মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
ড. প্রণব কুমার পান্ডে
আপডেট
০৪-০৬-২০২০, ১৪:৩৪

জীবন না জীবিকা? বাংলাদেশে পূর্ণাঙ্গ লকডাউন কাম্য হলেও সম্ভব কি?

জীবন না জীবিকা? বাংলাদেশে পূর্ণাঙ্গ লকডাউন কাম্য হলেও সম্ভব কি?
কোভিড-১৯ বিশ্বব্যাপী মহামারির আকার ধারণ করেছে বেশ কয়েক মাস হলো। বিশ্বব্যাপী কমপক্ষে ২১২ টি দেশের নাগরিকরা উদ্বেগের মধ্যে দিয়ে তাদের সময় অতিবাহিত করছে। ডব্লিউএইচও-এর নির্দেশাবলী মেনে ঘরে বসে থাকার কৌশল হিসাবে বিভিন্ন দেশের সরকার দেশব্যাপী লকডাউন ঘোষণা করেছে যাতে এই মারাত্মক ব্যাধির প্রকোপ নিয়ন্ত্রণ করা যায়। এই লকডাউনের অন্যতম প্রধান কারণ হলো এই মরণব্যাধির নিরাময়ের কার্যকর কোন ওষুধ বা ভ্যাকসিন এখন পর্যন্ত আবিষ্কৃত হয়নি।

এখন একটি প্রাসঙ্গিক প্রশ্ন হলোঃ বিশ্বব্যাপী উন্নত দেশগুলি যেখানে লকডাউন কার্যকর ভাবে প্রয়োগ করতে হিমশিম খাচ্ছে সেখানে উন্নয়নশীল দেশগুলোতে পূর্ণাঙ্গ লকডাউন কার্যকর করা আদৌও সম্ভব কি? ফলে এই বিষয়টি বিভিন্ন পর্যায়ে আলোচিত হচ্ছে গত কয়েক মাস ধরে। এখনে উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, উন্নত বিশ্বের সাথে উন্নয়নশীল বিশ্বের বাস্তবতার বেশ কিছুটা অমিল রয়েছে কারণ উন্নত দেশগুলোতে নাগরিকরা কোভিড-১৯ এর ভয়াবহতা উপলব্ধি করে সরকারের নির্দেশনা মেনে রাস্তায় ঘুরাঘুরি না করে বাসায় অবস্থান করে। অন্যদিকে, আমাদের মতো দেশের জনগণের রাস্তায় না এলে কিংবা পাড়ার দোকানে চা পান না করলে রাতে ঘুম হয় না কিংবা সময় কাটে না। ফলে, উন্নত বিশ্বের সরকার যখন কোভিড মোকাবেলায় জনগণের পূর্ণ সমর্থন পাচ্ছে তখন বাংলাদেশ সরকার সময় ব্যয় করছে জনগণকে বাইরে থেকে বাসায় ফেরত পাঠাতে। কি আশ্চর্য আমাদের বিবেকবোধ? কোভিড-১৯ এর ভয়াবহতা আমরা বিন্দুমাত্র উপলব্ধি করার চেষ্টাও করছি না।

আমরা যদি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কোভিড-১৯ পরিস্থিতির দিকে নজর দেই তাহলে দেখতে পাবো সেখানে সবচেয়ে বেশী মানুষ সংক্রমিত হয়েছে এবং মৃত্যুবরণ করেছে যদিও তাদের রয়েছে উন্নত চিকিৎসা ব্যবস্থা এবং অর্থনৈতিক শক্তি। সেখানে সরকার ও ডাক্তারদের প্রাণান্তকর প্রচেষ্টার ফলে অবস্থার কিছুটা উন্নতি হয়েছে। অন্যদিকে, গত দুই মাস সময়কালে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর কোভিড-১৯ পরিস্থিতি অত্যন্ত খারাপের দিকে যাচ্ছে। বাংলাদেশের পরিস্থিতিও খারাপের দিকে যাচ্ছে। সরকারের প্রচেষ্টায় রোগ পরীক্ষার সংখ্যা যত বাড়ছে রোগীর সংখ্যাও সমান তালে বাড়ছে। গত ৮ই মার্চ দেশে সর্ব প্রথম কোভিড-১৯ রোগী সনাক্ত হলেও ২৬ শে মার্চ থেকে সরকার ছুটি ঘোষণা করে নাগরিকদের সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে এবং বাসায় অবস্থান করতে বলে আসছে। যদিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহ ১৮ ই মার্চ থেকে বন্ধ রয়েছে। সরকারের পক্ষ থেকে সরাসরি লকডাউনের ঘোষণা না দেওয়া হলেও কার্যত এটি ছির অঘোষিত লকডাউন। এর মূল কারণ ছিল নাগরিকদের বাসায় ভেতরে রাখা যাতে করে কোভিড-১৯ এর বিস্তার রোধ করা সম্ভব হয়। সময়ই বলে দিবে সরকারের এই প্রচেষ্টা কতটা কার্যকর হয়েছে।

আমরা ভালোভাবেই জানি যে, বাংলাদেশে কোভিড-১৯ বিস্তারের ৪র্থ পর্যায়ে পৌঁছেছে। প্রথম দিকে রোগ বিস্তারের মাত্রা কিছুটা কম থাকলেও শেষের দশ হাজার রোগী সনাক্ত হতে সময় লেগেছে মাত্র ৭ দিন যেটি ভয়াবহ একটি তথ্য।  বর্তমানে দেশে কোভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা ৩০ হাজার অতিক্রম করেছে। প্রথম দিকে আইসিসিডিআর ল্যাবরেটরিতে কোভিড-১৯ এর পরীক্ষা শুরু হলেও বর্তমানে এটি সারা দেশের প্রায় ৪৯টি ল্যাবে পরীক্ষা করা হচ্ছে। শীঘ্রই অনেকগুলো ল্যাব তালিকাতে যুক্ত হবে। এদিকে, আমাদের স্বাস্থ্য মন্ত্রী ইঙ্গিত দিয়েছেন যে তারা খুব দ্রুত দিনে ১৫,০০০ পরীক্ষা করার সক্ষমতা অর্জন করবেন। দেশে কোভিড-১৯ এর পরীক্ষার সংখ্যা বৃদ্ধি পেলেও এই সংখ্যা দক্ষিণ এশিয়ার প্রায় বেশীরভাগ দেশের চেয়ে কম।  

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে পোশাক শিল্প ও মার্কেট খোলার অনুমতি দেওয়া সংক্রান্ত সরকারী সিদ্ধান্ত দেশে প্রায় সকল মহলের মধ্যেই সমালোচিত হচ্ছে কারণ এই সিদ্ধান্তের ফলে কোভিড-১৯ এর বিস্তার বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে। আর এর আলামত বোঝা যাচ্ছে গত কয়েক দিনের ক্রমবর্ধমান রোগীর সংখ্যা থেকেই। প্রায় প্রত্যেক দিন ২০০০ এর উপর নতুন রোগী সনাক্ত হচ্ছে। নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা যত বাড়বে, রোগীর সংখ্যাও তত বাড়বে এটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। আমরা যারা সরকারী সিদ্ধান্তের সমালোচনা করছি তারা কি কখনও ভেবে দেখেছি বাংলাদেশের মতো দেশের সরকারের পক্ষে ২ মাসের বেশী সময় সকল অফিস আদালত ও কল-কারখানা বন্ধ করে নাগরিকদের বাড়ীতে আটকে রাখা সম্ভব কি? এটি একটি মিলিয়ন ডলারের প্রশ্ন যা অত্যন্ত সংবেদনশীলতা এবং যৌক্তিকতার সাথে বিবেচনা করা দরকার।

আমাদের সকলের মনে রাখা প্রয়োজন যে দেশে প্রায় ৩.২ মিলিয়ন মানুষ দারিদ্র্য সীমার নিচে বাস করে। এই বিশাল সংখ্যার দরিদ্র জনগণ বিভিন্ন ধরণে অনানুষ্ঠানিক ক্ষেত্রে কাজ করে তাদের জীবিকা নির্বাহ করে। অর্থাৎ এই জনগোষ্ঠী তাদের জীবিকা নির্বাহ কারে প্রত্যেক দিনের আয়ের উপর। সুতরাং, এই বিশাল জনগোষ্ঠীকে  চিহ্নিত করে এবং তাদের জীবিকা নির্বাহের জন্য পর্যাপ্ত সহায়তা প্রদান করা কি সরকারের পক্ষে আওদৗও কি সম্ভব? সরকারের সকল সিদ্ধান্তের কার্যকারিতা সম্পর্কে কোন নেতিবাচক মন্তব্য করার আগে আমাদের অবশ্যই সরকারের চ্যালেঞ্জগুলো অনুধাবন করা প্রয়োজন। গোটা বিশ্বের মতো বাংলাদেশের মানুষও গত চল্লিশ বছরে এ জাতীয় মহামারী প্রত্যক্ষ করেছে বলে আমার মনে হয় না। তবে একথা সত্য যে, সরকারের বিভিন্ন দায়িত্বপ্রাপ্ত বিভাগ সঠিক সময়ে কিছু সঠিক ও কার্যকর সিদ্ধান্ত নিতে ব্যর্থ হয়েছে। উদাহরণস্বরূপ বলা যায় যে, কোভিড-১৯ যখন এই বছরের প্রথম দিকে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে তাণ্ডব চালাচ্ছিল তখন আমরা যথেষ্ট সময় পেয়েছিলাম এটি মোকাবেলা করার কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার। কিন্তু, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সেগুলো নিতে ব্যর্থ হয়েছে এটি নিশ্চিতভাবেই বলা যায়। এই সময় যথাযথ প্রস্তুতি নিতে রোগীদের চিকিৎসা দেওয়ার ক্ষেত্রে এতোটা সমস্যা হতো না।

অন্যদিকে, সরকার ছুটি ঘোষণার পরিবর্তে আনুষ্ঠানিক লকডাউন ঘোষণা করলে এটি বেশি কার্যকর হতো বলে আমরা মনে হয় কারণ সেক্ষেত্রে প্রথম থেকেই কোভিড-১৯ এর ভয়াবহতা সম্পর্কে জনগণ একটি পরিষ্কার বার্তা পেতো। ফলে, লকডাউন কার্যকর করতে সরকারকে যথেষ্ট বেগ পেতে হয়েছে।  প্রকৃতপক্ষে, মানুষকে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার জন্য বাড়ীতে রাখা সম্ভব হয় নি। মানুষ প্রয়োজন ছাড়াই বাসায় থাকার পরিবর্তে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বেরিয়েছে লকডাউন না মেনে। প্রথম দিকে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ও সেনাবাহিনীর সদস্যরা কিছুটা কড়াকড়ি করলেও পরবর্তীতে তাদের মধ্যেও এক ধরণের শৈথিল্য দেখা দেয় যা খুবই স্বাভাবিক কারণ তাদের মধ্যেও কোভিড-১৯ এর সংক্রামণের সংখ্যা বৃদ্ধি পেতে থাকে। তবে এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, সমাজের একটি শ্রেণী যারা দিন আনে দিন খায় তারাও রাস্তায় নেমেছিল কাজের সন্ধানে অথবা ত্রাণের সন্ধানে। তাদের ক্ষেত্রে বিষয়টি ছিল জীবিকার তাগিদ। কিন্তু যারা কোন কারণ ছাড়া বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বেরিয়ে কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ বাড়িয়েছে তাদের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নেওয়া উচিত ছিল। তাছাড়া, জনপ্রতিনিধিদের একটি অংশ ত্রাণ সামগ্রী চুরি করে সরকারকে বিব্রতর অবস্থায় ফেলেছে যদিও সরকারের তরফ থেকে অতি দ্রুততম সময়ে তাদের বেশীরভাগের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ফলে সরকারের দোষ-ক্রুটি খুঁজে বের করার সাথে সাথে লকডাউন মানার ক্ষেত্রে জনগণের যে শৈথিল্যের বিষয়টিও গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করা উচিত। বিশ^ব্যাপী আমরা লক্ষ্য করেছি জনগণ যথাসাধ্য চেষ্টা করেছে এই সহামারীকালীন সময়ে সরকারকে সাহায্য করতে ও সমর্থন জোগাতে। কিন্তু বাংলাদেশই মনে হয় পৃথিবীর একমাত্র দেশ যেখানে এই মহামারীকালীন সময়ে জনগণ বাজারে গিয়ে কেনাকাটার উৎসবে মত্ত। বিভিন্ন পত্র পত্রিকার মাধ্যমে আমরা দেখেছি যে, অন্য যে কোন সময়ের চেয়ে এখন বাজারে মানুষের সংখ্যা বেশী।  

কোভিড-১৯ চলাকালীন সময়ে দুর্ভোগের গুরুত্ব বিবেচনা করে  সরকার চেষ্টা করেছে যতটা সম্ভব দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে সহায়তা করার। অনেক দিন যাবত চলমান লক ডাউনের ফলে সৃষ্ট ব্যবসায়ীদের ক্ষতি পুষাতে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী সীমিত পরিসরে স্বাস্থ্য বিধি মেনে দোকানপাট খোলার সিদ্ধান্ত নিয়ে লকডাউন কিছুটা শিথিল করছেন। কিন্তু সমস্যা হলো এই সমস্ত ক্ষেত্রে আসলে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলা খুবই কঠিন। আর দোকানপাটে এত মানুষের ভিড় কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ বাড়িয়ে দিতে পারে। অন্যদিকে, পঞ্চাশ লাখ মানুষকে মোবাইলের মাধ্যমে প্রেরিত ২৫০০ টাকা পাঠানোর প্রধান মন্ত্রীর সিদ্ধান্ত সকল ক্ষেত্রেই প্রশংসিত হয়েছে কারণ এর মাধ্যমে প্রায় ২ কোটি মানুষ উপকৃত হবে। ইতিমধ্যে আমরা বিভিন্ন গণমাধ্যমের সূত্রের মাধ্যমে অভাবী লোকদের কাছে অর্থ প্রেরণে কিছু অনিয়মের কথা শুনেছি, যদিও ক্ষমতাসীন দলের নেতারা এ জাতীয় দাবি অস্বীকার করেছেন। দায়িত্ব¡শীল কর্তৃপক্ষের উচিত এই অভিযোগগুলি সম্পর্কে তদন্ত করে দোষীদের চিহ্নিত করে শাস্তি প্রদান করা। এটি অত্যন্ত লজ্জার বিষয় যে, এক শ্রেণীর দুর্নীতিবাজ রাজনীতিবিদ সরকারের সকল পদক্ষেপ বাস্তবায়নকে প্রশ্নবিদ্ধ করছে। এদের সম্পর্কে সরকারী দল তথা আওয়ামী লীগকে সাবধান হতে হবে।

এখন আর একটি উল্লেখযোগ্য প্রশ্ন হলো: গত কয়েক দিন যাবত যে হারে রোগীর সংখ্যা বাড়ছে তাতে কি আমরা রোগীর সংখ্যার গ্রাফের চূড়ার দিকে যাচ্ছি? কিছু দিন আগেও জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা মনে করছিলেন মে মাসের শেষের দিকে হয়তো আমরা চূড়ায় পৌঁছাবো এবং তার পর আস্তে আস্তে রোগীর সংখ্যা কমতে শুরু করবে। কিন্তু, পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করে এখনই বলা সম্ভব নয় যে পিক আসলো কোথায়? গত কয়েক দুই সপ্তাহ ধরে যে হারে মানুষ ঢাকার বাইরে গেছে এবং ফিরে এসেছে সেটি অত্যন্ত বিপদজ্জনক। এতদিন পর্যন্ত কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ ঢাকা ও এর আশে পাশের জেলায় বেশী পুঞ্জিভূত ছিল। দেশের অন্যান্য জেলায় রোগীর সংখ্যা অনেক কম ছিল। কিন্তু পরিস্থিতি দেখে এখন মনে হচ্ছে ঢাকার বাইরে যাওয়া মানুষরা সারা বাংলাদেশে কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ ছড়িয়ে দিবে। এখন থেকে ৭/১০ দিন পরে আসলে বোঝা যাবে যে আমরা কোভিড-১৯ এর সংক্রমণের কোন পর্যায়ে আছি। এর মধ্যে অনেক জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন যে গোটা জুন মাসে আমাদের রোগীর সংখ্যা ব্যাপক হারে বাড়বে। জুলাই থেকে কিছুটা কমতে পারে। তবে সেটি নিশ্চিত ভাবে বলা খুবই কঠিন।  

তবে এই ভয়াবহতার পেছনে সরকারী সিদ্ধান্তের কিছুটি অস্পষ্টতা থাকলেও জনগণের শৈথিল্যই বেশী দায়ী। আর পাশাপাশি মানুষের জীবন ও জীবিকার রূপ বাস্তবতা কিছুটা দায়ী। কারণ সরকার যে সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে তা দিয়ে একটি পরিবার পরিচালনা করা খুবই কঠিন কারণ একজন মানুষের সংসারে চাল-ডাল ছাড়াও অন্যান্য চাহিদাও থাকে যা পূরণ করতে অর্থের প্রয়োজন হয়। নগদ অর্থ প্রদানের মাধ্যমে সরকার এক শ্রেণীর দরিদ্র জনগোষ্ঠীর চাহিদা কিছুটা লাঘব করেছে। কিন্তু, এই সংখ্যার বাইরেও অনেক মানুষ আছে যারা চাহিদা মেটানোর তাগিদে লকডাউন কিংবা সামাজিক দূরত্বের বিষয়টির তোয়াক্কা না করে জীবিকার সন্ধানে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বেড়াচ্ছে। তাদের কাছে জীবনের চেয়ে জীবিকার মূল্য বেশী। ফলে, আমাদের মতো দেশে পূর্ণাঙ্গ লকডাউন কাম্য হলেও বাস্তবায়ন করা সম্ভব নয়। আর এই বাস্তবতা মেনেই আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। তবে, জনগণের পক্ষ থেকে আর একটু বেশী দায়িত্বশীল ভূমিকা সকলেই আশা করতে পারে। কারণ আমরা একদিকে যেমন বলছি জীবনের চেয়ে জীবিকা বড়। আবার আমাদের এটাও মনে রাখতে হবে যে জীবন না থাকলে জীবিকা কোনই কাজে আসবে না।

লেখক: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগের প্রফেসর।



DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ
করোনা ভাইরাস লাইভ আপডেট
আক্রান্ত চিকিৎসাধীন সুস্থ মৃত্যু
১৯০০৫৭ ৮৬৮৩০ ১০৩২২৭ ২৪২৪
বিস্তারিত
ফ্রান্সে করোনা আক্রান্ত প্রথম শিশুর জন্ম 'নামাজের সময় ঢেকে দেয়া হবে হায়া সোফিয়ার খ্রিস্টীয় চিহ্ন' ভারতকে ল্যাং মেরে ইরানের প্রকল্প বাগিয়ে নিল চীন আল আকসাকে স্বাধীন করার ঘোষণায় এরদোয়ানের তীব্র সমোলাচনা ইহুদি গোষ্ঠীর এ কোন আনুষ্কা! করোনা পরীক্ষার নমুনা সংগ্রহ করে ড্রেনে ফেলে দিত জেকেজি ফেইসবুকে সাহেদের ছবি ভাইরাল গরু চুরি করতে এসে ১০টি ডাকাতি মামলার আসামি গ্রেফতার পাঠাওয়ের ফাহিম হত্যাকাণ্ডে আইসিটি প্রতিমন্ত্রীর শোক নেত্রকোনায় নকল প্রসাধনী কারখানায় অভিযান, গ্রেফতার ১ শাহেদ বোরকা পরায় বাজারের 'মহিলা পাগল' ভেবেছিল এলাকাবাসী দোহারে স্বর্ণ ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা এই প্রাণির অ‌্যান্টিবডিতে ধ্বংস হবে করোনা, দাবি করলেন চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা রৌমারীতে বাঁধ ভেঙে পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে গ্রাম এবার চট্টগ্রামে করোনার ভুয়া রিপোর্ট, ডায়াগনস্টিক সেন্টার সিলগালা জাল টাকা দিয়েই ঋণ শোধ করতেন সাহেদ এবার আল আকসা মসজিদ স্বাধীন করার ঘোঘণা দিলেন এরদোগান প্রথম টেস্টের দু:খ ভুলতে মাঠে নামছে ইংল্যান্ড পালিয়ে থাকার সময় একাধিকবার ঢাকায় এসেছেন শাহেদ! মুন্সীগঞ্জে প্রবল স্রোতে দুই ব্রিজের অ্যাপ্রোচ বিলীন যেসব গুণে সাফল্যের চূড়ায় পৌঁছেছিলেন ফাহিম পঞ্চগড়ে নতুন করে ৯ জনের করোনা শনাক্ত স্বামীকে ছেড়ে সৎ ছেলেকে বিয়ে! চাঁদপুর হাসপাতালে যুক্ত হলো ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের গভীর বন্ধুত্বে শঙ্কায় ভারত, সামলাতে পাঠাচ্ছে নতুন রাষ্ট্রদূত! গঙ্গায় ছুঁড়ে ফেলা হচ্ছে করোনা রোগীর লাশ! প্রস্তাব পেয়েও সিপিএলে যাচ্ছেন না তামিম-রিয়াদরা শিশু ধর্ষণের অভিযোগে শিশু আটক শরীরে এই রোগগুলো থাকলেই করোনা‌য় মৃত্যুর আশঙ্কা!‌ দেখে নিন তালিকা শনিবার থেকে মনোবিদের ক্লাসে ক্রিকেটাররা মাদারীপুরে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ সাহেদের রিমান্ডের বিষয়ে যা জানালো ডিবি জুনিয়র ক্রিকেট মাঠে ফেরাতে তৎপরতা শুরু করেছে বিসিবি পাকিস্তানে তেলের নতুন খনির সন্ধ্যান পানির ট্যাঙ্কে তেলের কারবার! খোলামেলা ছবি পাঠান- কাজ দেবো, ফেসবুকে অভিনেত্রীদের প্রস্তাব! কুড়িগ্রামে করোনায় নতুন করে ১৬ জন আক্রান্ত আয়ার‌ল্যান্ডের সাড়ে ১১ বিলিয়ন পাউন্ড ট্যাক্স পরিশোধ করবে না অ্যাপল ঘুষ-দুর্নীতিসহ নানা অভিযোগ, বানোয়াট দাবি ইউএনও’র রিজেন্টের সঙ্গে চুক্তি নিয়ে মুখ খুললেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের ডিজি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অরুচি, আগ্রহ বিগ ব্যাশে রিমান্ডে সাবরিনার স্বামী আরিফ কাগজের বোতলে বিক্রি হবে জনি ওয়াকার কাতার বিশ্বকাপের সূচী চূড়ান্ত ‘রাক্ষুসী নদী স্বপ্নের সংসারটারে তছনছ কইরা দিল’ চট্টগ্রাম বন্দরে আগুনের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করোনায় মারা গেলেন সাবেক নৌবাহিনী প্রধান করোনাতেও অলিম্পিকের প্রস্তুতি চালিয়ে যাচ্ছেন আজিজা চাকির জাতীয় যাকাত ফাণ্ড গঠনের পরিকল্পনা শামীম ওসমানের করোনায় না ফেরার দেশে ভাষাসৈনিক সাঈদ হায়দার মুজিববর্ষে কেউ কর্মহীন থাকবে না: যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী পাঠাওয়ের ফাহিম হত্যায় সিসিটিভির ফুটেজে যা দেখা গেল মুন্সীগঞ্জে ছয়টি অবৈধ পেট্রোল পাম্প সিলগালা ফরিদপুরে করোনায় আ.লীগ নেতার মৃত্যু করোনায় ফেস শিল্ড পরে রোমান্সের ভিডিও ভাইরাল কোম্পানীগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতার পরিবারকে বিষ খাইয়ে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ চা বাগানে আইনশৃঙ্খলা উন্নয়নে শ্রমিক-পুলিশ মতবিনিময় করোনার ঝুঁকি কমছে যে ওষুধে কোম্পানীগঞ্জে দোকানে বসে ব্যবসা করছিলেন করোনা রোগী চার বছরের শিশু অপহরণ, স্বামী-স্ত্রী আটক ফজলে কবিরকে তৃতীয় মেয়াদে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর নিয়োগ ঈদে গণপরিবহন বন্ধ নিয়ে বিভ্রান্তি সিংড়ায় আত্রাই নদীর বাঁধ ভেঙ্গে ফসল পানির নিচে চট্টগ্রাম বন্দরের শেডে আগুন, পুড়ে গেলো নিলামের জন্য রাখা কেমিকেল ময়ূর-২ লঞ্চের ২ চালকের রিমান্ড মঞ্জুর ট্রাম্প পৃথিবীর জন্য বিপজ্জনক, তার পদত্যাগ করা উচিৎ: ট্রাম্পের ভাতিজি স্বামী-স্ত্রীর গোপনীয়তা, কঠোর হলো গুগল নোবিপ্রবির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন আপাতানিদের অবাক করা নাক ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল থেকে ফি দিতে দফায় দফায় নোটিশ সরকার আর শিক্ষিত বেকার তৈরি করতে চায় না: শিক্ষামন্ত্রী গুপ্তধন পাইয়ে দেন তিনি! করোনায় নীলফামারীতে সাংবাদিকের মায়ের মৃত্যু ওয়েব সিরিজের ‘অশ্লীল’ ভিডিও সরাতে এক সপ্তাহ সময় করোনায় ধূমপান ছেড়েছে ১০ লাখ মানুষ, বলছে গবেষণা হাতিয়ায় মাছ ধরার নৌকাডুবি, ৩ জেলের মরদেহ উদ্ধার ব্রিটিশ জাহাজ কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলার অনুমতি পেলেন বাংলাদেশি নারী কসবায় ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে কিশোরী অপহরণের অভিযোগ কসবায় দুই বেকারিকে জরিমানা তরুণীর ফ্লাটে একাধিক পুরুষের আসা-যাওয়া, অতঃপর... ৩ মাস আগে ‘বয়কট’ হয়েছেন মিশা সওদাগর ‘দেশের প্রথম হেলিপোর্ট তৈরির কাজ চলছে’ মাস্ক পরা থেকে বিরত রাখতে চান তারা! চীনে ভয়াবহ বন্যা, পানিবন্দি সাড়ে ৪ কোটিরও বেশি করোনার প্রাদুর্ভাবের মধ্যেই ফ্রান্সে ‘বাস্তিল ডে’ উদযাপন ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের কূটনীতিতে এবার ফাঁসছে ইংল্যান্ডও! আজারবাইজান-আর্মেনিয়া সীমান্তে সংঘর্ষে নিহত ১৬ পদ্মাসেতু রেল প্রকল্পের ক্ষতিপূরণের কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ কালো হওয়ায় পারিশ্রমিক কম পেতাম: ভালাতি প্রধানমন্ত্রীর কাছে ৫০০ কোটি টাকা চাইল চলচ্চিত্র পরিবার বিশ্বকে কয়েক দশক পিছিয়ে দিবে করোনা: গুতেরেস হংকংকের বাণিজ্য সুবিধা বাতিল, আদেশে সই ট্রাম্পের প্রাপ্তবয়স্ক নারীদের আলাদা বসবাস অপরাধ নয়: সৌদি আদালত ইন্দোনেশিয়ায় বন্যায় নিহত ১৬ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে সুযোগ পাওয়া ফরিদপুরের রিপন এখন পরিচ্ছন্নতাকর্মী রাজবাড়ীতে ৩টি ইউনিয়নে বিট পুলিশিং কার্যক্রম শুরু ৮ বছর বয়সী খুদে ক্রিকেটারের কোচ বাবর আজম তাহসান-মিমের ‘হঠাৎ বিয়ে’ দক্ষিণ কোরিয়ায় জরিমানার মুখে টিকটক বাগেরহাট স্বাস্থ্য বিভাগের ২৭ কর্মী করোনা আক্রান্ত
আরও সংবাদ...
ভারতের খয়রাতি বা ঋণের পরিমাণ কত? বিশ্বে প্রথম করোনার ভ্যাকসিন তৈরি করল চীন এবার দেশেই তৈরি প্রাইভেটকার! ৫ সমুদ্র বন্দরের মালিক হচ্ছে বাংলাদেশ বাংলাদেশে প্রথম করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কারের দাবি, বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলন পরীক্ষা ছাড়াই কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে পাসের সিদ্ধান্ত! ‘খয়রাতি’ বলায় নিঃশর্ত ক্ষমা চাইল ভারতীয় মিডিয়া ভারতের ইটের জবাব পাথরে দিল বাংলাদেশ চীনের সঙ্গে হেরে বাংলাদেশকে ‘খয়রাতি’ বলে কটাক্ষ ভারতীয় মিডিয়ার আরও ভয়ংকর ভাইরাস, ২ দিনেই ৮ কোটি মানুষের মৃত্যুর শঙ্কা! এক দিনে ৫০ বার ভূমিকম্প! হিরো আলমের আপত্তিকর ভিডিও ফাঁস দেশে পরীক্ষা ছাড়াই স্কুল-কলেজে পাসের ঘোষণা আসতে পারে চীনের করোনা ভ্যাকসিন প্রথমেই পাবে বাংলাদেশ মোহাম্মদ নাসিমকে নিয়ে অমানবিক স্ট্যাটাস, গ্রেফতার হলেন বেরোবি প্রভাষিকা লাদাখে উড়ছে ঝাঁকে ঝাঁকে চীনা ড্রোন চীনা শিবির গুড়িয়ে দিতে ক্ষেপণাস্ত্রসহ ৪৫ হাজার সেনা পাঠাল ভারত কালোজিরাতেই সেরে যাচ্ছে করোনা, মদিনার গবেষকদের বিস্ময়কর দাবি চীনের হামলায় ভারতের ২০ সেনা নিহত ফটোল্যাব ব্যবহারকারীর তথ্য চলে যাচ্ছে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থায়! ঢাকার যেসব এলাকা রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত ভারতীয় পণ্য বর্জন করলে বাংলাদেশের কী হবে? মোহাম্মদ নাসিম আর নেই করোনায় আক্রান্ত হলেন মাশরাফী ২৩ ঘন্টায় ৪ বার ভূ কম্পন, যেকোনো মুহূর্তে বড় ভূমিকম্পের শঙ্কা ভারতের বিস্তীর্ণ এলাকা দখলে নিয়েছে চীনা সেনারা রণপ্রস্তুতিতে এগিয়ে আসছে চীন! বিভিন্ন স্থানে রেড জোন ঘোষণা করে লকডাউনের প্রজ্ঞাপন আজই অফিস খোলা ও চলাচলে নতুন প্রজ্ঞাপন জারি বাংলাদেশিদের কাছে ইটের জবাবে পাথর খেয়ে পিছু হটেছে ভারতীয়রা! ঢাকার অনেক মানুষের শরীরে অ্যান্টিবডি চলে এসেছে: ড. বিজন শীল করোনায় বাংলাদেশে নতুন রোগ শনাক্ত মারা গেলেন এন্ড্রু কিশোর সর্বোচ্চ আক্রান্তের দিনে মৃত্যুরও রেকর্ড শাহেদ প্রতারণায় ছাড় দেননি পরিবারকেও, মুখ খুলেছেন স্ত্রী বাংলাদেশে আবিষ্কৃত করোনার ভ্যাকসিনের বিরাট অগ্রগতি, ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের উদ্যোগ ‘পানির নিচে’ ১৩ ঘণ্টা জীবিত থাকার ব্যাখা দিলেন বিশেষজ্ঞ ‘বাবা-মা করোনা এনেছে’ অজুহাতে ইঞ্জিনিয়ার স্বামীকে নির্মম নির্যাতন স্ত্রীর (ভিডিও) নিহত ভারতীয় সেনাদের বীভৎস ছবি প্রকাশ ভারতের ডেপসং দখলে ট্যাঙ্ক নিয়ে এগোচ্ছে চীনা বাহিনী চীন-ভারত সেনাদের মধ্যে আবারও সংঘর্ষ (ভিডিও) বাংলাদেশের পাওনা টাকা আটকে রেখেছেন কিম জং উন ছুঁয়েও দেখলেন না কোন ডাক্তার, বাবার কোলেই শিশুর করুণ মৃত্যু শরীর ঘেঁষে হাঁচি দেয়ায় পিস্তল নিয়ে তেড়ে এলেন এমপির দেহরক্ষী শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে ইন্টারনেট দেয়ার উদ্যোগ লকডাউনে রেড জোনে কাজ চলবে যেভাবে সরকারি হিসাবের চেয়ে করোনায় মৃত্যু লক্ষাধিক বেশি: বিবিসি দোকানপাট খোলা রাখার সময় বাড়ল চীনের কাছে মার খেয়ে পাকিস্তানে গোলা ফেলছে ভারত! ৭ হাজার টাকায় মিলছে করোনা নেগেটিভের সনদ!
আরও সংবাদ...

মেনে চলি

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  Live TVEnglish DMCA.com Protection Status
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
উপরে