সম্পূর্ণ নিউজ সময়
প্রবাসে সময়
৫ টা ৩৯ মিঃ, ১৬ মে, ২০২০

লকডাউন শেষে বেলজিয়ামের দোকানগুলোতে উপচেপড়া ভিড়

করোনাভাইরাসের ভয়াল থাবার মধ্যেই দোকানপাট খুলে দিয়েছে বেলজিয়াম। তবে গ্লাভস ও মাস্ক পড়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। করোনার জেরে দেশটির দুই লাখের বেশি কর্মজীবীকে ছাটাইয়ের পরিকল্পনা করছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। অনিশ্চিত ভবিষ্যতের আশঙ্কায় দিন গুণছেন সেখানকার প্রবাসী বাংলাদেশিরাও।
ওমর ইনান

টানা দুই মাসের লকডাউন শেষে উপচে পড়া ভিড় দেখা যায় বেলজিয়ামের দোকানগুলোতে। প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনাকাটার সুযোগ পেয়ে ও ঘর থেকে বের হতে পেরে উচ্ছ্বসিত অনেকেই।

গেল চৌঠা মার্চ থেকে বিধিনিষেধ শিথিল করতে থাকে বেলজিয়াম। চালু করা হয় গণপরিবহণ। এরই ধারাবাহিকতায় ফেস মাস্ক ও গ্লাভস পরিধানের শর্তে দোকান-পাট শপিংমল খোলার অনুমতি দিয়েছে দেশটির সরকার।

এরমধ্যেই 'দ্য ইকোনোমিক রিস্ক ম্যানেজমেন্ট গ্রুপে'র একটি জরিপ বলছে, করোনাভারাসের কারণে দেশটির দুই লাখের বেশি মানুষ চাকরি হারাতে পারেন। রেস্তোরাঁ ও দোকানপাট বন্ধ থাকায় এর ব্যাপক প্রভাব পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। অনিশ্চয়তায় সেখানকার প্রবাসী বাংলাদেশিরাও।

বেলজিয়াম প্রবাসী ব্যবসায়ী দাউদ খান সোহেল বলেন, 'বেলজিয়ামের অবস্থা স্বাভাবিকের দিকে। আস্তে আস্তে কন্ট্রোলের দিকে আসছে।'

বেলজিয়াম প্রবাসী বাংলাদেশি ইকরাম হোসাইন বলেন, 'ইউনিভার্সিটি খোলা থাকলে শিক্ষকদের তত্ত্বাবধায়নে থেকে যেভাবে ক্লাস বা রিসার্স পেপার তৈরিতে অংশ নেওয়া সম্ভব হতো এখন সেটি অনলাইনে সেটি না হওয়ায় ভোগান্তি পোহাতে হয়।'

লুক্সেমবার্গ ও ইউউ বেলজিয়াম রাষ্ট্রদূত মো. শাহাদাৎ হোসাইন বলেন, 'বাংলাদেশের অধিকাংশ নাগরিকরা সেল্ফ এমপ্লোয়ী। যেহেতু সকল ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ তাই তারা সাংঘাতিক একটা কষ্টের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে।'

করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলেও পর্যায়ক্রমে আগামী ১৮ মে থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার কথা জানিয়েছে বেলজিয়াম সরকার।

© ২০২১ সময় টিভি মিডিয়া নেটওয়ার্ক
সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত
DMCA.com Protection Status
সময় মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন
Somoy Tv App PlayStore Somoy Tv App AppleStore
ফলো সামাজিক সময়