সম্পূর্ণ নিউজ সময়
মুক্তকথা
৮ টা ২০ মিঃ, ২৯ জুলাই, ২০২০

পাপলু-শাহেদ বনাম তারেক সোলায়মান সেলিম

সাম্প্রতিক সময়ে চট্টগ্রামের বিভিন্ন পত্রিকায় একটি খবর ঘুরে ফিরে খুব গুরুত্ব পাচ্ছে। খবরটি হলো মহানগরের প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতা ও কাউন্সিলর তারেক সোলায়মান সেলিম অসুস্থ। দীর্ঘদিনের পোড় খাওয়া রাজনীতিবিদ ও দীর্ঘ অভিজ্ঞতা সম্পন্ন কাউন্সিলর অসুস্থ এটা অবশ্যই দুঃখের খবর। কিন্তু সেই দুঃখকে ছাপিয়ে বড় হৃদয়বিদারক হয়ে যেটি দেখা দিয়েছে সেটি হলো, টাকার অভাবে চিকিৎসা আটকে আছে তার!
আলী আদনান

এই মুহুর্তে আপনি ( যিনি লেখাটি পড়ছেন) তিনি ভাবতেই পারেন, টাকার অভাবে কত লোকেরই তো চিকিৎসা আটকে যায়। এটা এত জোরে বলার কী আছে? আপনি যদি চট্টগ্রামের অধিবাসী হয়ে থাকেন বা আপনি যদি কিছুটা রাজনীতি সচেতন হয়ে থাকেন তাহলে এমন প্রশ্ন আপনার মাথায় আসবে না। কেন আসবে না সে কথা বলতে গেলে অনেক কথাই বলতে হয়।

তারেক সোলায়মান সেলিম- এর বাবা চট্টগ্রামের আলকরন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। রাজনৈতিক পরিবারে জন্ম নেওয়া সেলিম স্কুল জীবন থেকেই ছাত্রলীগ করেন। চট্টগ্রাম সিটি কলেজ ছাত্রলীগের নেতা থাকা অবস্থায় ১৯৯৪ সালে তিনি স্থানীয় কাউন্সিলর নির্বাচিত হন। সেই শুরু। পরপর চারবার তিনি আলকরন ওয়ার্ডের কাউন্সিলরের দায়িত্ব পালন করেন। দলই তার ঘর সংসার। আওয়ামী লীগ অফিস, সিটি কর্পোরেশন আর রাজপথ। রাতে ঘুমানোর প্রয়োজনে নিজের বাসায় যেতেন। অবশ্য দলের যখন দুঃসময় ছিল,  তখন ঘরেও ঠিকমতো ঘুমানোর সময় এবং সুযোগ পেতেন না।

দল টানা ক্ষমতায় আছে দীর্ঘদিন। তারেক সোলায়মান সেলিম ৯০ দশকে যে পোশাকে যে ব্যবহারে যে জীবন যাত্রায় অভ্যস্ত ছিলেন এই ২০২০ সালেও তিনি একই পোশাকে একই জীবন যাত্রায় রয়ে গেছেন। 

দেশের অন্যতম বড় বাজার রিয়াজউদ্দিন বাজার, চট্টগ্রাম স্টেশন রোড, নিউমার্কেটের পশ্চিম অংশ, আমতল, তিন পোলের মাথা, দারুল ফজল মার্কেট, দোস্ত বিল্ডিং, পিকে সেন লেইন এলাকা নিয়ে যে ওয়ার্ড গঠিত সেই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর তারেক সোলায়মান সেলিম। যাদের ব্যবসায়িক জ্ঞান ভাল তারা বুঝতেই পারছেন এই এলাকার অর্থনৈতিক গুরুত্ব কতোখানি। সেই এলাকায় যিনি চারবার কাউন্সিলরের দায়িত্ব পালন করেছেন সম্পদের পাহাড় গড়ার সুযোগ তার ছিল। অথচ আজকে তারেক সোলায়মান সেলিম- এর চিকিৎসা আটকে গেছে টাকার অভাবে!

প্রিয় পাঠক, আসুন আমরা একটু অন্য প্রসঙ্গে যাই। ঠিক যে সময়টাতে তারেক সোলায়মান সেলিম টাকার অভাবে চিকিৎসাহীন অবস্থায় আছেন সেই সময়ে গণমাধ্যমে আরো কয়েকটি নাম আলোচিত হচ্ছে। পাপিয়া, পাপলু, শাহেদ, আরিফ প্রমুখ। দৃশ্যত মনে হতে পারে এরা গুটিকয়েক। কিন্তু অপ্রিয় হলেও সত্য সারাদেশে এরকম অনেক সাহেদ, পাপলু, পাপিয়া এখনো নানা কৌশলে ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়ে গেছে। তাদের কারো চিকিৎসা কিন্তু টাকার অভাবে আটকায়নি বা এভাবে চলতে থাকলে আটকাবে না। এই নামগুলো এমন নাম যাদের প্রসঙ্গ উঠলে প্রকাশ্যে কোন রাজনৈতিক দলই তাদের নিজেদের লোক বলে পরিচয় দিতে চায় না। কিন্তু সেই ঘৃণিত লোকদের জীবন মান, অর্থবিত্ত, শানশওকত তারেক সোলায়মান সেলিম - এর চাইতে অনেক চাকচিক্যময়।

স্বাভাবিকভাবে প্রশ্ন এসে যায়, বিগত সময়ে কে সঠিক পথে হেঁটেছে? তারেক সোলায়মান সেলিম, নাকি পাপলু, পাপিয়া, শাহেদ? যদি তারেক সোলায়মান সেলিম সঠিক পথে হেঁটে থাকেন তাহলে জীবনের এই পর্যায়ে এসে কেন এই অনিশ্চয়তা? একজন গৌরবদীপ্ত রাজনীতিবিদের নামের আগে কেন যোগ হলো 'দুঃস্থ' শব্দটি? তারেক সোলায়মান সেলিম এখানে একজন ব্যক্তিমাত্র নন; তিনি সেই সমাজের প্রতিনিধি যারা দলের প্রয়োজনে, দেশের প্রয়োজনে ত্যাগ করতে করতে দেওয়ালে এসে পিঠ ঠেকিয়ে ফেলেন।

কখনো কী শুনেছেন কোন জামায়াত নেতার চিকিৎসা টাকার অভাবে আটকে যেতে? না যায়নি। কখনো শুনেছেন জামাতপন্থী কোন জনপ্রতিনিধির নামের আগে দুঃস্থ শব্দটি বসতে? আমি অন্তত শুনিনি। কিন্তু তারেক সোলায়মান সেলিম -এর চিকিৎসা আটকে যায় টাকার অভাবে? আমি কাউকে দোষ দিচ্ছি না। আমি শুধু বলছি, বিষয়টি নিয়ে নতুন করে ভাবার সময় এসেছে। 

আরেকটি বিষয়ে আমি খুব আশ্চর্য হয়েছি। আমার ফ্রেন্ডলিস্টে চট্টগ্রামে ছাত্ররাজনীতি করে  এমন অনেক ছাত্রলীগের নেতাকর্মী আছে। কিন্তু আমি কারো ফেসবুকে তারেক সোলায়মান সেলিম- কে নিয়ে একটা পোষ্ট দেখলাম না। এটাও শুভ ইংগিত নয়। তারেক সোলায়মান সেলিম শুধু একজন রাজনীতিবিদই নন; একটা রিক্রুটিং সেল। আজকে তার যে হাত জীর্ণ শীর্ণ হয়ে আসছে সেই হাতের ছায়া পেয়েই একদিন জন্ম নিয়েছিল ছাত্রলীগের হাজার হাজার নেতাকর্মী। আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা অনলাইনে সচেতন নয়, ঐক্যবদ্ধও নয়। যে ইস্যুতে ঝাঁপিয়ে পড়া দরকার তারা বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই সেসব ইস্যুতে উদাসীন থাকে। আর এই সুযোগটি কাজে লাগায় শত্রুপক্ষ।

তারেক সোলায়মান সেলিম সুস্থ হয়ে সবার মাঝে ফিরে আসুন, আবার দলের হাত ধরুন, আবার মানুষের জন্য কাজ করার সুযোগ পান- সেটাই প্রত্যাশা।

লেখক: আলী আদনান, 
উদ্যোক্তা ও সঞ্চালক, "স্রোতের বিপরীতে যে জন" অনলাইনভিত্তিক আয়োজন

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের নিজস্ব। সময় সংবাদের সম্পাদকীয় নীতি বা মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতে পারে। লেখকের কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনও ধরনের কোনও দায় সময় সংবাদ নেবে না।

© ২০২১ সময় টিভি মিডিয়া নেটওয়ার্ক
সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত
DMCA.com Protection Status
সময় মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন
Somoy Tv App PlayStore Somoy Tv App AppleStore
ফলো সামাজিক সময়