সরকার ঘোষণা দেয় এ অঞ্চলের হালাল রেস্তোরাঁগুলো রমজান মাসে অন্যান্য সময়ের মতো স্বাভাবিক নিয়মে পরিচালনা করতে হবে। যা গেল বছরের সাথে সাংঘর্ষিক। ওই সময় রমজান মাসজুড়ে হালাল রেস্তোরাঁ বন্ধ ছিল।

সে সময় জিনজিয়াংয়ের সরকারি ওয়েবসাইটটে মুসলিম ফুড এস্টাবলিস্টমেন্টের সঙ্গে করা একটি সমঝোতা প্রকাশ করা হয়। বলা হয়, রমজান মাসে স্বাভাবিক জীবনযাপন বজায় রাখতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

তবে জেন্স জানান, সরকার নিশ্চিত করতে চেয়েছে উইঘুররা রমজানে রোজা রাখে না, তারা খাওয়া-দাওয়া সবকিছু করছে।

চীনা ভাষায় লেখা আরও দুটি সরকারি নথি তিনি আল জাজিরাকে দেখিয়েছেন। দেখা যায়, সরকার কাশগড়ে রমজান মাসে অধিকাংশ মুসলমানের জন্য খাবার সরবরাহের অর্থ বরাদ্দ দিয়েছে।

জেন্স বলেন, ইসলামে মুসলমানদের দৈনন্দিন জীবনে হালাল অনুসরণ এবং হারাম বর্জনের কথা বলা হয়েছে। চীনা সরকার রাষ্ট্রীয়ভাবে হালালের বিরুদ্ধে যুদ্ধে নেমেছে।

২০১৮ সালে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, উরুমকিতে হালালবিরোধী একটি প্রচারণাও হয়। সেখানে ইসলামী জীবনব্যবস্থা বাদ দিয়ে ধর্মনিরপেক্ষ জীবনধারাকে উৎসাহী করা হয়। বলা হয়, ইসলাম উগ্রবাদকে উস্কে দিচ্ছে।



‘উগ্রবাদ’

উইঘুর বিষয়ে চীনের সামগ্রিক নীতি নিয়ে আল জাজিরার সঙ্গে কথা বলেছেন বেইজিংভিত্তিক চীন বিষয়ক বিশেষজ্ঞ আইনার তানগেন। বলেন, চীনা সরকার খুব ভালোভাবে অনুধাবন করেছে যে, জিনজিয়ানের বাসিন্দাদের অনেকে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে উগ্রবাদী হয়ে গেছে।

চীনের দৃষ্টিতে জিনজিয়ান সংকট সমাধানের একটাই পথ তাদেরকে ছোটবেলা থেকে শিক্ষার আওতায় নিয়ে আসা। শিবিরগুলোতে সে শিক্ষাই দেওয়া হচ্ছে। বলেন আইনার।

তিনি আরও বলেন, সরকার যা বলছে তা হলো, তারা সাধারণ মানুষকে শিক্ষাকেন্দ্রে নিয়ে আসছে। তাদের দক্ষতা, ভাষা, ইতিহাস শিক্ষা দেওয়া হচ্ছে। যাতে তারা নিজেদের স্বাবলম্বী করতে পারে।

তবে মানবাধিকারকর্মী হিদায়েত বলেন, বেশ কয়েকজন উইঘুর আছেন, যারা সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী। তারা চীনের হান সম্প্রদায়ের মতো জীবনধারণের চেষ্টা করেছেন। তাদেরও বন্দিশালায় নেওয়া হয়েছে। শুধুমাত্র তাদের ধর্মীয় পরিচয়ের কারণে।

তানগেন দাবি করেন, কয়েক বছরের মধ্যে জিনজিয়ানের পরিস্থিতি নাটকীয়ভাবে উন্নত হয়েছে। মানুষের জীবনমান আগের চেয়ে ভালো হয়েছে। তাদের গড় আয়ু বেড়েছে। বেড়েছে সুযোগসুবিধাও।

আরো বলেন, পশ্চিমারা সবসময় বিতর্ক তৈরি করছে। বলে আসছে, মানবাধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে। বাকস্বাধীনতা হরণ করা হয়েছে। জীবনযাপনের জন্য অর্থনীতি, খাবার অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা বেশি গুরুত্বপূর্ণ। অধিকারের গুরুত্ব খুব বেশি না।

জোরপূর্বক শুয়োর খাওয়ানো হচ্ছে সুনির্দিষ্ট এ অভিযোগের বিষয়ে তনগেন বলেন, এ তথ্য সত্য কিনা তা আমি জানি না। যদি সেরকম কিছু হয়ে থাকে, তাহলে তা কেন্দ্রীয় সরকারের নীতির অন্তর্গত নয়।

বন্ধ্যাকরণের নথিপত্র আল জাজিরা পেয়েছে। এপি এ বিষয়ে আরও বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এ বিষয়ে তানগেন বলেন, আমি নিশ্চিত এমন কিছু ঘটছে, যা হওয়া উচিৎ নয়। তবে আমার কাছে তথ্য প্রমাণ না থাকায়, অভিযোগের সত্যতা নির্ধারণ করা সম্ভব হচ্ছে না।

তিনি বলেন, চীনে বহু সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী রয়েছে। তাদের কেউ কেউ অপরাধ করে থাকতে পারেন। মূল বিষয় হচ্ছে, তাদের শনাক্ত করে শাস্তির আওতায় আনা জরুরি।

চীনের কেন্দ্রীয় সরকার এ বিষয়ে খুব কম কথা বলেছে। যদিও জিনজিয়ান প্রশাসন সৌতবায় এবং দাওয়তের অভিযোগের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে।

জার্মান অ্যানথ্রোপোলজিস্টের বিরুদ্ধে মিথ্যচার এবং তথ্য বিকৃতির অভিযোগ ‍তুলেছে বেইজিং। তাদের অভিযোগ, যুক্তরাষ্ট্র সরকারের ডানপন্থীদের সঙ্গে তার যোগাযোগ রয়েছে। চীনা পর্যবেক্ষকরাও জিনজিয়ান এবং উইঘুর ইস্যুতে তার আকস্মিক দক্ষতায় বিস্ময় প্রকাশ করেছে।

চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়েরে আনুষ্ঠানিক বক্তব্য চেয়েছে আল জাজিরা। কিন্তু তারা কোনো সাড়া দেয়নি। চীনা ইউনিভার্সিটি অব পলিটিক্যাল সাইন্স অ্যান্ড ল’র ইনস্টিটিউট ফর হিউম্যান রাইটস ডিপার্টমেন্টের কাছেও মন্তব্য চেয়েছে, প্রতিবেদন প্রকাশের আগ পর্যন্ত তারাও কোনো উত্তর দেয়নি।

উইঘুরের ব্যবসায়ী নারী দাওয়ুত বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে নির্বাসিত জীবনযাপন করছেন। বলেন, বন্দিশালায় তার সঙ্গে ঘটে যাওয়া নৃশংসতাই তিনি বর্ণনা করেছেন।

কাজাখ মেডিকেল ডাক্তার সৌতবায় বলেন, আমি আমার নির্মম কাহিনী শুনিয়েছি যাতে, এখনও যারা বর্বরতার শিকার হয়ে চুপ করে আছেন, তারা যাতে মুখ খোলার শক্তি পান, সাহস পান।

তিনি আরও বলেন, বন্দিশিবিরে আমার সাথে যা হয়েছে তা কখনও স্মৃতি থেকে মুছে ফেলা সম্ভব নয়। সারজীবন আমাকে এ যন্ত্রণা বয়ে বাঁচতে হবে।

মূল লেখক: টেড রেজেন্সিয়া, অনলাইন জার্নালিস্ট, আল জাজিরা।



DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ
করোনা ভাইরাস লাইভ আপডেট
আক্রান্ত চিকিৎসাধীন সুস্থ মৃত্যু
৫৩১৩২৬ ৪৭৪২৪ ৪৭৫৮৯৯ ৮০০৩
বিস্তারিত
ফুটন্ত রসে পড়ে নাতির মৃত্যু, ঝলসে গেল দাদার দু’হাত দ্বিতীয়বারের মতো স্থগিত হলো এশিয়ান হকি চ্যাম্পিয়নশিপ রোববার মুখোমুখি হচ্ছে ম্যানইউ-লিভারপুল ইউটিউব চ্যানেল খোলার নেপথ্যের কারণ জানালেন বুবলী অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের ক্যাম্প ২৬ জানুয়ারি সিলেট ক্রিকেট স্টেডিয়াম গ্রাউন্ড-২ এর আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির আবেদন আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পেলেন দুবারের এমপি জজ মিয়া ব্যাটিং পারফরম্যান্সে হতাশ ক্যারিবীয় কোচ ফিল সিমন্স লটারিতে মিলল সাড়ে ৮ হাজার কোটি টাকা চুরির ৩ দিন পর শিশু উদ্ধার, গ্রেফতার ২ ১০০ টাকা বাজিতে চা খেয়ে হাসপাতালে ‘বাজিকর’ সংসদ একরামুলের বহিষ্কার দাবি মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের পাঁচ মাসে ৩১ বার করোনা পরীক্ষা, প্রতিবারই পজিটিভ! চসিক নির্বাচন: ভোটের দিন থাকছে না সাধারণ ছুটি এবার কাদেরকে বীর মুক্তিযোদ্ধা বললেন একরামুল (ভিডিও) নারী কর্মচারীকে ধর্ষণের অভিযোগে মালিক গ্রেফতার প্রতিদিন গোসলে যা করলে ত্বকের পরিবর্তন হবে হাইকোর্টের সামনে ছুরিকাঘাতে একজন নিহত অ্যান্ডারসনের রেকর্ড, সুবিধাজনক অবস্থানে ইংল্যান্ড অন্তঃসত্ত্বা প্রেমিকার বিরুদ্ধে মামলা করতে এসে প্রেমিক আটক! জাহাজ নির্মাণ শিল্পের উন্নয়নে উদ্যোগ নেবে সরকার: নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী ধূমপান-মদ্যপান টিকার কার্যকারিতা কমিয়ে দেয় কনকনে শীতে বিপর্যস্ত জনজীবন ৬ লাখ টাকা ও ২৬ ভরি সোনাসহ ৫ চোর গ্রেফতার আবারো শৈত্যপ্রবাহ, পূর্বাভাস আবহাওয়া অধিদফতরের ১৮৯ আল শাবাব যোদ্ধাকে হত্যার দাবি উগান্ডার সেনাবাহিনীর ওয়াসার পানিতে মিলছে ক্যান্সার সৃষ্টিকারী রাসায়নিক উপাদান বাংলাদেশ-ভারত যৌথ স্টিয়ারিং কমিটি রামপালে ‘সন্তুষ্ট’ ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের স্মৃতিবিজড়িত জেএমসেনের বাড়ি দখলমুক্ত ‘প্রাথমিকে ঝরে পড়ার হার প্রায় শূন্য’ সেনাবাহিনীতে চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা, আটক ৩ ১৫০ টাকা খরচে কোটিপতি বেসরা ‘কোভিডে দারিদ্র্যের হার বেড়ে ৪২ শতাংশ’ কার্বন নিঃসরণরোধে প্রযুক্তি উদ্ভাবনে ১০ কোটি ডলার পুরস্কার ভারতে চারটি রাজধানীর দাবি নির্ধারিত সময়েই হবে টোকিও অলিম্পিক আকাশের ‘প্রবাস জীবন’ ও ‘বনিয়া বন্ধু-২’ রিলিজ ‘জয় শ্রী রাম’ স্লোগান দেয়ায় এবার বিস্ফোরক নুসরাত আন্তর্জাতিক বাজারে বাড়ছে তুলার কদর সাভারে ছাত্রলীগ নেতাসহ ১৯ জনের নামে মামলা মাস্ক পরা থাকলেও শনাক্ত করা যাবে চেহারা হানিফ ফ্লাইওভারে বাসের ধাক্কায় ঝরল দুই প্রাণ সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম গ্রাউন্ডস-২ উদ্বোধন বরুণ-নাতাশার বিয়েতে অতিথিরা ঢুকতে পারবেন ‘এক শর্তে’ প্রে‌মি‌কের ধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা স্কুলছাত্রী, লজ্জায় আত্মহত্যা চেষ্টা প্রেমিকার চলে গেলেন কিংবদন্তি মার্কিন সাংবাদিক ল্যারি কিং ৬৪ বছর বয়সী বৃদ্ধের ২৭ স্ত্রী, ১৫০ ছেলে-মেয়ে ছাতকে ডাকাতির ঘটনায় গ্রেফতার ২ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার দুইমাসের মধ্যে পরীক্ষা হবে না কুমিল্লায় হবে আন্তর্জাতিক ফুটবল ম্যাচ: বাফুফে সভাপতি ডাক্তারদের ৫ মিনিট মহাত্মা গান্ধীর সময়ের চেয়েও দামি! ‘জয় শ্রী রাম’ স্লোগান শুনেই রেগে মঞ্চ ছাড়লেন মমতা! হরতাল স্থগিত চূড়ান্তভাবে চাকরিচ্যুত খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩ শিক্ষক চট্টগ্রাম পৌঁছেছে বাংলাদেশ-উইন্ডিজ শীতবস্ত্র বিতরণ করলেন শেখ ফজলে ফাহিম এক দিনে মার্কিন সেনাবহরে পাঁচ হামলা! বাইডেনের জন্য চিঠিতে কী লিখে গেছেন ট্রাম্প? ৬২ কোটির অফার ফিরিয়ে দিলেন রোনালদো! খুলে দেয়া হলো উদয়াচল পার্ক বিশ্বকাপকে সামনে রেখে শুরু হচ্ছে যুবাদের কন্ডিশনিং ক্যাম্প ‘পৃথিবীর কোথাও একদিনে ৭০ হাজার পরিবার ঘর পেয়েছে কি!’ বঙ্গবন্ধু বায়োপিকের সংগীত পরিচালক শান্তনু মৈত্র মসজিদে পাওয়া ১৪ বস্তায় কত টাকা ছিল? পটুয়াখালীতে মেছো বাঘের ৬ শাবক উদ্ধার বাড়িতে হামলা চালিয়ে চেয়ারম্যানের ভাইকে হত্যা আগুনে সেরামের বড় আর্থিক ক্ষতি, ভ্যাকসিন সুরক্ষার দাবি পৌর নির্বাচনে মামা-ভাগ্নের লড়াই আবারো সীমান্তে লম্বা সুড়ঙ্গের সন্ধান ইমন সাহাকে এক হাত নিলেন নির্মাতা ঝন্টু পিতৃত্বের অধিকার নিয়ে ঐতিহাসিক রায় ভারতে মানিকগঞ্জে বাল্লা ইউপি চেয়ারম্যান সাময়িক বহিষ্কার বর গেলেন ঘোড়ায়, পালকিতে বধূ বাইডেনের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নতি চায় ট্রাম্প আমলের শত্রুরাও ‘জাতীয় ক্রিকেট দলে খেলতে চায় পুলিশ’ টিকাদানের মধ্যেই বাড়ছে সংক্রমণ, জনমনে উদ্বেগ ট্রাম্পের ব্যবসায় ধস, পকেটে 'ডলার' নেই নিউইয়র্কের পর ক্যালিফোর্নিয়ায় টিকা সংকট গার্মেন্টসের মতো প্লাস্টিক পণ্যকে রফতানিযোগ্য করতে হবে: টিপু মুনশি সুশান্ত একটাই ভুল করেছিলেন, দাবি কঙ্গনার করোনার প্রভাবে কমেছে চেয়ারম্যানের বেতন ইন্টার্নশিপে তৃতীয় দিনে নতুন গ্রহ আবিষ্কার (ভিডিও) টাকা তৈরির সরঞ্জামসহ চার যুবক আটক উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতিসহ ৩ নেতা বহিষ্কার সেন্টমার্টিনে ট্রলার ডুবিতে ৪ জেলের মৃত্যু বিএমডব্লিউ কিনেছেন অটোচালকের ছেলে সিরাজ সিরাজগঞ্জে বিজয়ী কাউন্সিলর হত্যায় আরও ৪ আসামি গ্রেফতার হাতে হাত রেখে করোনায় আক্রান্ত দম্পতির মৃত্যু (ভিডিও) আগুনে পুড়ে একই পরিবারের চারজনের মৃত্যুর ঘটনায় দুই তদন্ত কমিটি ভারতে হচ্ছে আইফোন উৎপাদন কারখানা মসজিদে মিলল ১৪ বস্তা টাকা নাতাশাকে নিয়ে যেখানে হানিমুন করবেন বরুণ গলায় ফাঁস দিয়ে রেস্তোরাঁ কর্মচারীর আত্মহত্যা দেশে করোনায় মৃত্যু ৮ হাজার ছাড়াল আয় বৃদ্ধিতে বেড়েছে ভোগ, খাল ভরছে আবর্জনায়: এলজিআরডি মন্ত্রী একসঙ্গে রোশান-যশ কারাগারে নারীর সঙ্গে আসামি: যা বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ৭তলা ভবন থেকে পড়ে নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু প্রণোদনা তহবিল থেকে ঋণ পাচ্ছেন না ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা: ডিসিসিআই উন্নয়নের নামে লুটপাট করছে সরকার: রিজভী
আরও সংবাদ...
বাসা ফাঁকা পেলেই বান্ধবীদের নিয়ে ফুর্তি করত দিহান আনুশকার শরীরে ‘ফরেন বডি’র আলামত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে লিগ্যাল নোটিশ জন্ম তারিখ অনুযায়ী কেমন যাবে আগামী বছর, দেখে নিন ফুটপাতেই ১০ বছর ভিক্ষুক জীবন পুলিশের শুটারের! সমালোচকদের জবাব দিলেন ভাইরাল সেই টম ইমাম মেয়েদের যেসব অভ্যাস পুরুষদের আকৃষ্ট করে আবারও প্রভার ভিডিও ভাইরাল! জন্মতারিখ অনুযায়ী কেমন যাবে ২০২১ সাল বোনের গর্ভে জন্ম নিল আরেক বোন! ধর্ষণের উদ্দেশ্যে নয়, একান্তে সময় কাটাতে বাসায় ডেকেছিল: দিহানের মা অবশেষে বিক্রি হলো মাইকেল জ্যাকসনের সেই রাজকীয় বাড়ি ৭ বছর আগে মারা যাওয়া বাবাকে গুগলে খুঁজে পেলেন সন্তান! নববর্ষ উদযাপন করতে গিয়ে যুবকের করুণ মৃত্যু বিকৃত যৌনাচারের ‘ফরেন বডি’সহ নানা উপাদানে সয়লাব দেশের বাজার দিহানের বাসার সিসিটিভিতে যা পাওয়া গেল জীবনসঙ্গী থাকতেও অন্যের প্রতি আকর্ষণ যে ৪ কারণে মানুষের ভিতরে কেন এত যৌন কাম: এসপি আবিদা তৃতীয় সন্তানের বাবা হচ্ছেন সাকিব! অনুষ্ঠানে গান বাজালে জানাজা বা বিয়ে না পড়ানোর ঘোষণা যুবককে চেয়ারে বেঁধে শারীরিক সম্পর্ক তরুণীর, ফাঁস লেগে মৃত্যু! ভারতীয় ক্রিকেটারদের দিয়ে টয়লেট পরিষ্কার করাচ্ছে অস্ট্রেলিয়া! গৃহবধূকে হত্যার পর চামড়া ছিলে লবণ লাগানোর বর্ণনা দিলেন স্বামী ঠোঁটের লিপস্টিক বলে দেবে নারীর চরিত্র পছন্দের পাত্র-পাত্রীকে বিয়েতে পরিবারকে রাজি করানোর ১০ উপায় দেওয়ানবাগী পীর মারা গেছেন ২৪ ঘণ্টার আগেই শেষ হচ্ছে দিন, তবে কি কেয়ামতের আলামত! নুসরাতের পোশাক বদলানোর ভিডিও ভাইরাল ধর্ষণকাণ্ড থেকেই নিখিলের সঙ্গে মন কষাকষি নুসরাতের! থার্টিফার্স্ট নাইটে বিমানবালাকে ১১ জনে ধর্ষণের পর হত্যা! (ভিডিও) আনুশকা-দিহানের সম্পর্ক দুইমাস আগে থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সময় জানালেন মন্ত্রী স্কুল-কলেজ ছাড়া কোথাও বাবার নাম নিও না, সন্তানদের উদ্দেশ্যে মাশরাফী ২০২১ সালে আসছে পুরুষের জন্মনিরোধক পিল! ঘটনার কিছুক্ষণ আগে বাবাকে ফোন করেছিল আনুশকা ডিএসপি মেয়েকে স্যালুট জানিয়ে ভাইরাল ইন্সপেক্টর বাবা বাংলাদেশেও করোনার নতুন ধরন শনাক্ত! ফজরের ওয়াক্তে মারা যাওয়ার ইচ্ছা পূরণ যুবকের, স্ট্যাটাস ভাইরাল লকডাউনে জন্মনিরোধক সামগ্রী বিক্রির হিড়িক নতুন ধরনের করোনা ভাইরাসে উচ্চহারে আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা অমরজিৎ পৃথিবীর 'সবচেয়ে কম বয়সী' সিরিয়াল কিলার বাংলাদেশে আসছে ‘রয়েল এনফিল্ড’! মেশিনে টুকরো টুকরো হয় ঘুমন্ত মেহেদীর দেহ স্কুলে ২০২১ সালের ছুটির তালিকা প্রকাশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কবে খুলতে পারে জানালেন প্রধানমন্ত্রী আসছে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ, তাপমাত্রা নামবে ৪ ডিগ্রিতে নববর্ষে আতশবাজি, লাখ লাখ পাখির করুণ মৃত্যু ‘বিকৃত যৌনাচারের কারণে মারা যায় স্কুলছাত্রী’ প্রেমিকের আবদার মেটাতে ১৪ বছরের মেয়েকে ধর্ষণে সাহায্য মায়ের! আনুশকার দাফন সম্পন্ন
আরও সংবাদ...

মেনে চলি

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  EnglishLive TV DMCA.com Protection Status
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
উপরে