সম্পূর্ণ নিউজ সময়
স্বাস্থ্য
২১ টা ৫৯ মিঃ, ১৫ এপ্রিল, ২০২০

দেশেই তৈরি হচ্ছে পিপিই

করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা সেবায় দরকারি সুরক্ষা সরঞ্জামের সঙ্কট যখন বিশ্বব্যাপী, তখন মাস-খানেক হলো দেশেই তৈরি হচ্ছে পারসোনাল প্রটেক্টিভ ইকুয়েপমেন্ট বা পিপিই। যা লেভেল ওয়ান ও টু মানের। তবে কঠিন হয়ে পড়ছে বিশেষায়িত কাপড় ও উপকরণ মেলানো। এরমধ্যেই আরও উন্নত মানের পিপিই তৈরির চেষ্টা করছেন উদ্যোক্তারা। চিকিৎসকরা বলছেন, এ মানের পিপিই-ই লেভেল থ্রি ও ফোরের মতো নিরাপত্তা ঝুঁকি কমাতে সহায়ক।
স্বাস্থ্য সময় ডেস্ক

পাগলা ঘোড়ার মতো ছুটে চলা মহামারি করোনাভাইরাসের লাগাম টানতে টালমাটাল গোটা বিশ্ব। প্রতিদিনই বাড়ছে স্বাস্থ্যঝুঁকি, সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা। করোনা আক্রান্তদের সেবা দিতে সবচেয়ে বেশি দরকার হচ্ছে পারসোনাল প্রটেক্টিভ ইকুয়েপমেন্ট-পিপিই। যার সঙ্কট এখন বিশ্বব্যাপী।

এ অবস্থায় পিপিই তৈরির বিশেষ ধরনের যন্ত্রপাতির সুবিধা রয়েছে দেশের এমন অনেক পোশাক কারখানাতেই তৈরি হচ্ছে পিপিই। যা লেভেল ওয়ান ও টু মানের। উদ্যোক্তোরা বলছেন, আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম বন্ধ থাকায় এই পোশাক প্রস্তুত করতে দরকারি উপকরণ মেলানো হচ্ছে বিশেষ কোনো পণ্য তৈরির জন্য আগে থেকেই নিয়ে আসা কাঁচামালের বেচে যাওয়া অংশ থেকে। আর বিনামূল্যে বিতরণের আগে নেয়া হচ্ছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অনুমোদন।

টিম গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল্লাহ হিল রাকিব বলেন, আমরা যেটা বানাচ্ছি সেটা হলো ৫ থেকে ৭ বার রিইউজ করা যাবে। তারা হ্যাপি কারণ এটা দিয়ে আপাতত তাদের কাজ চলবে।

বিজিএমইএ সভাপতি রুবানা হক বলেন, আমরা যে দ্রুত পিপিই বানাতে পারছি, দিতে পারছি-এটাও কিন্ত মোটামুটিভাবে ধরে নিতে হবে বড় ব্যাপার।

করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসায় লেভেল থ্রি ও ফোর মানের পিপিই দরকার হলেও চিকিৎসকরা বলছেন, এগুলোই সুরক্ষা দেবে ডাক্তার, নার্সসহ নিরাপত্তা ঝুঁকিতে থাকা সকলকে।

মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. রিদউয়ানউর রহমান বলেন, আমার তো থ্রি, ফোর মানের পিপিই নাই, ওটা নিয়ে ভেবে লাভ নাই। আমি যেটা পাচ্ছি, ওয়ান-টু পাচ্ছি সেটাতেও ৯৫ ভাগ, ৯৭ ভাগ কমবেশি নিরাপত্তা সুরক্ষা আছে।

স্বাস্থ্য সুরক্ষায় এগিয়ে আসা উদ্যোক্তারা বলছেন, চেষ্টা চলছে লেভেল থ্রি ও ফোর মানের পিপিই তৈরির অনুমোদন পাওয়ার।

টিম গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল্লাহ হিল রাকিব বলেন, পিপিই, লেভেল থ্রি-ফোর হয়তো সময়ের ব্যাপার। আমাদের যে মেশিন আছে, সেটা দিয়ে সব লেভেরই করা যাবে। কিন্ত কাঁচা ও টেস্টিং ইকুপমেন্ট আনার চেষ্টা চলছে। হয়তো ১ মাসের ভিতরেই সেটার ব্যবস্থা করতে পারব।

উদ্যোক্তারা বলছেন, সঙ্কট মোকাবিলা করতে গিয়ে বাড়ছে নিজেদের সক্ষমতা। আবার অনেক দেশও যোগাযোগ করছে বাণিজ্যিকভাবে এসব পিপিই সংগ্রহের।

© ২০২১ সময় টিভি মিডিয়া নেটওয়ার্ক
সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত
DMCA.com Protection Status
সময় মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন
Somoy Tv App PlayStore Somoy Tv App AppleStore
ফলো সামাজিক সময়